• মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ১৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

জাঁকজমকপূর্ণ অনুষ্ঠানে শেষ হলো ডিইউ ডিবেট চ্যাম্পিয়নশিপ-২০১৯

  ঢাবি প্রতিনিধি

১৪ জুলাই ২০১৯, ২১:৩৩
ডিউ ডিবেট চ্যাম্পিয়নশিপ
ডিউ ডিবেট চ্যাম্পিয়নশিপের সমাপনী অনুষ্ঠান (ছবি : দৈনিক অধিকার)

বিতর্ক সমাপনী, পুরস্কার বিতরণী ও জাঁকজমকপূর্ণ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হলো হুমায়ুন আহমেদ স্মরণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হিমু পরিবহন কর্তৃক যৌথ আয়োজিত ডিউ ডিবেট চ্যাম্পিয়নশিপ- ২০১৯। 

রবিবার (১৪ জুলাই) বিকেল ৪টা থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি মিলনায়তনে বিতর্ক সমাপনী অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। সমাপনী বিতর্ক অনুষ্ঠানে বিচারক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির সাবেক বিতার্কিকরা। 

বিতর্কে শেষে পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির সভাপতি রাকিব সিরাজীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ডিউডিএসের চিফ মডারেটর অধ্যাপক ড. মাহবুবা নাসরিন। বিশেষ অতিথি হিসেবে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- অন্বেষা প্রকাশনীর সহকারী পরিচালক শাহাদত হোসেন, ঢাবি হিমু পরিবহনের মডারেটর ড. মুমিত আল রশিদ, বাংলা একাডেমির উপ-পরিচালক আমিনুর রহমান সুলতান, হিমু পরিবহনের সভাপতি আসলাম হোসেন প্রমুখ। 

প্রধান অতিথির বক্তব্যে অধ্যাপক ড. মাহবুবা নাসরিন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটি হলো একটি ব্র্যান্ড। এই ডিবেটিং সোসাইটির কাজ শুধু ডিবেটার তৈরি করা না, ভালো মানুষ হিসেবেও গড়ে তোলা। ডিউডিএস এত বেশি জনপ্রিয়তা অর্জন করছে যে যতই কাজ থাকুক না কেনো ঢাবি প্রশাসন সব কাজে ছাড় দেয়। এই প্রোগ্রামটা মূলত হুমায়ুন আহমেদের স্মরণে করা হয়েছে। তিনি বেচে থাকলে হয়তো ডিউডিএস নিয়ে একটি সাহিত্য রচনা করে ফেলতেন। 

পুরস্কার বিতরণ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

তিনি নিজেকে হুমায়ুন আহমেদের ফ্যান উল্লেখ করে বলেন, হুমায়ুনের স্বপ্ন পূরণে আমি কাজ করে যাবো। যেহেতু হুমায়ুন আহমেদ ডিউডিএস নিয়ে সাহিত্য রচনা করে যেতে পারেন নি, তাই আমি নিজে চেষ্টা করবো সাহিত্য রচনা করতে। আসলে আমি ছোট বেলা থেকেই হুমায়ুন আহমেদের বই পড়তাম। আমার অন্য কোনো কাজ থাকলেও হুমায়ুনের বই পড়ার জন্য সময় খুঁজে নিতাম। আমি এখনো আমার সন্তানদেরকে বই পড়তে আগ্রহ দেখাই। আমি মনে করি, মানুষের হৃদয়ে গেঁথে যাওয়ার মত সাহিত্য শুধু হুমায়ুনই রচনা করতে পেরেছেন। আমি চলচ্চিত্র পরিচালকদের অনুরোধ করবো তারা যেনো হুমায়ুন আহমেদকে নিয়ে চলচ্চিত্র তৈরি করে।

এরপর তিনি সমাপনী বিতর্কের ফলাফল ঘোষণা করে এবং বিজয়ী দলকে অভিনন্দন জানান।

হিমু পরিবহনের মডারেটর ড. মুমিত আল রশিদ বলেন, আমি সর্বপ্রথম জালাল উদ্দিন রুমির সাহিত্যের মাধ্যমে হুমায়ুন আহমেদের সঙ্গে পরিচিত হয়। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ডিবেটিং সোসাইটির সঙ্গে হুমায়ুন আহমেদকে নিয়ে কাজ করে অনেক বেশি ভালো লাগছে আমাদের। আমিও চলচ্চিত্র পরিচালকদেরকে অনুরোধ করবো তারা যেনো হুমায়ুন আহমেদের চরিত্র হিমুকে নিয়ে চলচ্চিত্র তৈরি করে। 

ডাকসুর সাহিত্য সম্পাদক মাজহারুল কবির শয়ন বলেন, ডিউডিএস ঢাবির সব রকম উন্নয়ন নিয়ে কাজ করে। আর হিমু পরিবহন হুমায়ুন আহমেদের সাহিত্য উন্নয়নে কাজ করে। তারা দুইটা সংগঠন একসঙ্গে কাজ করছে। তাই তাদেরকে অনেক ধন্যবাদ জানাই। ডিউডিএস শুধু বিতার্কিক তৈরি করেনা, তারা ভালো মানুষও তৈরি করে। তাই সামনে যারা এদের নেতৃত্বে আসবে তারাও যেনো এই পথে কাজ করে যায়।

শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান (ছবি : দৈনিক অধিকার)

সমাপনী বক্তব্যে সভাপতি রকিব সিরাজী উপস্থিত সকলকে ধন্যবাদ দেন এবং তাদের সঙ্গে কাজ করার জন্য হিমু পরিবহনকে ধন্যবাদ জানান। এরপর প্রধান অতিথি বিজয়ী দলের হাতে পুরস্কার তুলে দেন। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করে ডিউডিএসের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল্লাহ আল মুতি।

এরপর এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ডিউ ডিবেট চ্যাম্পিয়নশিপ- ২০১৯ এর সমাপ্তি ঘটে। 

উল্লেখ্য, শুক্রবার (১২ জুলাই) ঢাকা ইউনিভার্সিটি ডিবেটিং সোসাইটি এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় হিমু পরিবহন এর উদ্যোগে সকাল সাড়ে ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনে এই উন্মুক্ত বিতর্ক শুরু হয়। এই ওপেন ডিবেট টুর্নামেন্টে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান-সাবেক বিতার্কিকসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিতার্কিকরা অংশগ্রহণ করেন।

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড