• সোমবার, ২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

যেভাবে হবে নতুন গ্রেডবিন্যাস

  শিক্ষা ডেস্ক

১৮ জুন ২০১৯, ২১:২৯
প্রতীকী
ছবি : প্রতীকী

পাবলিক পরীক্ষায় বিশ্বের সঙ্গে নম্বরের শ্রেণিব্যাপ্তি সমস্যা নিরসনে জেএসসি, এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ফল পদ্ধতি পরিবর্তনের প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ আন্তঃশিক্ষা বোর্ড।

এই পদ্ধতিতে প্রতি পাঁচ নম্বর ব্যবধানে জিপিএ পরিবর্তন হবে। এছাড়া বর্তমান পদ্ধতিতে সর্বোচ্চ নম্বরের জিপিএ-৫ কমিয়ে তা জিপিএ-৪ গ্রেড করার প্রস্তাবও দেওয়া হয়েছে।

নতুন এই পদ্ধতিতে জিপিএ-৫ এর পরিবর্তে সর্বোচ্চ জিপিএ-৪ এবং বর্তমানে প্রচলিত ৮০ থেকে ১০০ নম্বরে জিপিএ-৫ দেওয়ার পদ্ধতি বহাল থাকছে না।

প্রস্তাবকৃত নতুন গ্রেড হিসেবে, পরীক্ষার সর্বোচ্চ নম্বর ১০০। তবে জিপিএ-৫ পরিবর্তন করে জিপিএ-৪ করা হয়েছে। তার মধ্যে ১০০ থেকে ৯৫ নম্বর পেলে নতুন গ্রেড হিসেবে ‘এক্সিলেন্ট গ্রেড’ যুক্ত করা হয়েছে। পরবর্তীতে প্রতি পাঁচ নম্বরের ব্যবধানে ‘এ প্লাস’, ‘এ’, ‘এ মাইনাস’, ‘বি প্লাস’, ‘বি’, ‘বি মাইনাস’, ‘সি প্লাস’, ‘সি’, ‘সি মাইনাস’, ‘ডি প্লাস’, ‘ডি’, ‘ডি মাইনাস’, ‘ই প্লাস’, ‘ই’, এবং ‘ই মাইনাস’ গ্রেড প্রদান করা হবে। 

অকৃতকার্য বা ফেল হিসেবে আগের মতই ‘এফ’ গ্রেড থাকছে। সর্বনিম্ন পাস নম্বর ৩৩ নির্ধারণ করা হয়েছে। এসব গ্রেডের সঙ্গে সমন্বয়ের মাধ্যমে জিপিএ-৪ থেকে পরবর্তী গ্রেড নির্ধারণ করা হবে।

অপর এক প্রস্তাবে বর্তমান পদ্ধতিতেই সর্বোচ্চ ১০০ থেকে ৯৫ পর্যন্ত পেলে জিপিএ-৪ বা ‘এ প্লাস’ গ্রেড হবে। এখানেও পর্যায়ক্রমে ৫ নম্বর ব্যবধানে গ্রেডের পরিবর্তন হবে। তবে সর্বোচ্চ গ্রেড থাকবে জিপিএ-৪।

বিষয়টি নিশ্চিত করে আন্তঃশিক্ষা বোর্ডের সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক মু. জিয়াউল হক বলেন, ‘আমাদের পাস নম্বরের সঙ্গে বিশ্বের অনেক দেশের নম্বরের শ্রেণি ব্যাপ্তি সমস্যা রয়েছে। এ কারণে আমাদের শিক্ষার্থীরা যখন বিদেশে যান তখন তাদের সনদের সমতা নির্ণয়ে বিড়ম্বনায় পড়তে হয়। এ কারণে তাদের সার্টিফিকেট সমতা করে বিদেশ যেতে হয়।’

তিনি আরও বলেন, ‘এর পাশাপাশি বর্তমান গ্রেড পদ্ধতিতে কিছু জটিলতা রয়েছে। ১০০ পেলেও একজন শিক্ষার্থী জিপিএ-৫ পাচ্ছে, আবার ৮০ পেলেও একই গ্রেড দেওয়া হচ্ছে। এ পদ্ধতির মাধ্যমে একজন শিক্ষার্থীর অবস্থা নির্ণয় করা সম্ভব হচ্ছে না। এসব বিষয় আমলে নিয়ে জেএসসি, এসএসসি ও এইচএসসি তিন পাবলিক পরীক্ষার ফলে গ্রেড পদ্ধতি পরিবর্তনের প্রস্তাব করা হয়েছে।’

চেয়ারম্যান আরও বলেন, ‘গত ১২ জুন শিক্ষামন্ত্রীর সঙ্গে আন্তঃশিক্ষা বোর্ড চেয়ারম্যারদের মতবিনিময় সভায় গ্রেড পরিবর্তনের প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়। আলোচনায় মন্ত্রী নতুন গ্রেড পদ্ধতির খসড়া তৈরি করার নির্দেশ দেন। ইতোমধ্যে আমরা খসড়া তৈরি করেছি। শিক্ষামন্ত্রীর অনুমোদনের পর অংশীজন ও বিভিন্ন স্তরের মানুষের পরামর্শক্রমে এটি বাস্তবায়ন করা হবে।’

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড