• রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

রাতের বাসে কুবি শিক্ষার্থীদের ভোগান্তি চরমে

  আহমেদ ইউসুফ

১৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৭:৪৫
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়
জায়গার অভাবে দাঁড়িয়ে শিক্ষার্থীদের যাতায়াত (ছবি : দৈনিক অধিকার)

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) শিক্ষার্থীদের বহনকারী রাত আটটায় এবং সাড়ে আটটায় মোট তিনটি বাসে ভোগান্তি চরমে পৌঁছেছে বলে অভিযোগ করেছে শিক্ষার্থীরা। আসন সংখ্যার তুলনায় শিক্ষার্থী কয়েকগুণ বেশি হওয়ায় নিয়মিত এমন বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে বলে অভিযোগ তাদের।

শিক্ষার্থীরা জানান, কুমিল্লা শহরের কান্দিরপাড় থেকে ক্যাম্পাস অভিমুখে শিক্ষার্থীদের জন্য রাত আটটায় দুটি বাস এবং সাড়ে আটটায় একটি বাস থাকলেও প্রয়োজনের তুলনায় তা খুবই নগণ্য। অল্প কয়েকজন শিক্ষার্থী ব্যতীত বাকি শিক্ষার্থীরা বাসে সিট পায় না। এমনকি বাসে দাঁড়ানোর মতো জায়গা না পেয়ে প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে দরজায় ঝুলে যাতায়াত করতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। আবার কখনো কখনো বাসে দাঁড়ানোর মতো জায়গাও থাকে না। তখন সিএনজি করে ক্যাম্পাসে আসতে হয়। আর এ সুযোগে রাতে সিএনজি চালকরা অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করছে বলে অভিযোগ করেছেন একাধিক শিক্ষার্থী।

সরেজমিনে দেখা যায়, বাসে সিট পাওয়ার জন্য প্রতিদিন কান্দিরপাড় টাউনহলে লম্বা সিরিয়ালে দাঁড়িয়ে শিক্ষার্থীরা প্রায় ৪০-৪৫ মিনিট বাসের দরজা খোলার জন্য অপেক্ষা করে। এতে করে সামনের দিকে থাকা কয়েকজন শিক্ষার্থী বাসের সিট ধরতে পারলেও বাকি বড় একটা অংশ দাঁড়িয়ে যাতায়াত করতে বাধ্য হয়। আবার অনেকে দাঁড়ানোর জায়গা না পেয়ে বাসের দরজায় ঝুলে আসে। এ ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি বিড়ম্বনার শিকার হন বিশ্ববিদ্যালয়ের মেয়ে শিক্ষার্থীরা। 

গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের নিশাত হক নামের এক মেয়ে শিক্ষার্থী ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘টিউশনির জন্য সপ্তাহে চার থেকে পাঁচ দিন শহরে আসতে হয়। আমার মতো এমন অনেক শিক্ষার্থী টিউশনি করায়। কিন্তু বাসের সিট না পেয়ে প্রায়ই দাঁড়িয়ে যাতায়াত করতে হয়। বিশেষ করে মেয়েদের ক্ষেত্রে তা দুর্বিষহ ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। প্রশাসনের উচিত রাত আটটায় আরও দু-একটি বাস বাড়ানো।’ 

এ দিকে লোক প্রশাসন বিভাগের অপর আরেক শিক্ষার্থী রাকিব হাসান জানান, ‘আমার টিউশনি টমচমব্রিজ এলাকায় হওয়ায় কখনোই বাসে সিট পাই না। কিন্তু বাসের তুলনায় শিক্ষার্থী কয়েকগুণ বেশি হওয়ায় দাঁড়িয়ে যাওয়া কষ্টসাধ্য হয়ে যাচ্ছে দিন দিন। বেশিরভাগ সময়েই দরজায় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঝুলে ঝুলে ক্যাম্পাসে যেতে হয়। প্রশাসনের কাছে বাস বৃদ্ধির জোর দাবি জানাচ্ছি।’ 

এ বিষয়ে কথা বলতে গেলে বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবহন কমিটির প্রধান উপদেষ্টা ড. স্বপন চন্দ্র মজুমদার বলেন, ‘বিষয়টি আমরা অবগত, তবে বাস কমানো বা বৃদ্ধি করা পরিবহন পুলের এখতিয়ারে নেই। এ ক্ষেত্রে যদি শিক্ষার্থীরা প্রশাসনের কাছে দাবি জানায় আর প্রশাসন বাস বৃদ্ধির অনুমতি দেয় তাহলে আমরা তা নির্দিষ্ট শিডিউলে যুক্ত করব।’ 

বাস বৃদ্ধি করা সম্ভব কি না এমন প্রশ্নের জবাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (অতিরিক্ত দায়িত্ব) ড. মো. আবু তাহের জানান, ‘রাতের বেলায় আমাদের বাস সার্ভিস ছিল ন। তবুও শিক্ষার্থীদের যারা টিউশনি করায় তাদের কথা চিন্তা করে আমরা বাস শিডিউল চালু রেখেছি। এখন নতুন করে বাস বৃদ্ধি করা খরচের ব্যাপার। ইউজিসি থেকে আমরা যে বাজেট পাই তা পর্যাপ্ত নয়। তবুও আমরা এ বিষয়ে কথা বলব, বাস বৃদ্ধি করা যায় কি না এবং প্রয়োজন মনে করলে প্রশাসন সেটি ভেবে দেখবে।’

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড