• বুধবার, ২২ জানুয়ারি ২০২০, ৯ মাঘ ১৪২৭  |   ১৪ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মোবাইল ফোন চুরির দায়ে রাবির ৩ শিক্ষার্থী আটক

  ক্যাম্পাস ডেস্ক

১১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:২৭
রাবি
রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (ছবি : সংগৃহীত)

মোবাইল চুরির দায়ে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হল থেকে তিন শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার (১০ সেপ্টেম্বর) বিকালে তাদেরকে আটক করে নগরীর মতিহার থানা পুলিশ।

আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মতিহার থানা ডিউটি অফিসার এএসআই মাইনুল ইসলাম। তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মোবাইল চুরির দায়ে তিন জনকে আটক করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। প্রমাণ পাওয়া গেলে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

আটক হওয়া ওই তিন শিক্ষার্থী হলেন- বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী হাসিব হাসান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের নাইমুর রহমান শুভ ও লোক প্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী মো. আব্দুল মারুফ।

মোবাইল চুরির ব্যাপারে আটক হওয়া হাসিব হাসান জানান, শুভ কয়েকদিন থেকে বলছিল- তার খুব টাকার দরকার। সে আমাকে দুইটা ফোন দিয়ে বলে, এগুলো বন্ধক রেখে কিছু টাকা যোগাড় করে দিতে। পরে ফোনগুলো নিয়ে আমি স্টেশন বাজারের একটি দোকানে যাই। সেখান থেকে মারুফ আমাকে একটি গাড়িতে তুলে হলে নিয়ে আসে। এখন শুভ ও মারুফ আমাকেই চোর বলে সাবস্ত করছে।

কিন্তু হাসিব হাসানের এ অভিযোগ অস্বীকার করে শুভ ও মারুফ জানান, হাসিবই আমাদের দিয়ে এ চুরির কাজ করিয়েছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া জানান, সকালে আমি ঘুম থেকে ওঠার পর জানতে পারি- হল থেকে দুইটি ফোন চুরি হয়েছে। পরে আমার সঙ্গে হাসিবের দেখা হয়। তার সঙ্গে কথাবার্তার একপর্যায়ে আমার সন্দেহ হয়, ফোনগুলো সেই চুরি করেছে। কারণ তার বিরুদ্ধে আগেও ল্যাপটপ চুরির অভিযোগ রয়েছে। পরে জিজ্ঞাসাবাদে হাসিব চুরির বিষয়টি স্বীকার করে।

অন্যদিকে, এ প্রসঙ্গে  বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রক্টর ড. লুৎফর রহমান জানান, মোবাইল ফোন চুরির দায়ে তিন শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে বলে শুনেছি।

ওডি/আরএআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড