• বুধবার, ০৩ জুন ২০২০, ২০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ইবিতে মুক্তির আহ্বান ও শাশ্বত মুজিব ম্যুরাল উন্মোচন

  ইবি প্রতিনিধি

১৮ মার্চ ২০২০, ১১:৪৮
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়
দুই ম্যুরাল উন্মোচন (ছবি : দৈনিক অধিকার)

মুজিববর্ষ উপলক্ষে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে (ইবি) বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের সামনে দৃষ্টি নন্দন দুটি ম্যুরাল উন্মোচন করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৭ মার্চ) সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী এ ম্যুরাল দুটির শুভ উদ্বোধন করেন।

উদ্বোধন শেষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের আয়োজনে মুজিববর্ষ উপলক্ষে বেলুন উড়িয়ে কেক কাটা হয়। পরে এক সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. তপন কুমার জোদ্দারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন উর রশিদ আসকারী। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. শাহীনুর রহমান ও কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. মো. সেলিম তোহা।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- মুজিববর্ষ উদযাপন উপকমিটির আহ্বায়ক ড. মাহবুবর রহমান, প্রক্টর ড. পরেশ চন্দ্র বর্ম্মন, ছাত্র উপদেষ্টা ড. সাইদুর রহমান, বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীবৃন্দ।

এ সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. তপন কুমার জোদ্দার বলেন, ‘মনের মধ্যে একটা সুপ্ত বাসনা ছিল, যার নাম ধারণ করে এই জায়গাটি দাঁড়িয়ে রয়েছে তা সারাজীবনের জন্য শিল্প কর্মের মাধ্যমে এই হলের ছাত্রদের উপহার দেওয়া।’

তিনি বলেন, ‘এরই ধারাবাহিকতায় যখন আমি খুঁজতে গেলাম তখন দেখলাম যে মানুষটির আপাদমস্তক শিল্প, তার কোন শিল্পকর্মটি আমরা বেছে নেব। ৭ মার্চের ভাষণটি আমরা বেছে নিলাম। কারণ এটি এমন একটি শিল্পকর্ম যা কবির কাছে মনে হবে শ্রেষ্ঠ কবিতা, সাহিত্যিকের কাছে মনে হবে এটি সেরা সাহিত্য, রাজনীতিবিদের কাছে এটি হবে সেরা ভাষণ, ইতিহাসবিদের কাছে এটিই বাঙালি জাতির মুক্তির সনদ। কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে এর মধ্যে শুধু বাঙালি জাতির নয়, সারা বিশ্বের মুক্তিকামী পরাধীন মানুষের সকল সনদ রয়েছে। বঙ্গবন্ধু শুধু ইট পাথরে নয়, অন্তরে চিন্তা চেতনায় ধারণ করতে হবে।’

আরও পড়ুন : এতিমদের মাঝে বঙ্গবন্ধু পরিষদের খাবার বিতরণ

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য বলেন, ‘দায়িত্ব গ্রহণের পর প্রতিজ্ঞাবদ্ধ ছিলাম যে এই শাশ্বত মুজিব ও তার স্মৃতি আমরা ১৭৫ একরের প্রায় প্রতিটি জায়গায় স্থাপন করব।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর ভাষণটি সাড়ে সাত কোটি মানুষকে আলোড়িত করেছে, এখন সারা বিশ্বকে আলোকিত করছে, এ ভাষণের স্বীকৃতি এখন ইউনেস্কো দিয়েছে। এটি আমাদের জন্য অনন্য দলিল, বাঙালি জাতির ম্যাগনাকার্টা।’ 

উপাচার্য আরও বলেন, ‘মুক্তির আহ্বান ও শাশ্বত মুজিব মুজিববর্ষের প্রথম দিনে ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য সবচাইতে বড় সফলতা এবং অর্থবহ চমক হিসেবে আমরা এটাকে স্বীকৃতি দিয়ে দেই।’

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড