• বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৭  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

অতিরিক্ত সাবান ও শ্যাম্পুর ব্যবহার ক্ষতিকর কেন?

১৩ জানুয়ারি ২০২০, ১৪:৩১
সাবান
সোডিয়াম লরাইল সালফেটের পানি ও তেলকে একত্রিত করার বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে; (ছবি- প্রতীকী)

আমাদের দৈনন্দিন জীবনে গোসলের জন্য সাবান ও শ্যাম্পু ছাড়া আজকাল চলেই না। সাবান ও শ্যাম্পু ছাড়াও নানাবিধ প্রসাধনী সামগ্রীর সাথে আমরা পরিচিত। কিন্তু এগুলো কী কী উপাদান দিয়ে তৈরি তা হয়তো লক্ষ্যই করি না। এই যেমন অধিকাংশ সাবান, শ্যাম্পু, প্রসাধনী সামগ্রী, টুথপেস্ট, পরিষ্কারক বস্তুতে একটি উপাদানের কথা জানা যায়। উপাদানটির নাম হচ্ছে সোডিয়াম লরাইল সালফেট বা লরেথ। কখনো কি ভেবে দেখেছেন এই সোডিয়াম লরাইল সালফেট স্বাস্থ্যসম্মত কি না?

আমরা জানি তেল ও পানি একত্রে মেশে না। তাই এমন কিছু ব্যবহার করা দরকার যা পানি ও তেলকে একত্রিত করতে পারে। সোডিয়াম লরাইল সালফেটের পানি ও তেলকে একত্রিত করার বিশেষ ক্ষমতা রয়েছে। এই ক্ষমতা থাকায় একে সারফেকট্যান্ট বলা হয়। এই সারফেকট্যান্ট ক্ষমতা যার আছে তা পানি ও তেলের অণুকে একত্রে বেঁধে ফেলে। তাই অধিকাংশ সাবান ও ডিটারজেন্টে এটি ব্যবহার করা হয়। এর ফলে আমরা আমাদের তৈলাক্ত ত্বক ও থালা-বাসন পানি দিয়ে ধৌত করতে পারি।

সারফেকট্যান্ট হিসেবে সোডিয়াম লরাইল সালফেটের কার্যকারিতা, স্বল্প মূল্য ও প্রাচুর্যতা থাকায় বিভিন্ন ধরনের প্রসাধনী, ত্বকের নানা ধরনের পণ্য ও ভোগ্য সামগ্রীতে ব্যবহার করা হয়।

বহুল ব্যবহার হলেও সোডিয়াম লরাইল সালফেটকে গবেষকরা ব্যবহার করতে নিরুৎসাহিত করছেন। সাধারণত আমাদের ত্বক প্রাকৃতিকভাবেই শরীরকে ক্ষতিকর উপাদান থেকে মুক্ত রাখে। যদি কোনো প্রকার রাসায়নিক পদার্থ ব্যবহার করা হয়, তবে এই প্রতিরক্ষামূলক কৌশলটি নষ্ট হয়ে যায়।

প্রতিরক্ষামূলক কৌশল নষ্ট করার পাশাপাশি সোডিয়াম লরাইল সালফেট ত্বকের একেবারে ওপরের স্তর যাকে স্ট্রাটাম কর্নিয়াম বলা হয় তার গঠন পরিবর্তন করতে পারে। এই পরিবর্তনের ফলে অন্যান্য উপকরণ সহজেই ত্বক ভেদ করে ভেতরে প্রবেশ করতে পারে। ফলে ত্বক চুলকাতে পারে এবং অ্যালার্জি হতে পারে।

জার্মানির একদল গবেষক ১৬০০ রোগীর ওপর প্যাচ টেস্ট করেন। সেখানে গবেষকরা তাদের ফলাফলে শতকরা ৪২ ভাগ রোগীর ক্ষেত্রে ত্বক চুলকানোর প্রমাণ পান। প্যাচ টেস্ট হচ্ছে ত্বকের বিভিন্ন ধরনের প্রদাহ তথা ডার্মাটাইটিস শনাক্তকরণের পরীক্ষা। 

অপর একটি গবেষণায় প্রমাণিত হয় দীর্ঘদিন সোডিয়াম লরাইল সালফেট ব্যবহারে ত্বক চুলকায়। অন্য দিকে এটির ব্যবহার বন্ধ করা হলে ত্বকের চুলকানো প্রশমিত হয়। যদি কোনো ব্যক্তির সোডিয়াম লরাইল সালফেটের প্রতি সংবেদনশীলতা থাকে তবে তার এটি ব্যবহার করলে ত্বক লাল, শুষ্ক, খসখসে, চুলকানি ও ক্ষত হতে পারে।

আশার কথা হচ্ছে সোডিয়াম লরাইল সালফেট যদি কেউ দীর্ঘদিন ব্যবহার করে তবেই উপরিউক্ত সমস্যাগুলোতে আক্রান্ত হতে পারেন। তাই কোনোকিছু ধোয়ার কাজে স্বল্প সময় ব্যবহার করলে সমস্যা হওয়ার কথা নয়। আবার সমস্যা এড়িয়ে ব্যবহার করতে চাইলে দীর্ঘ সময় যে সকল পণ্য যেমন সাবান ও শ্যাম্পুতে শতকরা শূন্য দশমিক ০৫ ভাগ থেকে ২ দশমিক ৫ ভাগের বেশি সোডিয়াম লরাইল সালফেট ব্যবহার করা যাবে না। তবে যদি কোনো পণ্য ব্যবহারে ত্বক লালচে হয় এবং চুলকায় তাহলে সাথে সাথে ব্যবহার বন্ধ করে দিয়ে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া উচিত।

আরও পড়ুন- কুকুরের লেহনে বিরল রোগে আক্রান্ত হয়ে রোগীর মৃত্যু!

সংবেদনশীল ত্বক, অতিরিক্ত চুলকানিযুক্ত ত্বক, একজিমা আছে এমন রোগী, সোরিয়াসের রোগীদের জন্য সোডিয়াম লরাইল সালফেটযুক্ত পণ্যসামগ্রী ব্যবহার না করাই ভালো। এই উপাদানযুক্ত পণ্যের পরিবর্তে তারা বিভিন্ন ধরনের বিকল্প উপাদানযুক্ত পণ্য ব্যবহার করতে পারবেন।

পরিশেষে আরেকটি কথা, সোডিয়াল লরাইল সালফেটের ক্যানসার সৃষ্টিকারী ক্ষমতা নেই। যদিও ২০১৪ সালে বিশ্বব্যাপী মিডিয়াতে এই উপাদানটিকে ক্যানসার সৃষ্টিকারী হিসেবে বলা হয়েছিল। পরবর্তীকালে ক্যানসারের সঙ্গে এই উপাদানের কোনো সম্পর্ক পাওয়া যায়নি। তাই এই উপাদানযুক্ত সাবান, শ্যাম্পু, টুথপেস্ট ইত্যাদি ব্যবহার করলে ক্যানসার হবে বর্তমানে এ কথা আর বলা যায় না।

সূত্র- সায়েন্স অ্যালার্ট, রিসার্চগেট  

ওডি/এনএম 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড