• বুধবার, ১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

ঢাকা কলেজে পরিবহন সঙ্কট চরমে

  মো. রাকিবুল হাসান তামিম, ডিসি প্রতিনিধি

০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১১:৪১
ঢাকা কলেজ
ঢাকা কলেজের পরিবহন (ছবি : দৈনিক অধিকার)

রাজধানীর অন্যতম বিদ্যাপীঠ ঢাকা কলেজের পরিবহন সঙ্কট চরম আকার ধারণ করছে। ২৫ হাজার শিক্ষার্থী পরিবহনের জন্য বাস রয়েছে মাত্র ৪টি। বরাদ্দকৃত চারটি বাসের মধ্যে- পদ্মনীল-মিরপুর, শঙ্খনীল-যাত্রাবাড়ী, পুষ্পক-সাইনবোর্ড (নারায়ণগঞ্জ), শঙ্খচিল-রামপুরা রুটে চলাচল করছে প্রতিদিন দুই বার করে।

আবার অনেক সময় যান্ত্রিক বিভিন্ন ত্রুটি এবং কলেজের বিভিন্ন বিভাগের শিক্ষা সফর থাকলে নিয়মিত রুটে শিক্ষার্থীদের আনা-নেওয়া বন্ধ থাকে। এতে করে প্রায়ই বিপাকে পড়ে সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এরূপ বহু সমস্যার কারণে পরিবহন সঙ্কট দিনকে দিন বেড়েই চলেছে যার ফলে দুর্ভোগ বাড়ছে সাধারণ শিক্ষার্থীদের।

সাধারণ শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, দিনকে দিন শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়লেও শিক্ষার্থীদের চাহিদার আলোকে পরিবহন সঙ্কট নিরসন করতে ব্যর্থ হয়েছে প্রশাসন।

জানা গেছে, পরিবহন সঙ্কট নিরসনের দাবিতে চলতি বছরের ২৮, ২৯ মার্চ এবং সর্বশেষ ১৬ জুলাই মানববন্ধন, বিক্ষোভ, অধ্যক্ষের কার্যালয় ঘেরাওসহ বেশ কয়েক দফা আন্দোলনও করে শিক্ষার্থীরা। টানা কয়েক দফা শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের পর সাবেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক মোয়াজ্জেম হোসেন মোল্লাহ্ বিআরটিসি থেকে ভাড়া করে পরিবহন সঙ্কট নিরসনের আশ্বাস দেন।

পরবর্তীতে তিনি অবসর গ্রহণ করায় সে কার্যক্রম স্থবির হয়ে পড়ে। অধ্যাপক মোয়াজ্জম হোসেন মোল্লাহের অবসর গ্রহণের পর পরবর্তী অধ্যক্ষ অধ্যাপক নেহাল আহমেদের নিকট শিক্ষার্থীরা পরিবহন সঙ্কট নিরসনে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহণের দাবি জানালে তিনিও পরিবহন সঙ্কট নিরসনে শিক্ষার্থীদের আশ্বাস প্রদান করেন। কিন্তু আশ্বাস দীর্ঘসময়েও বাস্তবে পরিণত হয়নি।

ঢাকা কলেজের উচ্চমাধ্যমিক, স্নাতক এবং স্নাতকোত্তর পর্যায়ে সব মিলিয়ে ২৫ হাজার শিক্ষার্থীর মধ্যে মাত্র পাঁচ হাজার শিক্ষার্থী আবাসিক ব্যবস্থাপনায় কলেজের হলগুলোতে অবস্থান করে। বাকি ২০ হাজার শিক্ষার্থীই ঢাকা এবং এর আশেপাশের বিভিন্ন জেলা থেকে কলেজের ক্লাসে উপস্থিত হয়। কলেজের অপ্রতুল পরিবহন ব্যবস্থার ফলে পাবলিক বাসে করেই বেশি ভাড়া দিয়ে নিয়মিত ক্যাম্পাসে যাতায়াত করতে হয় শিক্ষার্থীদের। এ কারণে প্রতিনিয়তই নানা হয়রানির শিকার হতে হয় তাদের।

রাজধানীর এয়ারপোর্ট থেকে কলেজে নিয়মিত ক্লাস করতে আসেন সম্মান ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থী শহিদুল ইসলাম শান্ত। তিনি বলেন, প্রতিদিন সকালে বিভাগের ক্লাস থাকায় কলেজে আসতে হয়। সকালে বাসে উঠতে কী দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে তা বলে বুঝানো যাবে না। অথচ মহাখালী, বনানী, খিলক্ষেত এবং এয়ারপোর্ট থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার শিক্ষার্থী কলেজে ক্লাসে আসা যাওয়া করে, অথচ এমন গুরুত্বপূর্ণ রুটে কলেজের কোনো পরিবহন নেই! তাই আমার দাবি কলেজ প্রশাসন শিক্ষার্থীদের এ দুর্ভোগের বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেবে।

পরিবহন সঙ্কটের কথা জানালেন কলেজের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের শিক্ষার্থী মিজানুর রহমান। দিন দিন পরিবহন সঙ্কট বাড়ছে দাবি করে তিনি বলেন, কলেজের বাসে ধারণক্ষমতার দ্বিগুণ শিক্ষার্থী গাদাগাদি করে যায়। অনেকে ঝুলে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে যাতায়াত করে। অনেকদিন ধরেই আমরা পরিবহন সঙ্কটে ভুগছি। এ থেকে পরিত্রাণ পেতে কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ জানিয়েছি। কিন্তু কোনো লাভ হয়নি। বরং দিন দিন শিক্ষার্থী সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায়ও পরিবহন সঙ্কট আরও বেড়েছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পরিবহন ব্যবস্থাপনা সমন্বয় কমিটির সদস্য সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ আনোয়ার মাহমুদ বলেন, কলেজে বাসের সংখ্যা শিক্ষার্থীদের তুলনায় অপ্রতুল। শিক্ষার্থীদের জন্য আরও কয়েকটি বাস প্রয়োজন। প্রতিবছর নতুন শিক্ষার্থী ভর্তি হচ্ছে। বাসের সংখ্যা না বাড়ালে সামনে হয়তো পরিবহন সমস্যা আরও তীব্র আকার ধারণ করবে। বর্তমানে যে বাস রয়েছে তা চাহিদার তুলনায় অর্ধেকেরও কম। তবে এই সঙ্কট নিরসনের জন্য কলেজ প্রশাসন বিশেষ করে অধ্যক্ষ স্যার নতুন বাস যুক্ত করার সর্বাত্মক চেষ্টা করছে। আমরা আশা করছি সম্ভবত চলতি অথবা সামনের মাসে নতুন দুইটি বাস আমাদের পরিবহন পুলে সংযুক্ত হবে।

খু্ব দ্রুতই পরিবহন সঙ্কটের সমাধান হবে উল্লেখ করে ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগের কথা চিন্তা করে বাস বাড়ানোর জন্য সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। আশা করছি খু্ব দ্রুতই পরিবহন সঙ্কটের সুন্দর একটি সমাধান হবে।

ওডি/আরএআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড