• সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

নিজ দেশে ফিরে যেতে রোহিঙ্গাদের দুই শর্ত||এ পি জে আব্দুল কালামের স্মৃতিতে ভূষিত প্রধানমন্ত্রী  ||উদ্বেগ থাকলেও ভারতের ওপর বিশ্বাস রাখতে চাই : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ||ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি ঢাকতেই ছাত্রদলের কাউন্সিল বন্ধ : রিজভী ||কাশ্মীরে জঙ্গি অনুপ্রবেশের অভিযোগে সীমান্তে‌ হাই অ্যালার্ট||ভারতের পর এবার বিশ্বকে পরমাণু যুদ্ধের হুঁশিয়ারি পাকিস্তানের||সোমবার আনুষ্ঠানিক দায়িত্ব নেবেন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক||মেক্সিকোয় কুয়া থেকে ৪৪ মরদেহ উদ্ধার করল বিজ্ঞানীরা||অন্যায় করলে কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না : কাদের    ||সৌদির তেল স্থাপনাতে হামলায় ইরানকে দায়ী করল যুক্তরাষ্ট্র

চুরি প্রতিরোধে নির্বিকার বাকৃবি প্রশাসন

  বাকৃবি প্রতিনিধি

১৫ এপ্রিল ২০১৯, ২১:১৪
সাইকেল চুরি
সিসিটিভি ফুটেজে সাইকেল চুরির দৃশ্য (ছবি : সংগৃহীত)

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) প্রায়ই ঘটছে চুরির ঘটনা। চুরি প্রতিরোধে এবং বিশ্ববিদ্যালয়ে নিরাপত্তা বৃদ্ধির জন্য পুরো ক্যাম্পাস সিসি ক্যামেরার আওতায় আনলেও সুফল পাচ্ছে না শিক্ষার্থীরা। চুরি ঠেকাতে এবং চোর ধরতে ব্যর্থ বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা কর্মীরা।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দীর্ঘ দিন যাবৎ বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদের করিডোর, টিএসসি, পশুপালন অনুষদের করিডোর, ভেটেরিনারি অনুষদের করিডোর এবং কেআর মার্কেট থেকে শিক্ষার্থীদের বাই-সাইকেল চুরি হচ্ছে। বাদ যায় না বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলও। হল এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থান থেকে গত কয়েক মাসে প্রায় অর্ধশতাধিক সাইকেল চুরি হয়েছে।

সাইকেল চুরির বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভুক্তভোগী এক শিক্ষার্থী জানান, 'একই জায়গা থেকে বার বার শিক্ষার্থীদের সাইকেল চুরির ঘটনা ঘটলেও চুরি থামাতে পাচ্ছে না বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা কর্মীরা। এমনকি সিসি ক্যামেরা থাকা সত্ত্বেও প্রতিনিয়তই বাইসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের পক্ষ থেকে কোনো ধরনের ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না।'

বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানের মত হলেও চুরি হচ্ছে সাইকেল। হলে সাইকেল চুরির বিষয়ে ভুক্তভোগী এক শিক্ষার্থী বলেন, 'প্রশাসনের জানা
উচিত বছরে কি পরিমাণ চুরির ঘটনা ঘটে। গত ঈদে ফজলুল হক হল থেকে আমার একদমই নতুন কেনা সাইকেল চুরি হয়। ঈদের ছুটি শেষে হলে
এসে দেখি সাইকেল লাপাত্তা। হল প্রশাসন, গেটম্যানদের বলে কোনো ফল পাওয়া যায় নি। সম্প্রতি ঈশা খাঁ হলে একজন সাইকেল চোর ধরা পরে এবং সে আগেও হল থেকে দুটি সাইকেল চুরি করেছে বলে স্বীকার করে। এছাড়া শাহজালাল হল সহ অন্যান্য হলেও অহরহ চুরির ঘটনা ঘটছে।'

নিরাপত্তা শাখায় খোঁজ নিয়ে জানা যায়, '৬০ টি সিসি ক্যামেরার মধ্যে শুধুমাত্র আটটি সিসি ক্যামেরার লিংক পাওয়া যায়। এমনকি সম্প্রতি বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেকগুলো নতুন সিসি ক্যামেরা সংযোজন করা হলেও কৃষি অনুষদের করিডোরের মত গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় কোনো সিসি ক্যামেরা নেই।' 

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বেশিরভাগ সময় সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজে চুরির ঘটনাগুলো দেখা গেলেও নিম্নমানের সিসি ক্যামেরার কারণে চোরের চেহারা শনাক্ত করতে পারেননা নিরাপত্তা শাখার কর্মীরা। চুরি হয়েছে কিনা এটা নিশ্চিত হওয়ার জন্যই শুধু এই সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছে। এর কোন কার্যকারিতা নেই।' 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিরাপত্তা শাখার চিফ সিকিউরিটি অফিসার মহিউদ্দিন হাওলাদার বলেন, 'সাইকেল চুরির ঘটনাগুলি সম্পর্কে আমরা
অবগত আছি। আমাদের কাছে চুরির সিসি টিভি ক্যামেরার ফুটেজ রয়েছে। সাইকেল চুরি ঠেকাতে আমরা কাজ করছি।' 

এ বিষয়ে নিরাপত্তা কাউন্সিলের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো.আব্দুল আলীম বলেন, 'আমরা আমাদের কাজ করে যাচ্ছি। আমাদের নিরাপত্তা শাখায় পর্যাপ্ত পরিমাণ নিরাপত্তা কর্মী না থাকায় সমস্যা পোহতে হচ্ছে। আমরা যত তাড়াতাড়ি সম্ভব এসব চুরির ঘটনা থেকে নিরসনের জন্য প্রয়োজনীয়
ব্যবস্থা গ্রহণ করব।' 

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. আজহারুল হক বলেন, 'সম্প্রতি সাইকেল চুরির ঘটনাগুলো শুনার পর আমি নিরাপত্তাকর্মীদের
দ্রুত এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছি।'

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড