• শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১১ ফাল্গুন ১৪৩০  |   ১৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

জাবিতে গণরুমের 'তিন বছর' ফিরে চান ৪৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা

  জাবি প্রতিনিধি

১৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫:৪০
জাবি

বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়ার পর তিন বছর গণরুমে ছিলেন এমন অভিযোগ তুলে হল কর্তৃপক্ষের কাছে ৩ বছর ফিরিয়ে চেয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) মীর মশাররফ হোসেন হলের ৪৬তম ব্যাচের আবাসিক শিক্ষার্থীরা।

রবিবার (১২ ফেব্রুয়ারি) হল অফিস সংলগ্ন সড়কে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ শুরু করেন তারা। প্রায় ৪০ জন শিক্ষার্থী একসাথে বিভিন্ন শ্লোগান দিতে থাকেন। তারা বলতে থাকেন, 'গণরুমের ৩ বছর ফিরিয়ে দাও, ফিরিয়ে দাও'। শিক্ষার্থীরা হল প্রভোস্ট অধ্যাপক সাব্বির আলমকে বলেন, 'এই হলের একজন ধর্ষণ করেছেন, তার শাস্তি হোক কিন্তু সবার উপর কেন এর চাপ পড়বে', 'অন্যান্য হলে ৪৬ ব্যাচ থাকলে এই হলে কেন থাকতে পারবে না', '১৫ জন বামের আন্দোলনে আমাদের হল ছাড়তে হলে আমাদের ১০০ জনের আন্দোলনেও কেন তাদের বিচার হচ্ছে না'।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী বলেন, 'হলে এখনও ৪৪ ব্যাচ ও ৪৫ তম ব্যাচের শিক্ষার্থীরা বহাল তবিয়তে আছেন। তাদেরকে কিছু না বলে ৪৬তম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের গণহারে হল ছাড়তে বলা হচ্ছে। তাহলে আমরা তো গণরুমে ৩ বছর ছিলাম এখন সেটা ফিরিয়ে দেওয়া হোক। তাদের মাধ্যমে পরিবর্তন শুরু হলে আমরা মানতে রাজি।'

এ বিষয়ে হল প্রাধ্যক্ষ অধ্যাপক সাব্বির আলম বলেন, "সুযোগসন্ধানী কেউ হয়তো সুবিধা নিতে চাচ্ছে। এখানে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করেছে এবং তাদের দাবি জানিয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে তাদের দাবি জানানো হয়েছে এবং প্রশাসন এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নিবে।"

এর আগে গত ৩ ফেব্রুয়ারি বহিরাগত এক দম্পতিকে বিশ্ববিদ্যালয়ে ডেকে এনে স্বামীকে মীর মশাররফ হোসেন হলে আটকে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এরপর শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের প্রেক্ষিতে মেয়াদোত্তীর্ণ শিক্ষার্থীদের আবাসিক হল ছাড়ার জন্য ৫ কর্মদিবস সময় নির্ধারণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেট।

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড