• রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯, ১০ চৈত্র ১৪২৫  |   ২২ °সে
  • বেটা ভার্সন

বিশ্বের যতসব দামি খাবার

  ইমন খান শাকিল ১০ জানুয়ারি ২০১৯, ১১:০৩

খাবার
বিশ্বে দামি যত খাবার (ছবিসূত্র: পিনটারেস্ট ডট কম)

যদি কিছু মনে না করেন আপনাকে খুব সহজ এবং সাধারণ একটা প্রশ্ন করি। গতকালকে সকালের নাস্তায় কিংবা রাতের ডিনারে কি খেয়েছেন? সবার উত্তর এক হবে না এটাই স্বাভাবিক। আবার পৃথিবীর নিষ্ঠুর কিছু বাস্তবতার একটি হলো আজকে কাজে না গেলে কালকে খাওয়া জুটবে না। সেই সূত্র ধরে খোঁজ করলে এমন অনেক মানুষ হয়ত আমাদের আশেপাশে খুঁজে পাওয়া যাবে যারা গত রাতটা না খেয়েই পার করেছে। কিংবা আজকে সকালেও খায়নি। এটাও খুব স্বাভাবিক যে বিশ্বে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ অনাহারে থাকে। কিন্তু এর ঠিক উল্টো পিঠেই এই বিশ্বে খাবার নিয়ে যে বিলাসিতা চলে সেটা মোটেও স্বাভাবিক নয়।

চলুন তবে জেনে নেওয়া যাক বিশ্বের দামি সব খাবারের নাম ও সংক্ষিপ্ত পরিচিতি। যার বেশিরভাগই হয়ত আমার কিংবা আপনার খাওয়ার সৌভাগ্য হবে না। কিন্তু তাতে কী? খাওয়া না হোক জানতে তো ক্ষতি নেই। 

অ্যাকোয়া ডি ক্রিস্টালো 

বাজার থেকে শেষ কবে পানির বোতল কিনেছিলেন? কিংবা ৭৫০ মি.লি. এর একটি পানির বোতল এর জন্য আপনি সর্বোচ্চ কত টাকা খরচ করতে চাইবেন? খুব বোকার মত প্রশ্ন করে ফেললাম? আপনি এর থেকেও বেশি বোকা হয়ে যাবেন যখন দোকানে গিয়ে দেখবেন একটি ৭৫০ মি.লি. এর পানির বোতলের দাম ৬৫০০ মার্কিন ডলার (৫,৪৬,০০০ টাকা)!

food

অ্যাকোয়া ডি ক্রিস্টালো 

 

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সংগ্রহ করা মিনারেল ওয়াটার ২৪ ক্যারটের একটি আকর্ষণীয় আর অভিজাত্য পানি পাত্রে ভরে বিক্রি করা হয়। 

দ্য ফ্রোজেন হাউট চকলেট আইসক্রিম 

একবার ভাবুন তো আপনি আইক্রিম মুখে দিলেন আর সেই সাথে মুখে দিলেন স্বর্ণ। হ্যাঁ এটি বিশ্বের সব থেকে দামি চকলেট আইসক্রিম এবং এটিতে খাওয়ার যোগ্য স্বর্ণ থাকে। 

food

দ্য ফ্রোজেন হাউট চকলেট আইসক্রিম 

 

শুধু তাইই নয়, আইসক্রিম খাওয়ার শেষে এর তলানিতে গিয়ে আপনি পাবেন ১৮ ক্যারেট স্বর্ণের একটি ব্রেসলেট এবং এটি খাওয়ার জন্য দেওয়া হবে বিরল কৃষ্ণ শ্বেত ও চকোলেট রঙের হীরক খচিত স্বর্ণের তৈরী একটি চামচ। এই দুটো জিনিসই আপনাকে উপহার হিসেবে দেওয়া হবে। 

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক শহরে এই আইসক্রিম খাওয়ার জন্য আপনাকে ব্যয় করতে হবে ২৫ হাজার মার্কিন ডলার (২১,০০,০০০ টাকা)। 

ডেনসুকি তরমুজ

এটি জাপানের হাক্কাইডু দ্বীপে উৎপাদিত এক ধরনের দূর্লভ প্রজাতির তরমুজ। যা প্রচলিত সবুজ বর্ণের তরমুজের মত নয়। বরং এর রং কালচে হয়ে থাকে। এর ওজন প্রায় ১০ কেজির মত হয়ে থাকে। তাই স্বাভাবিক তরমুজের থেকে এটি আকারে বেশ বড়। 

food

ডেনসুকি তরমুজ

 

এটি শুধুমাত্র জাপানেই পাওয়া যায় এবং এর উৎপাদন হয় খুব সীমিত আকারে। তাই অনেকটা সেই কারনেই এর দাম আকাশচুম্বী। একটি ডেনসুকি তরমুজের জন্য আপনাকে গুণতে হবে ৬ হাজার মার্কিন ডলার কিংবা প্রায় ৫ লাখ টাকা। 

ফ্লার বার্গার 

পৃথিবী সম্পর্কে মোটামুটি ধারনা রাখে আর কেউ যুক্তরাষ্ট্রের লাস ভেগাস শহরের কথা শোনেনি এমনটা খুঁজে পাওয়া দুর্লভ। সেই শহরেরই একজন শেফ হিউ বার্ড কেলারের তৈরী গরুর মাংসের এই বার্গারে আপনি গরুর মাংস ছাড়াও আরো পাবেন এক ধরনের সুস্বাদু ছত্রাক আর হাসের কলিজা। 

food

ফ্লার বার্গার 

 

শুধু তাই নয়, বার্গারের সাথে পরিবেশন করা হয় এক বোতল দামি ওয়াইন। লাস ভেগাসে বসে এমন একটি ফ্লার বার্গার আর ওয়াইন খেতে আপনার অ্যাকাউন্ট থেকে খরচ করতে হবে ৫ হাজার মার্কিন ডলার যা কিনা ৪ লক্ষ ২০ হাজার টাকার সমান। 

দ্য গোল্ডেন ক্যানোলি 

এটি এক ধরনের পেস্ট্রি। যার উৎপত্তি ইতালিতে। কিন্তু বর্তমানে এটি পাওয়া যায় যুক্তরাষ্ট্রের বেশ কয়েকটি অঙ্গরাজ্যে। 

food

দ্য গোল্ডেন ক্যানোলি

 

এর প্রধান ও মূল আর্কষণ হলো, এটি সম্পূর্ণ একটি স্বর্ণের তৈরী খাবার যোগ্য পাতা দিয়ে এই পেস্ট্রি সম্পূর্ণটা মুড়ে দেওয়া হয়। এর এক একটি পেস্ট্রি বিক্রি হয় ২৬ হাজার মার্কিন ডলার অথবা ২১,৮৪,০০০ টাকায়।

টলিবার্ডিনের হুইস্কি 

১৯৪৯ সালে স্কটল্যান্ডে প্রতিষ্ঠিত টলিবার্ডিন ডিস্টিলারি বা হুইস্কি তৈরীর কারখানা। ১৯৫২ সালের দিকে তৈরী করা কিছু হুইস্কির বোতল এতদিন সংরক্ষণ করার পর বেশ কিছুদিন আগে লিমিটেড এডিশনে মাত্র ৭০-৮০ বোতল বাজারে ছেড়েছে প্রতিষ্ঠানটি। 

food

টলিবার্ডিনের হুইস্কি 

 

আকর্ষণীয় এবং বিশেষভাবে নির্মিত বোতলে ভরে বিক্রি করা হচ্ছে এই হুইস্কি। যা কেনার জন্য আপনাকে গুণতে হবে প্রায় ৩০ হাজার মার্কিন ডলারের মতো যা বাংলাদেশী টাকায় প্রায় ২৫,২০,০০০ টাকা! 

পাখির বাসার স্যুপ 

সুইপ্ট গোত্রের কিছু পাখি মুখ থেকে নিশ্রিত এক ধরনের লালা দিয়ে বাসা তৈরী করে। পরবর্তীতে সেই বাসা বিভিন্নভাবে প্রক্রিয়াজাত করণের মাধ্যমে তৈরী করা হয় পাখির বাসার স্যুপ। যা কিনা চীনের জনপ্রিয় এবং দামী একটি খাবার হিসেবে পরিচিত।

food

পাখির বাসার স্যুপ 

 

এই এক বাটি স্যুপের দাম পড়বে ১০ হাজার মার্কিন ডলার কিংবা ৮ লক্ষ ৪০ হাজার টাকা। 

ওয়াগিও রেবাই স্টেক 

এই স্টেক তৈরী করা হয় মূলত জাপানি ওয়াগিও নামে এক ধরনের বিশেষ জাতের গরুর মাংস থেকে। যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে পাওয়া যায় এই বিশেষ ধরনের স্টেক। এই ওয়াগিও জাতের গরুদের প্রতিদিন খাবারের পাশাপাশি বিয়ার খাওয়ানো হয়। 

food

ওয়াগিও রেবাই স্টেক 

 

একটি ৪০ পাউন্ডের একটি স্টেকের টুকরোর দাম পড়বে ২ হাজার ৮ শত মার্কিন ডলার অথবা প্রায় ২ লক্ষ ৩৫ টাকা। 

টু থার্টি ফিফথ হট ডগ 

আপনি যদি বিশ্বের সবচেয়ে দামি হট ডগ খেতে চান তবে আপনাকে যেতে হবে নিউইয়র্কের রুফ টপ বার টু থার্টি ফিফথে। দামী মাশরুম, সাদা ট্যাফোল আর ইরানের দামি জাফরান ছাড়াও এটি তৈরীর প্রধান উপকরণ হলো জাপানি ওয়াগিও জাতের গরুর মাংস। যা এর স্বাদকে নিয়ে যাবে অমৃতের কাছাকাছি। 

food

টু থার্টি ফিফথ হট ডগ 

 

এর এক একটি হট ডগ বিক্রি করা হয় ২ হাজার ৩ শত মার্কিন ডলারে যা প্রায় ১ লক্ষ ৯৩ টাকার সমপরিমাণ।

দ্য গোল্ডেন ফিনিক্স কাপ কেক

দুবাইয়ের একটি বেকারি এই কাপ কেকটি তৈরি করে।বিশ্বের সবচেয়ে দামী এই কাপকেইক দুবাইয়ের ‘নিউ ব্লুমসবেরিজ ক্যাফে’তে খাবারের তালিকায় খুঁজে পাওয়া যাবে। ইতালীয়  চকোলেট, ২৩ ক্যারেট খাবার যোগ্য সোনার পাত, জৈব ষ্ট্রবেরি এবং প্রচুর খাবার যোগ্য স্বর্ণ রেণুর দ্বারা এই ডিশ তৈরী করা হয়।