• রোববার, ১২ জুলাই ২০২০, ২৮ আষাঢ় ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কবি নজরুল কলেজ ছাত্রাবাসে চুরি, আতঙ্কে শিক্ষার্থীরা

  কেএনজিসি প্রতিনিধি

০১ জুন ২০২০, ২২:৩৪
শহীদ শামসুল আলম হল
ছবি : সংগৃহীত

করোনাভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকার সুযোগে রাজধানীর কবি নজরুল কলেজের শহীদ শামসুল আলম হলে চুরির ঘটনা ঘটেছে।

রবিবার (৩১ মে) রাতে এ ঘটনা ঘটে।  শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, বন্ধ অবস্থায় হলের নিরাপত্তা ব্যবস্থা যথাযথ ছিল না বলেই এই ঘটনা ঘটেছে।

কলেজের শহীদ শামসুল আলম হলের শিক্ষার্থী সিরাজুল ইসলাম জানান, আনুমানিক রাত ৯টায় হলে চুরি হয়। ৩০২ ও ৩০৩ নম্বর রুমের তালা ভেঙে দুইরুমের ৮টি ফ্যান, একটা কম্পিউটার, একটি ডিএসএলআর ক্যামেরাসহ বই-পোশাক এবং ব্যবহার সামগ্রী, চশমা, ঘড়ি ইত্যাদি নিয়ে গিয়েছে চোর।

রুম দুটিতে ইয়াসিন আরাফাত স্বপন, ইমাম হোসেন ইমন, সানবীর মাহমুদ ফয়সাল, মেহেদী হাসান জয়, শরীফ, হাফিজ, জুয়েল, মেহেদী হাসান, সিরাজ থাকেন।

এদের মধ্যে ইতিহাস বিভাগের শিক্ষার্থী ইয়াসিন আরাফাত স্বপন বলেন, ‘করোনাভাইরাসের জন্য রুম খালি করতে বলা হয়েছে। আমার সবাই গ্রামের বাড়িতে চলে এসেছি। কলেজ প্রশাসন যদি এ বিষয়ে সচেতন থাকতো এবং নিরাপত্তার বিষয়টি নিয়ে কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতো তাহলে চুরির ঘটনা ঘটতো না।’ চুরির ঘটনার জন্য কলেজ প্রশাসনের অসচেতনতাকে দায়ী করেন তিনি।

স্বপন জানান, কলেজের অধ্যক্ষকে হল সংস্কার ও নিরাপত্তার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বারবার অনুরোধ জানিয়েছি আমরা। কিন্তু তিনি কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করেননি।

ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী বায়েজিদ সিকদার রাহাদ বলেন, ‘হলের নিরাপত্তার বিষয়টি বেশ কয়েকবার তুলে ধরা হয়েছে কলেজ প্রশাসনের কাছে। কিন্তু কলেজ প্রশাসনের অবহেলায় আজ এই ঘটনা ঘটল।’

রাজধানীর পুরান ঢাকার কবি নজরুল সরকারি কলেজে শিক্ষার্থীর সংখ্যা প্রায় ১৭ হাজার। কলেজের একমাত্র ছাত্রাবাস শহীদ শামসুল আলম হলে সিট সংখ্যা ১২০টি। সেখানে গাদাগাদি করে থাকে প্রায় ২০০ জন শিক্ষার্থী।

কলেজের শিক্ষক পরিষদের সম্পাদক ও ইসলাম শিক্ষা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক আকবর হুসাইন বলেন, ‘চুরি প্রসঙ্গে আমি এখনও পর্যন্ত কিছুই জানি না। হলের নিরাপত্তার বিষয়টি অধ্যক্ষ স্যার ভালো জানাতে পারবেন। যেহেতু চুরি হয়েছে নিশ্চিত জানতে পারিনি, তাই আমি এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করব না।’

আরও পড়ুন : ওয়েবসাইটে করোনা আক্রান্ত শিক্ষকদের তালিকা প্রকাশ করা হবে

এ ব্যাপারে জানতে কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক আই কে সেলিম উল্লাহ খোন্দকারের সাথে একাধিকবার চেষ্টা করেও যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

সূত্রাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা বলেন, এই বিষয়ে এখন পর্যন্ত কোনো অভিযোগ আসেনি। অভিযোগ পেলে খতিয়ে দেখা হবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড