• সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩৪ °সে
  • বেটা ভার্সন

আন্তর্জাতিক হ্যান্ডবল সিরিজে ভিকারুননিসার জয়

  শিক্ষা ডেস্ক

০৯ আগস্ট ২০১৯, ১৯:৫৮
হ্যান্ডবল দল
ভিকারুননিসা নূন স্কুল হ্যান্ডবল দল (ছবি : সংগৃহীত)

মালদ্বীপে তিন ম্যাচের হ্যান্ডবল সিরিজ খেলে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভিকারুননিসা নুন স্কুল অ্যান্ড কলেজের হ্যান্ডবল দল। মালদ্বীপের গুরাইধো, হুলুমালে এবং মালে সিটিতে এই খেলা অনুষ্ঠিত হয়। সিরিজের নাম ছিল মালদ্বীপ বনাম বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৬ গার্লস ইনভাইটেশনাল ফ্রেন্ডলি হ্যান্ডবল সিরিজ।

সিরিজে বাংলাদেশের মেয়েরা তিন ম্যাচের সবকটিতেই বিজয়ী হয়। তিন ম্যাচে ভিকারুননিসার মেয়েরা যথাক্রমে গুরাইধো স্কুলকে ২৫-৮, ঘাজী স্কুলকে ২৭-৯ এবং মালে দলকে ১৪-১০ গোলে পরাজিত করে। মালদ্বীপ জাতীয় হ্যান্ডবল দলের কোচ আমজাদ হোসেন বাংলাদেশি। মূলত তার মাধ্যমেই বাংলাদেশের এই স্কুলটি মালদ্বীপ সফরে যাবার সুযোগ পায়।

বাংলাদেশ দলের কোচ ছিলেন নাসির উল্লাহ লাভলু। ম্যানেজার ছিলেন লিপি বেগম (স্কুলের শিক্ষকও তিনি)। দলের খেলোয়াড়রা ছিল- ফাতেমা, লামিয়া, সাদিয়া, সামিয়া, নুহা, মেহজাবিন, মিষ্টি, রামিসা, মুমু, সুলতানা, তাবাসসুম, জারা, আল্পনা, নিশাত এবং বৃষ্টি। দলের মধ্যে একমাত্র ফাতেমাই হচ্ছে কলেজ পড়ুয়া। বাকিরা সবাই স্কুলে পড়ুয়া। এছাড়া ফাতেমা ও লামিয়া দুই বোন।

লিপি বেগম জানান, ‘মালদ্বীপে আসলে আমাদের চারটি ম্যাচ খেলার কথা ছিল। কিন্তু বিরূপ আবহাওয়ার কারণে মাফুশিতে একটি ম্যাচ বাতিল হয়ে যায়।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘বিদেশের মাটি থেকে এটা আমাদের স্কুলের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক হ্যান্ডবল সাফল্য। এর আগে ২০১৩ সালে নেপালে গিয়ে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে প্রতিটি ম্যাচ জিতে আমাদের অনূর্ধ্ব-১৩ দল অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল।’

২০১২ সাল থেকে ভিকারুননিসা নুন স্কুল বিভিন্ন দেশ সফর করে এরকম আন্তর্জাতিক ফ্রেন্ডলি সিরিজ খেলে আসছে। ২০১২ সালে সুইডেনে (২ ম্যাচে জয়), ২০১৪ সালে ভারতে (রানার্স আপ), ২০১৬ সালে জার্মানিতে (২), ২০১৮ সালে জার্মানিতে (২) সফর করে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী এই স্কুল হ্যান্ডবল দল।

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড