• বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬  |   ৩৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বর্ধন প্রকল্পেই কুবির সৌন্দর্য ম্লান

  আহমেদ ইউসুফ, কুবি প্রতিনিধি

১০ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ২০:৩৪
কুবি
মরে যাওয়া ফুল গাছ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুবি) অভ্যন্তরীণ পরিবেশের উন্নয়নে ২০১৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে সৌন্দর্য বর্ধন প্রকল্প হাতে নেওয়া হয়। কিন্তু বর্ধন প্রকল্পেই ম্লান ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য।

সরেজমিনে দেখা যায়, মূল ফটকের সামনে, প্রশাসনিক ভবনের সামনে, নতুন নির্মিত চার লেনের রাস্তার আইলেনে, বঙ্গবন্ধু ভাস্কর্যের সামনে, বিশ্ববিদ্যালয়ের জিরো পয়েন্টে, এবং অন্যান্য স্থানে প্রকল্পের আওতাধীন বিভিন্ন রঙের ফুল গাছ লাগানো হয়।

এর মধ্যে কয়েক জাতের গাছ থাকলেও গাঁদা ফুলের পরিমাণ প্রায় এক তৃতীয়াংশ। বাকি ছোট বড় কিছু জাতের ফুল থাকলে তা যৎসামান্য। ইতোমধ্যে তা মরে ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য হারিয়েছে। এতে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন শিক্ষার্থীরা।

সৌন্দর্য বর্ধন প্রকল্পে অব্যবস্থাপনার কারণে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের তুমুল সমালোচনার ঝড় ওঠে। অনেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের নার্সারির সঙ্গে প্রকল্পের তুলনা করে ব্যঙ্গও করেন। কিন্তু এতেও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির টনক নড়েনি। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০১৯ সালের মাঝামাঝি সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ সোহরাব উদ্দীনকে প্রধান করে সৌন্দর্যবর্ধন প্রকল্পের জন্য সাত সদস্যবিশিষ্ট কমিটি গঠন করা হয়। প্রকল্পের মোট বাজেট ছিল ৫৩ লাখ টাকা। যার মধ্যে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য বর্ধন ছিল অন্যতম। কিন্তু পর্যাপ্ত পরিকল্পনা না থাকায় এবং অদক্ষতার কারণে সৌন্দর্য বর্ধনের নামে বিশ্ববিদ্যালয়কে ম্লান করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের লোকপ্রশাসন বিভাগের ২০১৭-১৮ বর্ষের শিক্ষার্থী রাকিব হাসান ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ‘একটি দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ হলো বিশ্ববিদ্যালয়। কিন্তু সেখানের পরিকল্পনাও যদি এত খারাপ হয় তখন দুঃখ প্রকাশ করার জায়গা থাকে না। শিক্ষার্থীদের মতামত নিয়ে কি সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ করা যেত না? কিন্তু আমাদের প্রশাসন সবকিছু একাই বুঝেন। আর তাদের নিজেদের মতো করে কাজ করেন।’

আরও পড়ুন : উপাচার্যের অপসারণ চেয়ে জাবিতে ঝাড়ু মিছিল

বিষয়টি নিয়ে কথা বলতে গেলে সৌন্দর্যবর্ধন কমিটির আহ্বায়ক সোহরাব উদ্দীন বলেন, ‘আমরা যে গাছগুলো লাগিয়েছি সেগুলো বেশিরভাগ মৌসুমি। যে গাছ গুলো মরে গেছে সেগুলো তুলে নতুন করে গাছ লাগানো হবে। আগামীকাল আমরা কমিটির সদস্যরা পরিদর্শন করব।’ 

তবে কবে নাগাদ নতুন গাছ লাগানো হবে বা প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করবে সে বিষয়ে তিনি কিছুই জানান নি।

ওডি/এমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড