• রবিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬  |   ১৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হারানির মৃত্যুতে বাকৃবিতে শোক সভা

  বাকৃবি প্রতিনিধি

১৫ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৪৮
শোক সভা
বাকৃবিতে অনুষ্ঠিত শোক সভা (ছবি : দৈনিক অধিকার)

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) ভেটেরিনারি অনুষদের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মালয়েশিয়ার নাগরিক হারানি জানাকি রামানের অকাল মৃত্যুতে শোক সভা করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (১৪ নভেম্বর) দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদীন মিলনায়তনে এই শোক সভার আয়োজন করা হয়।

শোক সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন- উপ-উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো জসিমউদ্দিন খান, ছাত্র বিষয়ক উপদেষ্টা ছোলায়মান আলী ফকির, ভেটেরিনারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. নাজিম আহমাদ, বাউরেসের পরিচালক অধ্যাপক ড. মো. আবু হাদী নুর আলী খান, বেগম রোকেয়া হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মো. জিয়াউল হক, প্রক্টর অধ্যাপক ড. মো. আজহারুল হক।

এছাড়াও বিভিন্ন অনুষদের শিক্ষক-শিক্ষার্থী, কর্মকর্তা-কর্মচারীরা উপস্থিত ছিলেন। এ সময় সবাই হারানির মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন এবং শিক্ষার্থীদের উন্নত স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে আলোচনা করেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপাচার্য বলেন, ‘হারানির অকাল মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের হতে হবে শিক্ষার্থীবান্ধব। শিক্ষার্থীদের নিজের সন্তানের মতো দেখতে হবে। তাদের সকল সুবিধা-অসুবিধা নিজের মনে করে সমাধানের চেষ্টা করতে হবে। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল সমস্যা সমাধানে ছাত্র-শিক্ষক, কর্মকর্তা-কর্মচারী সকলকে এক হয়ে কাজ করতে হবে। বাকৃবিকে সম্পূর্ণ দুর্নীতি ও মাদকমুক্ত ক্যাম্পাসে পরিণত করতে সবার সহায়তা কামনা করছি।’

সভা শেষে প্রশাসনের আশ্বাসে শিক্ষার্থীরা তাদের আন্দোলনের কর্মসূচির সমাপ্তি ঘোষণা করেন এবং আগামী রবিবার (১৭ নভেম্বর) থেকে সকল ক্লাস ও পরীক্ষায় অংশ নেবেন বলে ঘোষণা দেয়।

অপর দিকে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক সমস্যা রয়েছে এটা সত্য। হেলথ কেয়ারে সঠিক সেবা পাওয়া যায় না, এত শিক্ষার্থীর জন্য মাত্র দুটি অ্যাম্বুলেন্স। হলের ডাইনিংয়ে খাবারের নিম্নমান। হলে ওয়াইফাই সমস্যা। রাস্তা মেরামত প্রয়োজন। সেমিস্টার ফিসহ অন্যান্য ফি অনলাইনে করা ইত্যাদি এসব সমস্যা সমাধান প্রয়োজন। ক্ষমতাসীন ছাত্র সংগঠনের নেতৃবৃন্দ সাধারণ শিক্ষার্থীদের নিয়ে এসব দাবি নিয়ে কাজ করলে এসব কোনো সমস্যাই থাকত না। তারা চাইলে কয়েকদিনে এসব সমস্যা সমাধান বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন করতে বাধ্য। কিন্তু তারা সবসময়ই কিছু নিদিষ্ট সময়ে এসব দাবি নিয়ে কাজ করে।’

অনুসন্ধানে জানা গেছে, গত ৯ নভেম্বর (শুক্রবার) সাড়ে ৮টার দিকে হারানি জানাকি অসুস্থ হয়ে রাত ১টা ১৫ মিনিটে মারা যায়। সে সময় হেলথ কেয়ারের একটি অ্যাম্বুলেন্স অন্য রোগী নিয়ে বাইরে থাকায় অটো নিয়ে সহপাঠী ও হলের কর্মচারী তাকে হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে শনিবার থেকে দুইজন ড্রাইভার নিয়োগ দেওয়া হয়। এর পূর্বেও হারানি অসুস্থ হয়েছিল। সেদিন সহপাঠীরা কেউ হল প্রশাসন বা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে বিষয়টি অবহিত করেনি এবং করতে দেয়নি । মারা যাওয়ার পর হলের প্রভোস্ট, অনুষদের ডিন, শিক্ষক সমিতির সভাপতি, হলের কর্মচারী উপস্থিত হন। পরিবার মৃত্যুর বিষয়টি প্রকাশ করতে চায়নি। বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রায় ৩৪ জন বিদেশি শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত আছেন। শিক্ষার্থীদের এই আন্দোলনে তাদের দেখা যায়নি। শুধুমাত্র মোমবাতি প্রজ্বলন অনুষ্ঠানে তারা উপস্থিত ছিলেন। অনুসন্ধানে আরও জানা যায়, বিদেশি শিক্ষার্থীরা গত সোমবারের পরীক্ষা দেওয়ার জন্য শিক্ষকের কাছে যায়।

ওডি/এসএসকে

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড