• রোববার, ০৭ জুন ২০২০, ২৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭  |   ৩৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

১২ বিঘায় নেই কোনো আড্ডা

  আসমাউল মুত্তাকিন, এমআইইউ প্রতিনিধি

০৭ এপ্রিল ২০২০, ১৬:২১
মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি
মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি (ছবি : সংগৃহীত)

মিরপুর থেকে এখনকার দূরত্ব প্রায় ২০ কিলোমিটার। ইট-পাথর আর কংক্রিটের তৈরি কিছু বিল্ডিং। তার পাশে একটি খেলার মাঠ। মাঠের এক পাশে কিছু গাছ আর অন্য পাশে ফুলের বাগান। এই নিয়ে মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালিজম অ্যান্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগে পড়েন শেখ সুলেমান কবির। করোনাভাইরাসের ছুটির কারণে নিজ বাড়িতে অবস্থান করছেন। গত কয়েকদিন ধরে তার মনটা খারাপ। প্রিয় বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হচ্ছে না।আড্ডা আর খোশগল্পও নেই। মোবাইলের ওয়ালে তাকালেন। সেখান থেকে ক্যাম্পাসের কিছু পুরাতন ছবি পোস্ট করলেন ফেসবুকে। আবেগতাড়িত হয়ে লিখলেন, ‘বন্ধুরা মিস করছি তোদের’। সুলেমানের মতো হয়তো আরও অনেক শিক্ষার্থী এইভাবে স্মৃতিচারণ করছেন। সবার মনে এখন করোনার আতঙ্ক।

করোনাভাইরাস থেকে বেঁচে থাকতে গত ১৮ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে সরকার। এ ছাড়াও ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়। পরে পরিস্থিতি ক্রমশ ভয়ানক হওয়ায় আবার প্রাক-প্রাথমিক থেকে সব রকমের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছুটির সময় বৃদ্ধি করা হয়। ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সময় দেয়া থাকলেও তা বাড়িয়ে এখন ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে যদি অবস্থার উন্নতি না হয় তাহলে এই ছুটি ৩০ মে পর্যন্ত গড়াতে পারে।

সরকারি নির্দেশনা পেয়ে মানারাত ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির উপাচার্য অধ্যাপক ড.নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সব কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করেন। মেয়েদের আবাসিক হল ছেড়ে দেওয়ার নোটিশ দেওয়া হয়। শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারী সবার অনুপস্থিতিতে কোলাহলের ক্যাম্পাস আজ জনশূন্য। নেই জম্পেশ আড্ডা। ক্যান্টিন, খেলার মাঠ, ও গোলচত্বরে কারো নেই আনাগোনা।

ক্লান্তির ক্লাস শেষে ঘোরাঘুরি ও মন হালকা করতে খাগান বাজারে চলে যেত একদল শিক্ষার্থী। সেই খাগান বাজারটাও আজ নিস্তব্ধ। বিশ্ববিদ্যালয় সংলগ্ন দোকানগুলোও আজ ক্রেতা শূন্য। সবুজ বাসে বন্ধুরা মিলে আর গাওয়া হয়না কোনো গান। ক্যাম্পাসের সবুজ আর সাদা বাসগুলোও যেনো আজ নীরবে দাঁড়িয়ে আছে। ওরাও হয়তো মনে মনে গত দিনগুলোর স্মৃতিচারণ করছে।

আরও পড়ুন : করোনা সচেতনতায় বুটেক্স শিক্ষার্থীর সেভ বাংলাদেশ বট

সংগীত প্রেমীদের আড্ডা নেই আজ ক্যাম্পাসে। বল ও ব্যাট হাতে খেলার মাঠে দেখা যায় না আর কাউকে। নেই গ্রুপ অ্যাসাইনমেন্ট আর প্রেজেন্টেশন মিটিং। ক্লাস টেস্ট, সেমিস্টার ফাইনালও নেই। লাল কংক্রিটের বিল্ডিংগুলোতে কোনো ক্লাস নেই।

ক্যাম্পাসের মসজিদও মুসল্লি শূন্য। নেই কোনো আজানের ধ্বনি। মসজিদের পাশে অবস্থিত ফটোকপির দোকানেও শিক্ষার্থীদের ভিড়। বিদায় বেলায় শিক্ষার্থীদের মনে একটাই চাওয়া করোনা শঙ্কা মুক্ত হোক সবাই। সবাই সুস্থভাবে ফিরে আসুক প্রিয় ক্যাম্পাসে। আনন্দ আড্ডায় প্রাণ ফিরে পাক ১২ বিঘা। এমনটাই চাওয়া সবার।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড