• রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

জিয়ার পরিচয় তিনি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী : রেলমন্ত্রী||কলকাতায় চিকিৎসা করাতে যাওয়া ২ বাংলাদেশিকে পিষে মারল জাগুয়ার||ছাত্রদলের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদের ফরম বিক্রি শুরু ||ইহুদিবাদী ইসরায়েলের প্রস্তাব নাকচ করে দিল মার্কিন সাংসদ||ভারতকে অবিলম্বে কাশ্মীরের কারফিউ তুলতে বলেছে ওআইসি||‘তদন্ত করতে হবে কেন এসব অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে’||ইউক্রেনের হোটেলে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৮ জনের প্রাণহানি||‘অগ্নিকাণ্ডে কেউ চাপা পড়েছে কিনা তল্লাশি চলছে’ ||মুক্তিপ্রাপ্ত ইরানের সুপার ট্যাঙ্কারটি আটকে এবার যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ারেন্ট জারি||অবৈধ অভিবাসন ইস্যুতে ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী  
eid

নানা প্রত্যাশা ও অপূর্ণতার ১৯ বছরে শেকৃবি

  আকাশ বাসফোর, শেকৃবি প্রতিনিধি

১৫ জুলাই ২০১৯, ০৯:৫৬
শেকৃবি
শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় (ছবি : সংগৃহীত)

আজ ১৫ জুলাই, রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) ১৮তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। নানা প্রত্যাশা ও অপূর্ণতা ১৯ বছরে পদার্পণ করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। ১৯ বছরে কৃষি শিক্ষা ও গবেষণায় যেমন সফলতা অর্জন করেছে তেমনি কিছু অংশে রয়েছে নানা অপূর্ণতা। বিশ্ববিদ্যালয়ে এখনো বিদ্যমান রয়েছে সেশনজট। চার বছরের কোর্স শেষ করতে লাগছে পাঁচ বছর বা তারও অধিক। সেশনজট কমাতে ব্যর্থ বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮ বছর পার হলেও এখনো নিমার্ণ হয়নি বিশ্ববিদ্যায়ের গেইট। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ে নানা জটিলতায় ভেটেরিনারি ক্লিনিক নির্মাণ করতে ব্যর্থ প্রশাসন।

দক্ষিণ এশিয়ায় সর্বপ্রথম ১১ ডিসেম্বর ১৯৩৮ সালে ‘দি বেঙ্গল কৃষি ইনস্টিটিউট’ নামে এই কৃষি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠিত হয়। তৎকালীন সময়ে এই কৃষি প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠা করেন বাংলা বাঘ ও অবিভক্ত বাংলার মুখ্যমন্ত্রী শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক। এটি বাংলাদেশের প্রথম কৃষি শিক্ষা এবং গবেষণা প্রতিষ্ঠান। ৫২’ ভাষা আন্দোলন থেকে শুরু করে গণঅভ্যুত্থান আন্দোলন ও মহান মুক্তিযুদ্ধ অনেক অবদান ছিল এই কৃষি প্রতিষ্ঠানের। ১৯৪৭ সালে এটি ‘পূর্ব পাকিস্তান কৃষি ইনস্টিটিউট’ নামধারণ করা হয়েছিল। পরবর্তীকাল ১৯৭১ সালে বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর এর নাম ‘বাংলাদেশ কৃষি ইনস্টিটিউট’ এ পরিবর্তন করা হয়। পরবর্তীতে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০০১ সালের ১৫ জুলাই এই প্রতিষ্ঠানকে ইনস্টিটিউট থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে রূপান্তরিত করেন এবং নাম দেন শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়।

বিশ্ববিদ্যালয়টি রাজধানী প্রাণকেন্দ্র ঢাকার শেরেবাংলা নগরে। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টিতে ৩২২ জন শিক্ষক, ৪টি অনুষদের ৩৫টি বিভাগে ৪ হাজার ৫০০ শিক্ষার্থী অধ্যায়নরত রয়েছেন। এছাড়া পাঁচটি আবাসিক হল, অত্যাধুনিক লাইব্রেরি, কেন্দ্রীয় গবেষণা মাঠ, মন্দির, মসজিদ, ফার্ম, একটি বিশাল খেলার মাঠ এবং একটি গবেষণার রয়েছে।

১৮তম প্রতিষ্ঠাবাষির্কী উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে দিনব্যাপী নান কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। এসব কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল ১০টায় অ্যাকাডেমিক ভবন সংলগ্ন স্বাধীনতা চত্বরে জাতীয় ও বিশ্ববিদ্যালযের পতাকা উত্তোলন এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হকের প্রতিকৃতিতে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ। এরপর সকাল সাড়ে ১০টায় উপাচার্য কর্তৃক পায়রা ও বেলুন উড্ডয়নের মাধ্যমে কর্মসূচি উদ্বোধন। তারপর আনন্দ র‌্যালি এবং কেক কাটা। দিবসটি উপলক্ষে গৃহীত অন্যান্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- ১৫ জুলাই বিকাল ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদে এক আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণ। এছাড়া বিকাল ৩টায় কেন্দ্রীয় খেলার মাঠে ১৯তম বিশ্ববিদ্যালয় দিবসে বিশ্বকাপ ক্রিকেটকে উপলক্ষ করে ছাত্রদের প্রীতি ক্রিকেট ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে।

প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. কামাল উদ্দিন জানান, দেশে সক্ষম তাত্ত্বিক ও ব্যবহারিক জ্ঞানসম্পন্ন দক্ষ কৃষিবিদ এবং কৃষিবিজ্ঞানী তৈরি করাই এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য। বাংলাদেশে উচ্চতর কৃষি শিক্ষার বিস্তারের মাধ্যমে দেশে কৃষি উন্নয়নের গুরু দায়িত্ব পালন করবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষিবিদ এবং কৃষিবিজ্ঞানীরা। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কৃষি গবেষণার যথাযথ প্রচার ও  প্রসার করার জন্য বিশেষ অবদান রেখে চলেছে।

উপাচার্য আরও জানান, বর্তমানে শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যায়ের সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে গবেষণার প্রকল্প চুক্তি হচ্ছে। ফলে বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সঙ্গে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈশ্বিক নেটওর্য়াক তৈরি হচ্ছে। শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যলায় বাংলাদেশে একটি মডেল বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসেবে রূপান্তরিত হবে। বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়ে যেসব ঘাটতি রয়েছে তা পূরণ করার চেষ্টা করছি বলেও জানান শেকৃবি উপাচার্য।

ওডি/আরএআর

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড