• বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ে টেক্সটাইল ও অ্যাপারেল প্রদর্শনীর উদ্বোধন

  মো. আসিফ হোসেন

১২ জুলাই ২০১৯, ১৮:০৬
উদ্বোধন
ফিতা কেটে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন (ছবি : দৈনিক অধিকার)

রাজধানীর অন্যতম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো টেক্সটাইল ও অ্যাপারেল প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়েছে।

শুক্রবার (১২ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয়ের মহাখালী ক্যাম্পাসে টেক্সটাইল ডিপার্টমেন্টের অডিটোরিয়ামে এই প্রদর্শনীর উদ্বোধন করা হয়। 

প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চেয়ারম্যান এবং অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুল আজিজ। বিশ্ববিদ্যালয়ের টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ এই প্রদর্শনীর আয়োজন করে।

এ সময় তার সঙ্গে আরও উপস্থিত ছিলেন- বিশেষ অতিথি বিশ্ববিদ্যালয়ের নব-নিযুক্ত উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আবুল বাশার, বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক মো. আল আমিন মোল্লা, সাইন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ এ মাবুদ, থার্মেক্স গ্রুপের সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার মো. ওবায়দুল হক এবং টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান এবং সহকারী অধ্যাপক রেজাউল করিম প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে আগত অতিথিরা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুল আজিজ বলেন, ‘আমি শুরুতে স্বপ্ন দেখতাম যে সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় এমন একটি বিশ্ববিদ্যালয় হবে যেখানে গবেষণা থাকবে। মানসম্মত শিক্ষা প্রদানের মাধ্যমে যে বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনাম সারা দেশে ছড়িয়ে পড়বে এবং সেরা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিণত হবে। আমরা ধীরে ধীরে সে লক্ষ্যের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘আমার স্বপ্ন এই বিশ্ববিদ্যালয় সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে। গরিব, অসহায়, উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত সবার জন্যই উন্মুক্ত থাকবে। যদি আমি ভুল না করে থাকি এবং আপনারা যদি লক্ষ্য করে থাকেন- অন্যান্য বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের তুলনায় আমাদের এখানে শিক্ষার্থীদের মাসিক ফি কম।’

ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুল আজিজ বলেন, ‘একটা বিষয় আমি গর্বের সঙ্গে বলতে পারি, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের যে বেতন কাঠামো সেটি যদি অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে তুলনা করা হয় তাহলে আমাদের অবস্থান প্রথম সারিতে। এর মানে হলো আমরা মানসম্মত শিক্ষক নিয়োগ দিচ্ছি।’

তিনি বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে আমি আপনাদের আশ্বস্ত করতে পারি, শিক্ষক নিয়োগের ক্ষেত্রে আমরা যারা উদ্যোক্তা আছি তারা কেউই কোনো বিষয়ে সম্পৃক্ত থাকি না। এটি একটি স্বচ্ছ প্রক্রিয়ার মাধ্যমে হচ্ছে। যারা মেধাবী এবং যাদের যোগ্যতা আছে তারাই শিক্ষক হিসেবে অংশগ্রহণের সুযোগ পাচ্ছে।’

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বক্তব্য রাখছেন ভাইস চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুল আজিজ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আবুল বাশার প্রদর্শনীতে উপস্থিত শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, ‘একটা বিষয় মনে রাখতে হবে যে তোমরা এখন কলেজের শিক্ষার্থী না, তোমরা এখন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী। কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের মধ্যে পার্থক্য হলো গবেষণা।’

উপাচার্য বলেন, ‘গবেষণা না করলে তোমার কাঁচামাল কোথাও ব্যবহার করতে পারবে না। সেটা ডাস্টবিনে ফেলে দিতে হবে। গবেষণা করে কাঁচামালের নতুনত্ব আবিষ্কার করতে হবে। এরপর সেটা দিয়ে পণ্য তৈরি করতে হবে। তাহলে সে পণ্য থেকে লাভ হবে।’

অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি থার্মেক্স গ্রুপের সিনিয়র জেনারেল ম্যানেজার মো. ওবায়দুল হক বলেন, ‘সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয়ের আজকের এই প্রদর্শনী ছোট পরিসরে বড় এক আয়োজন। আমি আবারও এই কথাই বলব। কেননা যখন আপনি ছোট একটা মাঠ পরিষ্কার করতে চাইবেন তখন আপনার ১০ জন লোক হলেই চলবে। কিন্তু বড় মাঠ হলে ৫ দিনে কাজ শেষ করতে চাইলে ১০০ মানুষ লাগবে। তেমনি আজকে এই স্বল্প পরিসরের আয়োজন পরবর্তীতে বৃহৎ আকার ধারণ করবে সেটা আমার প্রত্যাশা।’

ব্যানানা ফাইবার (ছবি : দৈনিক অধিকার)

তিনি বলেন, ‘বলা হয়ে থাকে ছোট ছোট স্বপ্ন দেখা অপরাধ। আমিও সেটা বলি। এমন স্বপ্ন দেখতে হবে যেটা আগে কেউ কখনো দেখেনি, বা সেই স্বপ্ন নিয়ে ভাবেনি। আমি এক টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারকে শিল্পপতি বানানোর স্বপ্ন দেখেছিলাম। আমি সেভাবে তাকে বুদ্ধিও দিয়েছি। তার টাকা ছিল না। তাহলে সে কীভাবে শিল্পপতি হবে? আমি তাকে ৫ কেজি সূতা দিয়ে কাপড় বানানোর পদ্ধতি শিখিয়েছি। কম খরচে রং করার উপায় শিখিয়েছি।’

অনুষ্ঠানের উদ্বোধন শেষে অতিথিদের ফুল দিয়ে বরণ করে নেন বিশ্ববিদ্যালয়ের টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভিন্ন ব্যাচের শিক্ষার্থী ও শিক্ষকরা। এছাড়াও প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের উদ্যোগে টেক্সটাইল ক্লাব ও ক্যারিয়ার ক্লাবের উদ্বোধন করা হয়েছে।

উদ্বোধনী বক্তব্যে বিভাগের প্রধান এবং সহকারী অধ্যাপক রেজাউল করিম জানান, বাংলাদেশে এই প্রথম সোনারগাঁও বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণার মাধ্যমে দূর্বা ঘাসের তরল নির্যাস তৈরি করেছে। এই নির্যাস আমাদের নিজস্ব গবেষণার মাধ্যমে উৎপাদিত কাপড়ে ডাইংয়ের মাধ্যমে ব্যান্ডেজ হিসেবে বাজারে চালু করার ব্যাপারে কাজ চলছে। কেননা দূর্বা ঘাস কাঁটাছেড়ার ওষুধ হিসেবে কাজ করে। তাই এই ব্যান্ডেজ বাজারজাতকরণের মাধ্যমে গবেষণা ক্ষেত্রে এক নতুন দ্বার উন্মোচিত হবে। এছাড়াও বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষণায় কলা এবং আনারস থেকে ফাইবার বের করা হয়েছে। যা দিয়ে ভবিষ্যতে উন্নত মানের কাপড় তৈরি করা সম্ভব হবে।

দূর্বা ঘাসের নির্যাস (ছবি : দৈনিক অধিকার)

অনুষ্ঠানের শেষ পর্বে সম্মানিত অতিথিদের হাতে সম্মাননা স্মারক তুলে দেওয়া হয় এবং ফিতা কেটে অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন শেষে অতিথিরা প্রদর্শনীর বিভিন্ন স্টল ঘুরে বিভিন্ন পণ্য দেখেন। প্রদর্শনী উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের বিভিন্ন ব্যাচের শিক্ষার্থী শিক্ষক ছাড়াও দর্শনার্থী ও ক্রেতাদের ভিড়ও ছিল চোখে পড়ার মতো।

অতিথিদের স্টল পরিদর্শন (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড