• বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৫  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

নুরজাহান : ইতিহাসের অলিখিত এক সম্রাজ্ঞী!

  সাদিয়া ইসলাম বৃষ্টি ০৬ ডিসেম্বর ২০১৮, ০৮:৪৮

নুরজাহান
নুরজাহান (ছবি : সংগৃহীত)

সম্রাটদের সবাই চেনেন। তবে, সম্রাটদের পেছনে রাজ্যপরিচালনায় যুগে যুগে এমন অনেক সম্রাজ্ঞী কাজ করেছেন, যাদের নাম মানুষ জানে না। আর যদি জেনেও থাকে, সেটাও শুধু একজন রানি বা সম্রাটের প্রেমিকা হিসেবে। কিন্তু শুধু নামে সম্রাজ্ঞী ছিলেন না ইতিহাসের সমস্ত সম্রাটের রানিরা। আর তেমনই এক সম্রাজ্ঞীর কথাই আজ বলব আপনাদের। বলছিলাম নুরজাহানের কথা। 

নুরজাহান নিয়ে গান আছে, বই আছে। মানুষ নুরজাহান নামের একজন নারীর কথা জানে। নিশ্চয় আপনিও শুনেছেন এই নাম। কিন্তু কে ছিলেন নুরজাহান? একজন কাঠপুতুলের মতো সম্রাজ্ঞী? একদম নয়! নুরজাহান ছিলেন সম্রাট জাহাঙ্গীরের জীবনের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি মানুষ। সম্রাট অন্য কাউকে দেখে এতো বেশি খুশি হননি, যতটা নুরজাহানকে দেখে হয়েছিলেন। তাদের মধ্যে বন্ধুত্ব হতে সময় লেগেছিল যদিও। 

নুরজাহান শব্দের অর্থ জগতের আলো। এই নারী জন্ম নেন ১৫৭৭ সালে। মেহেরের বাবা ছিলেন গিয়াস বেগ। তার বাবা গিয়াস বেগ ও মা যখন তেহেরান থেকে ভাগ্যের সন্ধানে হিন্দুস্তান আসছিলেন তখন পথের মধ্যেই নির্জন মরু প্রান্তে এক বাবলা গাছের তলায় জন্ম হয় মেহেরুন্নিসার। 

গল্প শোনা যায় যে, এই সময় গিয়াস বেগ ও তার পত্নী এমন দুর্দশায় পড়েছিলেন যে মেয়েকে বাঁচাবার কোনো উপায় না পেয়ে তারা পথের মাঝেই মেয়েকে শুইয়ে রেখে রওনা হন। আশা ছিল কোনো সহৃদয় ব্যক্তি যদি তাকে পায় নিয়ে আশ্রয় দেবে। কিন্তু কিছুদূর যাবার পরই শিশু কন্যার কান্না শুনে তারা আর থাকতে পারলেন না। ফিরে এসে মেয়েকে বুকে চেপে নিঃসহায়, নিঃসম্বল গিয়াস বেগ এসে পৌঁছালেন লাহোরে। এবার তার ভাগ্য পরিবর্তন হল। আকবর বাদশার সুনজরে পড়েন তিনি, আর ছোট মেয়ে মেহেরের স্থান হলো মুঘল হেরেমে।

nurjahan1

 

জাহাঙ্গীর তখনও সম্রাট হননি। তিনি খুব পছন্দ করে ফেলেন মেহেরুন্নিসাকে। কিন্তু মেহেরুন্নিসার বিয়ে হয়ে যায় শের আফগানের সাথে। জাহাঙ্গীর প্রচণ্ড চেষ্টা করেন শের আফগানকে মেরে ফেলার। কয়েকবার চেষ্টা করেও অবশ্য সফল হননি তিনি। শের আফগান ছিলেন অসম্ভব শক্তিশালী। ফলে শের আফগানের কাছের মানুষদের সাহায্য নেন জাহাঙ্গীর এ সময়। আর এভাবে তিনি সফলও হন।

পরবর্তী সময়ে শের মারা গেলে জাহাঙ্গীরের সাথে বিয়ে হয় নুরজাহানের। মেহেরের নাম এ সময় বদলে ফেলেন সম্রাট। নুরজাহান ঘরে বসে থাকার পাত্রী ছিলেন না। জানা যায়, অন্যান্য সম্রাজ্ঞীদের চাইতে অনেক বেশি শক্তিশালী ছিলেন তিনি। প্রায়ই সম্রাটের সাথে বাঘ শিকারে যেতেন নুরজাহান। শক্তিশালী বাঘ শিকারি হিসেবে তার খ্যতি ছিল। কথিত আছে তিনি ৬টি গুলি দিয়ে ৪টি বাঘ শিকার করেছিলেন। তার বীরত্বের কবিতাও লিখেছেন অনেক কবি। একসময় সম্রাটের বন্ধু হয়ে গিয়েছিলেন এই নারী।

nurjahan2

 

ইংরেজ দূত টমাস রো সে সময় খুব কাছ থেকে দেখেন নুরজাহান ও সম্রাট জাহাঙ্গীরকে। তিনি লিখে গেছেন যে, সে সময় নুরজাহানই আসলে দেশ শাসন করতেন। জাহাঙ্গীর ছিলেন নামকে ওয়াস্তে সম্রাট। সেই সময়কার মুদ্রাতে জাহাঙ্গীর এর সঙ্গে নুরজাহানের ছবিও ছাপা হতো। 

নুরজাহান নিজে ছিলেন কবি। তার কবরের গাঁয়ে তার রচিত দুটি লাইন দেখতে পাওয়া যায়। ফরাসিতে লেখা। কবি সত্ত্যন্দ্রনাথ দত্ত বাংলায় অনুবাদ করেন লাইনগুলো : 

“গরিব গোরে দ্বীপ জেলো না,
ফুল দিও না কেউ ভুলে,
শ্যামা পোকার না পোড়ে পাখ,
দাগা না পায় বুলবুলে।"

nurjahan3

 

নুরজাহান শেষ জীবনে খুব একটা ভালো ছিলেন না। সিংহাসন দখল আর এই সংক্রান্ত চক্রান্তই ছিল এর পেছনের মূল কারণ। নুরজাহান নিজের প্রথম পক্ষের মেয়ের স্বামীকে সিংহাসনে দেখতে চেয়েছিলেন। জাহাঙ্গীরের সন্তান শাহজাহান এতে করে ক্ষেপে যান। তিনি জাহাঙ্গীরকে বন্দি করেন। সেখান থেকে সম্রাটকে বের করে আনেন নুরজাহান। পালিয়ে যান দূরে। ১৬৪৫ সালে ৭২ বছর বয়সে মারা যান এই নারী। 

সূত্র : ডন, হিস্টোরিফররয়ালউইম্যান
 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০০০-২০১৮

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড