• বৃহস্পতিবার, ১৯ মে ২০২২, ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯  |   ৩৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বাংলাদেশে অমুক ভাই তমুক ভাইয়ের নামে স্লোগান প্রাসঙ্গিক নয় : ডা. দিপু মনি 

  নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

১২ মে ২০২২, ১৫:১৪
বাংলাদেশে অমুক ভাই তমুক ভাইয়ের নামে স্লোগান প্রাসঙ্গিক নয় : ডা. দিপু মনি 
শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি (ছবি : সংগৃহীত)

আমরা যে ছাত্রলীগ করেছি সে ছাত্রলীগে শৃঙ্খলাবোধ ছিল। এখন যদি কোথাও ছাত্রলীগে শৃঙ্খলাবোধের অভাব দেখি তাহলে আমি বোন হিসেবে ছাত্রলীগের ভাইদের কিছুটা শাসন করব। ছাত্রলীগের ভাইয়েরা শুধু স্লোগান দিলে চলবে না, তাও আবার অমুক ভাই, তমুক ভাইয়ের নামে স্লোগান কেন। স্লোগান দিতে হলে তা হবে শেখ হাসিনার নামে, স্বাধীনতা ও প্রগতির নামে। অমুক ভাই তমুক ভাইয়ের নামে স্লোগান বাংলাদেশে আর প্রাসঙ্গিক নয়।

বুধবার (১১ মে) জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষ্যে দুই দিনব্যাপী আয়োজিত অনুষ্ঠানে ২য় দিনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে ছাত্রলীগের নেতৃত্বকে উদ্দেশ্য করে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি এমন বক্তব্য রাখেন।

তিনি আরও বলেন, আমরা শিক্ষিত বেকার তৈরি করতে চাই না। শিক্ষার্থীরা যেন কর্মী হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করে বিশ্ববিদ্যালয় ছাড়ে। এ জন্য শিক্ষা কারিকুলামও সেভাবে তৈরি করতে হবে। বিশ্ববিদ্যালয় মানে গবেষণার জায়গা। আমাদের দেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ভাল ভাল শিক্ষক আছেন, গবেষক আছেন। তাহলে আমরা কেন পারব না শিক্ষার্থীদের যোগ্য করে তৈরি করতে।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধুকে আমরা বলি রাজনীতির কবি। তিনিই আরেক কবি কাজী নজরুল ইসলামকে বাংলাদেশে এনে জাতীয় কবির সম্মান দিয়েছিলেন। এ দুজন মানুষের মধ্যে অনেক মিল ছিল। তারা দুজনই স্বাধীনতার স্বপ্ন দেখতেন। তারা দুজনই মানুষের অধিকার নিয়ে কথা বলতেন।

শিক্ষামন্ত্রী তার বক্তব্যে কাজী নজরুল ইসলামের সাহিত্য ও দর্শন নিয়ে আলোচনা করেন। কবির অসাম্প্রদায়িকতা ও সাম্যের কথা বলেন।

তিনি বলেন, জয় বাংলা এখন আমাদের জাতীয় স্লোগান হয়েছে। সম্ভবত ১৯২১ সালে জাতীয় কবির একটি কবিতায় জয় বাংলা কথাটি ছিল। সেখান থেকেই বঙ্গবন্ধু জয় বাংলা কথাটি নিয়ে নিজের ভাষণে ব্যবহার করতেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয় এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্যে ৫০-৬০ একরের বেশি জায়গার প্রয়োজন নেই। অন্যদিকে কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর জন্যে ২০০ একরের মতো হলেই চলবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর। তিনি বলেন, আমি গত ১৯ ডিসেম্বরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে যোগ দিয়েছি। যোগ দেওয়ার পর থেকেই কিছু সংকট দেখেছি। সেসব সংকট সমাধানের জন্য কাজ করছি। শিক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন- এ তিনটি বিষয়কে সামনে রেখে কাজ করছি।

উপাচার্য বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ের নানা উন্নয়নের জন্য অন্তত ৫০০ কোটি টাকা প্রয়োজন। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার পরিবেশ সৃষ্টি করতে পরিসর বৃদ্ধিরও প্রয়োজন রয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার কৃষিবিদ ড. হুমায়ুন কবীরের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) এ এস এম মাকসুদ কামাল, নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের কোষাধ্যক্ষ মো. জালাল উদ্দিন ও ত্রিশাল পৌরসভার মেয়র এ বি এম আনিছুজ্জামান। অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ত্রিশালের সাংসদ রুহুল আমিন মাদানী উপস্থিত হলেও তিনি শারীরিক অসুস্থতার কারণে চলে যান।

এ সময় শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনিকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়। পরে বঙ্গবন্ধু ও কাজী নজরুলের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন তিনি ও বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. সৌমিত্র শেখর।

পুষ্পস্তবক অর্পণের পর মন্ত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয় ঘুরিয়ে দেখান উপাচার্য। এরপর বেলা সাড়ে ৩টায় ১৭তম বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের আলোচনা সভায় অংশ নেয় মন্ত্রীসহ অনুষ্ঠানের অতিথিরা। আলোচনার শুরুতে সঙ্গীত বিভাগের শিক্ষার্থীদের পরিবেশনার মধ্য দিয়ে অতিথিদের মঞ্চে বরণ করে নেয়া হয়।

একই দিন অ্যাকাডেমিক ভবন নির্মাণসহ ৭টি প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি। এছাড়া শিক্ষা গবেষণা উন্নয়নে সরকারের পক্ষ থেকেও সহযোগিতার আশ্বাস দেন মন্ত্রী। শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে অ্যাম্বুলেন্স চাইলে সেটির ব্যবস্থা করা হবে বলেও জানান তিনি।

ওডি/ইমা

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড