• শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

খুব শিগগিরই শুরু হবে শাবিপ্রবির ডিপিপি প্রকল্পের কাজ

  শাবিপ্রবি প্রতিনিধি

১১ জুলাই ২০১৯, ১৯:৪১
শাবিপ্রবি
শাবিপ্রবির উপাচার্যের সঙ্গে সাংবাদিকদের মতবিনিময় সভা (ছবি : সংগৃহীত)

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবিপ্রবি) অধিকতর উন্নয়নের জন্য উন্নয়ন প্রজেক্ট প্রস্তাবের (ডিপিপি) আওতায় একনেকে যে ৯৮৭ কোটি ৭৯ লাখ টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয়েছে তা বাস্তবায়ন হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের বর্তমান চিত্র পাল্টে যাবে। এ দিকে খুব শিগগিরই এ প্রকল্পের কাজ শুরু করা হবে বলে মন্তব্য করেন উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ।

বৃহস্পতিবার (১১ জুলাই) দুপরে উপাচার্যের সম্মেলন কক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত সাংবাদিকদের সঙ্গে প্রকল্প বাস্তবায়ন নিয়ে এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

এ সময় উপাচার্য আরও বলেন, আমরা ৯৮৭ কোটি ৭৯ লক্ষ টাকার যে প্রকল্প পেয়েছি তা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে একটি অন্যতম মেগা প্রজেক্ট, যার বাস্তবায়ন হলে বিশ্ববিদ্যালয়ের সামগ্রিক চিত্র পাল্টে যাবে। অবকাঠামোগত উন্নয়নের মাধ্যমে আমাদের আবাসিক সমস্যা ও ক্লাসরুমের সংকট দূর হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

এ দিকে গত মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি) সম্মেলন কক্ষে একনেক চেয়ারপারসন ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় শাবির অধিকতর উন্নয়নের জন্য উন্নয়ন প্রজেক্ট প্রস্তাবের (ডিপিপি) আওতায় ৯৮৭ কোটি ৭৯ লাখ টাকার প্রকল্প অনুমোদন দেওয়া হয় বলে জানান উপাচার্য। 

তিনি আরও বলেন, এই উন্নয়ন প্রকল্পের মোট ২০টি খাত রয়েছে। এর মধ্যে ১০তলা বিশিষ্ট দুটি আবাসিক হল, গ্র্যাজুয়েট ও বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য ৭ তলা বিশিষ্ট একটি আন্তার্জাতিক হোস্টেল, শিক্ষকদের জন্য ১১ তলা বিশিষ্ট ৪টি ডরমেটরি, কর্মচারীদের জন্য ১০ তলা বিশিষ্ট আবাসিক ভবন, ১০ তলা বিশিষ্ট তৃতীয় প্রশাসনিক ভবন, ১০ তলা বিশিষ্ট ৪টি অ্যাকাডেমিক ভবন, বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল ও কলেজের জন্য ৬ তলা বিশিষ্ট ভবন, ১০ তলা বিশিষ্ট ক্লাব কমপ্লেক্স ভবন, আবাসিক হলের ছাত্রদের জন্য ৪ তলা বিশিষ্ট মসজিদ নির্মাণ করা হবে। এছাড়া কেন্দ্রীয় গ্যারেজ বর্ধিতকরণ, প্রধান সড়কের উভয়পাশে দুইটি ব্রিজ এবং বৈদ্যুতিক সাব স্টেশন নির্মাণ করা হবে বলে জানান উপাচার্য। 

জায়গা সংকটের কারণে অনেক বিভাগ সুষ্ঠুভাবে অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারছে না। কখনো কখনো কয়েকটি বিভাগ মিলে পর্যায়ক্রমে একই রুমে ক্লাস নিয়ে থাকে। ল্যাব না থাকার কারণে অনেক বিভাগ তাদের গবেষণা কাজ চালিয়ে যেতে পারছে না। এর সমাধানকল্পে আমরা মেগা প্রজেক্ট পেয়েছি। 

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ে ( ডিপিপি-১ম পর্যায়) ২শ কোটি টাকার এ প্রকল্পে অনেকটা বিদ্যমান বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করা হয়েছে। সেই প্রকল্পে বিভিন্ন ল্যাবের জন্য অনেক বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি কেনা হয়েছে। আসলে আমাদের প্রধান সমস্যা ছিল অবকাঠামোগত তথা ভবন, ক্লাসরুম বা আবাসিক হলের অপর্যাপ্ততা, যা এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে সমাধান হয়ে যাবে। এছাড়া আগামী দুই দশক আমাদের আর জায়গা সঙ্কটের সমস্যায় ভুগতে হবে না বলেও মন্তব্য করেন তিনি। এ দিকে এ প্রকল্পের কাজ খুব শীঘ্রই শুরু হবে এবং নির্ধারিত সময়ের মধ্যে এ প্রকল্পের কাজ শেষ হবে বলেও মন্তব্য করেন উপাচার্য।

ওডি/এসএসকে

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড