• শুক্রবার, ১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আলোর মুখ দেখেনি ‘শেখ হাসিনা ভাষা ও আইসিটি ইনস্টিটিউট’

  শিক্ষা ডেস্ক

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১২:১২
শিক্ষা
শিক্ষা মন্ত্রণালয় (ছবি : দৈনিক অধিকার)

গেল চার বছরেও শুরু হয়নি প্রস্তাবিত ‘শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অব ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড আইসিটি’ নামের জাতীয় ভাষা ইনস্টিটিউট স্থাপনের কাজ।

সূত্র জানায়, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা বাস্তবায়ন ও মাউশির শেষ হওয়া এফএলটিসি-২ প্রকল্পের আওতায় স্থাপিত প্রশিক্ষণ কেন্দ্রগুলোর যন্ত্রপাতি ও স্থাপনার সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ২০১৫ সালের জেলা প্রশাসক সম্মেলনে জরুরিভাবে নতুন প্রকল্প প্রস্তাবনা তৈরি করা হয়। প্রস্তাবিত নতুন প্রকল্পটির ঠিক করা হলো ‘ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড আইসিটি স্কিল ডেভেলপমেন্ট প্রজেক্ট (এলআইএসডিপি) বা ‘ভাষা ও আইটিসি দক্ষতা উন্নয়ন প্রকল্প’। এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য দক্ষ জনশক্তি গড়ে তুলে বিদেশে কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য অর্জনের আন্তর্জাতিক শ্রম বাজার চাহিদার সঙ্গে সঙ্গতি রেখে দ্রুত এই কার্যক্রম চালুর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়। আর প্রস্তাবিত এই প্রকল্প মেয়াদে ফরেন ল্যাঙ্গুয়েজ কোর্স টেকসই কার লক্ষ্যে ‘শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অব ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড আইসিটি’ নামের জাতীয় ভাষা ইনস্টিটিউট স্থাপন করার উদ্যোগ নেয় সরকার।

কিন্তু বিগত ৪ বছরেও আলোর মুখ দেখেনি প্রস্তাবিত ‘শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অব ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড আইসিটি’ নামের জাতীয় ভাষা ইনস্টিটিউট স্থাপনের কাজ।

এ প্রসঙ্গে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. সোহরাব হোসাইন গণমাধ্যমকে জানান, ডিপিপি জমা হলে পড়ে থাকার কথা নয়, কোনো লাইনে হয়তো পড়ে আছে।’ বিষয়টি সম্পর্ককে খোঁজ নেবেন বলে জানান মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব।

জানা যায়, ২০১৫ সালের জেলা প্রশাসক সম্মেলনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নের লক্ষ্যে ২০১৬ সালে শিক্ষা মন্ত্রণালয় পরিকল্পনা কমিশনে এফএলটিসি-২ প্রকল্পটি সংশোধনের প্রস্তাব পাঠায়। পরিকল্পনা কমিশন জেলা প্রশাসক সম্মেলনের সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করার উদ্দেশ্যে নতুন প্রকল্প নেওয়ার সুপারিশ করে। এর প্রেক্ষিতে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এফএলটিসি-২ প্রকল্পের ধারাবাহিকতায় ‘ভাষা ও আইসিটি দক্ষতা উন্নয়ন’ শীর্ষক একটি নতুন প্রকল্প প্রস্তাবনা তৈরি করে। ২০১৬-২০১৭ এবং ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে সরকারের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে বরাদ্দবিহীন প্রকল্প হিসেবে প্রকল্পটি অন্তর্ভুক্ত ছিল। তবে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগের অভাবে ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের এডিপি থেকে প্রকল্পটি বাদ দেওয়া হয়েছে জানা গেছে। এছাড়া নানা জটিলতার কারণে প্রস্তাবিত ‘শেখ হাসিনা ইনস্টিটিউট অব ল্যাঙ্গুয়েজ অ্যান্ড আইসিটি’ স্থাপনের কাজ শুরু করার সুযোগই সৃষ্টি হয়নি বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

ওডি/আরএআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড