• বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

যাবজ্জীবন মানেই আমৃত্যু কারাদণ্ড নয়

  মো. শাহ্ নেওয়াজ

১৫ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫:২৫
কারাদণ্ড
ছবি: সংগৃহীত

আমাদের দেশের বেশির ভাগ মানুষের দেশে প্রচলিত দণ্ডবিধির উপর নুন্যতম জ্ঞান না থাকার কারণে যাবজ্জীবন এবং আমৃত্যু কারাদণ্ড সম্পর্কে ভালো করে জানে না। ফলে প্রায় সময় যাবজ্জীবন কারাদণ্ড এবং আমৃত্যু কারাদণ্ড টার্ম দু'টাকে একই দৃষ্টিতে দেখে, যদি এদের মধ্যে রয়েছে কিছুটা পার্থক্য। স্বাভাবিকভাবে আমরা যাবজ্জীবন মানে মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত কারাদণ্ডকে বুঝি আর যাবজ্জীবন আর অন্য দিকে আমৃত্যু মানেও হলো মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত কারাদণ্ড।

আমরা স্বাভাবিকভাবে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে মৃত্যু না হওয়া পর্যন্ত কারাদণ্ড বুঝলেও কিন্তু প্রকৃত পক্ষে বাংলাদেশ দণ্ডবিধি অনুযায়ী সেটা নয়। বাংলাদেশ দণ্ডবিধির ৫৭ ধারায় স্পষ্ট উল্লেখ আছে যে,"সাজার মেয়াদের ভগ্নাংশ হিসাবের ক্ষেত্রে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ত্রিশ বছর মেয়াদের কারাদণ্ডের সমান বলে গণনা করা হবে।" অর্থাৎ যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে ৩০ বছর কারাদণ্ড। আবার জেল কোড অনুযায়ী কারাগারে ৯ (নয়) মাসে এক বছর ধরা হয়। এ ছাড়া আইজি প্রিজনেরও সাজা কমানোর ক্ষমতা রয়েছে। এই হিসেবে সব মিলে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ২০ থেকে ২২ বছর হতে পারে। তাছাড়া ২০১৩ সালের আপিল বিভাগের একটি রায়ও রয়েছে, যেখানে যাবজ্জীবন সাড়ে ২২ বছর বলা হয়েছে। আবার, ফৌজদারি কার্যবিধির ধারা ৩৫(ক) অনুযায়ী মোট সাজার মেয়াদকাল থেকে বিচারিক সময়ের হাজতবাসের সময় বাদ দিয়ে এই হিসাব করতে হবে। তাছাড়া,কারাগারে ভালো আচরণের জন্য জেল কোড অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ের আগেও অনেক কয়েদি মুক্তি পেতে পারেন। ফলে হিসেব মিলালে দেখা যায় যে, যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে কোনোভাবেই আমৃত্যু কারাদণ্ড নয়। এক্ষেত্রে আদালত যদি আলাদা কারো বিচারের রায়ে যাবজ্জীবন মানে আমৃত্যু কারাদণ্ড উল্লেখ করেন সেটা ভিন্ন কথা।

তবে, কোনো আসামির বিচার শেষে মৃত্যুদন্ডাদেশের রায় পাওয়া আসামি যদি আপিল বিভাগে আপিল করে, সেক্ষেত্রে আপিল বিভাগ যদি আগের রায় পরিবর্তন করে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের রায় শুনান, সেক্ষেত্রে যাবজ্জীবন মানে হবে আমৃত্যু কারাদণ্ড এবং সেটা উল্লেখ করা থাকে।

প্রসঙ্গত, পূর্বে দণ্ডবিধির ৫৭ ধারা অনুসারে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড মানে ২০ বছর কারাদণ্ড ছিল। ১৯৮৫ সালে আইন পরিবর্তন করে এই যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের মেয়াদ করা হয় ৩০ বছর। তাই আবার আইন পরিবর্তন করে স্পষ্ট করে বলে না দিলে যাবজ্জীবন কারাদণ্ডকে আমৃত্যু কারাদণ্ড বলে মনে করা হলে এখনো জনমনে বিভ্রান্তি থেকে যেতে পারে। আবার আইনে যাবজ্জীবন অর্থ ৩০ বছর যেমন উল্লেখ রয়েছে তেমনি আমৃত্যু কারাদণ্ডের কথাও উল্লেখ রয়েছে।

১৯৯৬ সালে সরকারের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি সার্কুলারে কারাদণ্ডের মেয়াদ সর্বোচ্চ ৩০ বছর পর্যন্ত ধার্য করা হয়েছিল। তখন থেকে এটিই প্রচলিত রয়েছে। এর ব্যত্যয় ঘটিয়ে যাবজ্জীবন অর্থ আমৃত্যু কারাভোগের বিধান করতে হলে আইনের সংশোধন করে তা পরিষ্কার করতে হবে।

আপনার চোখে পড়া অথবা জানা অন্যরকম অথবা ভিন্ন স্বাদের খবরগুলোও আমাদের কাছে গুরুত্বপূর্ণ। তাই সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড