• রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ৪ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

আবরার হত্যাকাণ্ড : রাবিতে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভে পুলিশি বাধা

  রাজশাহী প্রতিনিধি

০৮ অক্টোবর ২০১৯, ১৮:৫১
রাবি
পুলিশি বাধায় বিক্ষোভরত রাবি শিক্ষার্থীরা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

বুয়েটের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদ ও সুষ্ঠু বিচারের দাবিতে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষার্থীরা ঢাকা-রাজশাহী মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করলে পুলিশ বাঁধা দেয়। 

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে মানববন্ধন শেষে প্রধান ফটকের সামনে এই মহাসড়ক অবরোধ করে শিক্ষার্থীরা।

এ সময় শিক্ষার্থীরা পাঁচ দফা দাবি জানায় এবং আজ সন্ধ্যা ৬টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের সামনে থেকে মশাল মিছিলের ঘোষণা দেয়।

দাবিগুলো হলো- (১) আবরার হত্যার সঙ্গে জড়িতদের সকলের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে, (২) অনিয়ম ও দুর্নীতির সঙ্গে জড়িতদের বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অপসারণ করতে হবে, (৩) ছাত্রলীগকে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসেবে ঘোষণা করতে হবে, (৪) দেশ বিরোধী সকল চুক্তি বাতিল করতে হবে এবং (৫) রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের সকল প্রকার হয়রানি, হুমকি বন্ধ করাসহ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা মহাসড়ক অবরোধ করার চেষ্টা করলে পুলিশ প্রথমে বাঁধা দেয়। পুলিশের বাঁধা সত্ত্বেও আন্দোলনকারীরা বিভিন্ন স্লোগান দিতে থাকে। এক পর্যায়ে পুলিশের সঙ্গে আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ধাক্কাধাক্কির ঘটনা ঘটে। এ সময় পুলিশ এক শিক্ষার্থীর কলার চেপে ধরে। পরে শিক্ষার্থীদের বাঁধা সত্ত্বেও সড়ক অবরোধ করে। সেখানে তারা প্রায় ১ ঘণ্টার মতো অবস্থান করে। ফলে রাস্তার দুইপাশে যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকটর লুৎফর রহমান আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের সঙ্গে আলোচনা করে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করার চেষ্টা করেন।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকটর অধ্যাপক লুৎফর রহমান বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা আবরার হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবিতে সড়ক অবরোধ করেছিল। এ সময় মানুষের যাতে কোনো ধরনের দুর্ভোগ না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে। আর সেখানে যেন কোনো ধরনের বিশৃঙ্খলা না ঘটে তাই সেখানে উপস্থিত ছিলাম। তবে পুলিশ তাদেরকে সড়ক ছেড়ে আন্দোলনের কথা বলেছিল। যাতে মানুষের দুর্ভোগ কম হয়।

এ বিষয়ে জানতে মতিহার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হাফিজুর রহমানকে ফোন করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

প্রসঙ্গত, গত রবিবার (৬ অক্টোবর) দিবাগত রাতে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শের-ই-বাংলা হলের নিচতলা থেকে আবরার ফাহাদের লাশ উদ্ধার করা হয়। শিবির সন্দেহে ছাত্রলীগ তাকে পিটিয়ে হত্যা করে বলে অভিযোগ দেয় শিক্ষার্থীরা। আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এ পর্যন্ত বুয়েট বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকসহ ১০ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। 

ওডি/এএসএল

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড