• বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩ কার্তিক ১৪২৮  |   ৩০ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

"সংকট যতদিন, ততদিন এই সেবা অব্যাহত থাকবে"

  মো. সাঈদ মাহাদী সেকেন্দার

২৭ এপ্রিল ২০২১, ১৮:১৩
সাদ বিন কাদের

বিনামূল্যে জয় বাংলা অক্সিজেন সেবার অন্যতম উদ্যোক্তা সাদ বিন কাদের চৌধুরী। তিনি ফেনী জেলার পরশুরাম থানায় জন্মগ্রহণ করেন। সাদ নটর ডেম কলেজ থেকে উচ্চমাধ্যমিক শেষ করে ভর্তি হন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে। তিনি ডাকসুর সাবেক স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক। বর্তমানে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করছেন। সম্প্রতি তিনি তার শৈশব, ছাত্ররাজনীতি,জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা নিয়ে দৈনিক অধিকারের মুখোমুখি হোন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন দৈনিক অধিকারের ফিচার সম্পাদক মো. সাঈদ মাহাদী সেকেন্দার

অধিকার: সংলাপের বাহুল্যতা বাদ দিয়ে মূল আলোচনা শুরু করি। আপনার শৈশব কেমন কেটেছে?

সাদ বিন কাদের: শৈশবের কথা মনে হতেই মনের অজান্তেই বিভিন্ন স্মৃতি ভেসে ওঠে। বুকের ভেতর হু হু করে ওঠে কেমন একটা গভীর অনুভব। সৌভাগ্যক্রমে আমার শৈশব কেটেছে গ্রামে। গ্রামে থাকার বদৌলতে অন্য সবার মতো আমারও ছোটবেলা কেটেছে খেলাধুলা, সাঁতার এবং গুল্প শুনার মধ্য দিয়েই। আসলে এত সংক্ষিপ্ত সময়ে শৈশবের সেইসব স্মৃতির বর্ণনা করা প্রায় অসম্ভব। দিন চলে যেয়ে রাত চলে আসবে কিন্তু স্মৃতির বর্ণনা শেষ হবে না।

অধিকার: রাজনীতি করার স্বপ্ন দেখেছিলেন কখন থেকে?

সাদ বিন কাদের: ছোটবেলা থেকে স্বপ্ন ছিল রাজনীতি করার। কারণ আমি যে পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছি এই পরিবারে সবারই রাজনীতির সাথে একটা সম্পৃক্ততা ছিল এবং আছে। তখন হয়তো কিভাবে সম্পৃক্ত হব সেটা বুঝিনি, তবে সম্পৃক্ত হব এটা বুঝেছি।

অধিকার: ছাত্রলীগে সম্পৃক্ত হওয়ার গল্প শুনতে চাই-

সাদ বিন কাদের: ছাত্রজীবন থেকেই আমি নিজেকে সেভাবে তৈরি করার চেষ্টা করেছি। পরিবার থেকে স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ এবং ত্যাগ তিতীক্ষার ইতিহাস শুনে বেড়ে ওঠা। আমার কাছে বরাবরই মনে হয়েছে রাজনীতি করার কোন বিষয় নয়, রাজনীতি ধারণ করার বিষয়। বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন ‘ছাত্রলীগের ইতিহাস, বাঙালির ইতিহাস।’ আমি সত্যিই আনন্দিত এবং গৌরবান্বিত যে আমি সে সংগঠনের একজন কর্মী।

অধিকার: আজকের আলোচনার গুরুত্বপূর্ণ অংশ- অক্সিজেন সেবা। করোনা দুর্যোগে জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা'র ধারণা কিভাবে এলো?

সাদ বিন কাদের: সরকার অর্থনীতির চাকা সচল রাখার জন্য লকডাউন পরিস্থিতি শিথিল করে৷ ধীরে ধীরে মানুষ তার কর্মক্ষেত্রে যোগদান করে। তখন মানুষের প্রয়োজন কি হতে পারে এই বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে উদ্যোগ গ্রহণের চিন্তা করি। বিভিন্ন নিউজ মিডিয়ার মাধ্যমে জানতে পারি অক্সিজেনের জন্য হাহাকার এবং বিভিন্ন হাসপাতালে রোগিদের থেকে অক্সিজেনের উচ্চমূল্য নেওয়া হচ্ছে। এ ছাড়া কিছু অসাধু ব্যবসায়ী অক্সিজেন সিলিন্ডার মজুদ করে বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করেছে। সেখান থেকে মানুষকে পরিত্রাণ দিতে হাতে নেওয়া বিনামূল্যে জয় বাংলা অক্সিজেন সেবা কার্যক্রম। কোভিড আক্রান্ত সব রোগীর হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার প্রয়োজন নেই। শ্বাস- প্রশ্বাসের সমস্যার জন্য অনেককে হাসপাতালে ভর্তি হতে হয়। সেক্ষেত্রে বাসায় অক্সিজেন সাপোর্ট পেলে রোগী সিরিয়াস জটিলতা না থাকলে বাসায় থেকে চিকিৎসা নিতে পারে। এক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শে আমরা সেবা দিয়ে থাকি। আমাদের অক্সিজেন সেবায় অনেক মানবিক ডাক্তার এই কাজের সাথে জড়িত। আমাদের এই সেবাটি সম্পূর্ণ বিনামূল্যে।

অধিকার: সেবার নাম জয় বাংলা কেন?

সাদ বিন কাদের: ১৯৭১ সালে জয় বাংলা স্লোগান সমগ্র জাতিকে এক করেছিল, উজ্জীবিত করেছিল। আমাদের মুক্তির স্লোগান ছিল জয় বাংলা। এই দুর্যোগে আমরা সবাই যাতে এক থাকতে পারি, একে অপরের পাশে থাকতে পারি সেই চিন্তা থেকেই জয় বাংলা দেওয়া।

অধিকার: এই উদ্যোগ শুরু করার পর কোন প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়েছেন?

সাদ বিন কাদের: আমরা যখন এই কার্যক্রম শুরু করি তখন পরিস্থিতি বর্তমানের মতো ছিল না। মানুষের মাঝে করোনার মারাত্মক ভীতি ছিল। কোন বাসায় অক্সিজেন নিয়ে গেলে আশেপাশের বাসা থেকে অনেক প্রশ্নের সম্মুখীন হতে হত আমাদের। তবে চলার পথে মানুষের যে ভালবাসা পেয়েছি তা অনুপ্রেরণা হিসেবে কাজ করেছে ফলে কোনকিছুই আমাদের চলার পথে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেনি।

অধিকার: বিনামূল্যে জয় বাংলা অক্সিজেন সেবার অর্থ জোগাড় হয় কিভাবে?

সাদ বিন কাদের: ব্যক্তিগত ও পারিবারিক উদ্যোগের পাশাপাশি সমাজের সব শ্রেণী পেশার মানুষের সহযোগিতায় এই কার্যক্রম পরিচালিত হয়। আমরা প্রতিমাসে একবার করে আর্থিক বিবরণীর হিসাব সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দেওয়ার চেষ্টা করি। আমরা বিশ্বাস করি কাজের স্বচ্ছতা কাজকে গতিশীল করে।

অধিকার: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে আপনাদের সেবা কার্যক্রমের পরিধি সম্পর্কে যদি বলতেন-

সাদ বিন কাদের: আমরা দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলার জন্য নতুন করে আরো বেশকিছু সিলিন্ডার ক্রয় করেছি। নতুনভাবে স্বেচ্ছাসেবকও যুক্ত করেছি। রাজধানী ঢাকা সহ দেশের বিভিন্ন জেলায় এ কার্যক্রম ছড়িয়ে পড়েছে। সর্বোপরি আমাদের মত জনবহুল দেশে জনগণের সচেতনতার উপর অনেক কিছু নির্ভর করবে। একমাত্র সচেতনাতাই পারে এই অদৃশ্য ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে।

অধিকার: আপনার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা কি?

সাদ বিন কাদের: সংকট যতদিন ততদিন এই সেবা অব্যাহত থাকবে, ইনশাল্লাহ আমরা আমাদের সেবামূলক কাজ করে যাব। এই দুর্যোগে আমরা সাধ্যানুযায়ী মানুষের পাশে থাকবো। আসলে এতো সুন্দরভাবে মানুষের পাশে থাকার সুযোগ সবসময় আসে না। মানুষের কল্যাণের ব্রত নিয়ে রাজনীতি করে যেতে চাই।

অধিকার: আপনার এই মহৎ উদ্যোগের অধিকারের পক্ষ থেকে সাধুবাদ এবং আপনার সর্বাঙ্গীন সফলতা কামনা করি।

সাদ বিন কাদের: অধিকার এবং আপনাকেও ধন্যবাদ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড