• শনিবার, ০৮ আগস্ট ২০২০, ২৪ শ্রাবণ ১৪২৭  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রাথমিকের সিলেবাস সংক্ষিপ্ত হচ্ছে

  শিক্ষা ডেস্ক

২৪ জুলাই ২০২০, ২১:৪২
ছবি : সংগৃহীত

করোনা সংক্রমণের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীদের সিলেবাস সংক্ষিপ্ত তথা ছোট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের জন্য অধিক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোকে আলাদা করে সিলেবাস সংক্ষিপ্ত করার পরিকল্পনা করছে মন্ত্রণালয়। ইতোমধ্যে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ও জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা অ্যাকাডেমিকে প্রয়োজনীয় দিক নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। সার্বিক দিক মূল্যায়ন করে খুব শিগগিরই এটি কার্যকর করা হবে।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী আগেই বলেছেন, পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হলে আগামী সেপ্টেম্বর পর্যন্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে না। মন্ত্রণালয়ও বলছে, পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার আগে কোনোভাবেই প্রতিষ্ঠানের খোলা সম্ভব না। এ অবস্থায় শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে নতুনভাবে এ চিন্তা করছে মন্ত্রণালয়।

এ ব্যাপারে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সচিব আকরাম আল হোসেন জানান, দীর্ঘ বন্ধে শিক্ষার্থীদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আমরা টেলিভিশনের মাধ্যমে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছি। তবুও অনেক শিক্ষার্থী শিক্ষা কার্যক্রম থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। তাই সবার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে নতুনভাবে চিন্তা করতে হচ্ছে আমাদের।

তিনি বলেন, ‘প্রতিষ্ঠান খোলার সঙ্গে সঙ্গে শিক্ষার্থীরা যাতে খুব দ্রুত তাদের সিলেবাস শেষ করতে পারে সেজন্য একটা পরিকল্পনা রয়েছে। শ্রেণিভিত্তিক মৌলিক সক্ষমতা বা কোর কম্পিটেন্ট অর্জনে বিষয় চিহ্নিত করে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি করার জন্য জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমি ও প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বছরের শুরুতেই সারা বছরের পাঠপরিকল্পনা নির্ধারণ করা ছিল। সংশোধিত সিলেবাস সেটাকেও রিভাইস করতে বলা হয়েছে।’

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মো. ফসিউল্লাহ জানান, শিক্ষাবর্ষ যাতে পিছিয়ে না যায় সে লক্ষ্যে এ ধরনের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ শুরু হয়েছে। নেপকেও এ বিষয়ে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদের সাধারণ ছুটি শেষ হলে ওই সিলেবাস সম্পন্ন করে ডিসেম্বরের মধ্যে পরীক্ষা নেওয়া হতে পারে। তবে ছুটি যদি সেপ্টেম্বরের পরও দীর্ঘ হয় তাহলে শিক্ষাবর্ষ পরবর্তী বছরের দুই এক মাস লাগতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘শিক্ষার্থীর পরের ক্লাসের সঙ্গে প্রাসঙ্গিক বিষয়গুলোকে চিহ্নিত করে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস তৈরি হবে। দুইটি স্তরে এটি করা হবে। প্রথম শ্রেণি থেকে চতুর্থ শ্রেণির শিক্ষার্থীদের জন্য একভাবে। আর পঞ্চম শ্রেণির জন্য আলাদাভাবে করা হবে। এক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ চ্যাপ্টারগুলোর প্রতি বেশি জোর দেওয়া হবে। সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব হলে সে আলোকে ক্লাস হবে এবং শিক্ষার্থীদের মূল্যায়ন করা হবে।’

আরও পড়ুন : ক্যানসারে প্রাণ গেল বেরোবি শিক্ষার্থী লিঙ্কনের

এ ব্যাপারে জাতীয় প্রাথমিক শিক্ষা একাডেমির (নেপ) মহাপরিচালক মো. শাহ আলম বলেন, ‘প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের সঙ্গে এ বিষয়ে আমাদের কথা হয়েছে। সেপ্টেম্বরের দিকে প্রতিষ্ঠান খুলবে সেটিকে মাথায় রেখেই আমরা কাজ করছি। তবে পরিস্থিতি কবে স্বাভাবিক হবে তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। এরপরও দুই-তিন মাসের মধ্যে যাতে সিলেবাস কাভারেজ দেয়া যায় সেটি নিয়ে আমাদের কাজ চলছে।’

jachai
nite
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
jachai

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড