• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

হাবিপ্রবিতে এনরোলমেন্ট অর্থ সহায়তায় দুই ব্যাচের শিক্ষার্থীদের হয়রানি

  হাবিপ্রবি সংবাদদাতা

২৩ নভেম্বর ২০২২, ১৫:৫৭
হাবিপ্রবিতে এনরোলমেন্ট অর্থ সহায়তায় দুই ব্যাচের শিক্ষার্থীদের হয়রানি

দিনাজপুরের হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (হাবিপ্রবি) প্রায় চার বছর পর শিক্ষার্থীদের ট্রাস্টি বোর্ড এনরোলমেন্ট সহযোগিতা দেওয়া হয়েছে। সেখানে আবেদন ও ভাইভা দেওয়ার পরেও বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৭ ও ২০ ব্যাচের শিক্ষার্থীরা কেউই এনরোলমেন্ট সহযোগিতার জন্য নির্বাচিত হয়নি। এনরোলমেন্ট সহায়তার নামে তাদের হয়রানি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে দুই ব্যাচের শিক্ষার্থীরা।

১৭ ব্যাচের গণিত বিভাগের শিক্ষার্থী ইসরাত জাহান রিপা ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, এনরোলমেন্ট সহায়তা পাওয়ার জন্য অনেকগুলো নথিপত্র জমা দিতে হয়েছে। সেগুলো পূরণ করে বিভাগীয় চেয়ারম্যান, ডিনের স্বাক্ষর, প্রশাসনিক ভবনে ঘুরে ঘুরে মার্কশীট সহ বাবা-মায়ের আয়ের সনদপত্র সংগ্রহ করে জমা দিলাম। প্রশাসন থেকে আমার ভাইভা পর্যন্ত নেয়া হলো। স্যার আশ্বাসও দিলেন তোমার বিষয়ে আমি সুপারিশ করবো। অথচ শেষ পর্যন্ত আমাদের কাউকেই এই সহায়তা দেয়া হলো নাহ।

বিশ্ববিদ্যালয় আমাদের সহায়তা না করতে পারলে নোটিশে ব্যাচ উল্লেখ করে দিতো। কিন্তু এভাবে আমাদের হয়রানী করার কোনো অধিকার বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের নেই।

তিনি আরও বলেন, যখন আবেদন চাওয়া হয়েছে তখন আমরা লেভেল ৪, সেমিস্টার-১ এর শিক্ষার্থী। প্রশাসন সেই আবেদন এর ফলাফল প্রকাশ করে যে দীর্ঘ সময় নিয়েছে এটা তাদের ব্যর্থতা। কিন্তু আমাদের সহায়তার নামে হয়রানি মোটেই কাম্য নয়।

এই শিক্ষার্থী অভিযোগ করে বলেন, কাগজ গুলো জমা নেয়ার সময়ও দায়িত্বরত ব্যক্তি আমার সাথে খুবই বাজে আচরণ করেছেন। আমার বাবা নেই, এজন্য আয়ের সনদপত্র জমা দেই নাই। কিন্তু উনি কোনভাবেই এটা বুঝতে চাচ্ছিলেন না। একপর্যায়ে আমার বাবার ডেথ সার্টিফিকেটও চেয়ে বসেন তিনি।

২০ ব্যাচের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থী হাবিবুল্লাহ কাদেরী বলেন, আমি লক্ষ্য করেছি এনরোলমেন্ট অর্থ সহযোগিতা শুধু ১৮ ও ১৯ ব্যাচের শিক্ষার্থীরাই পেয়েছে। মনে হয়েছে ২০ ব্যাচকে অবজ্ঞা করা হয়েছে। যেহেতু এই ব্যাচের কেউ পায় নি। যদি ট্রাস্টি বোর্ড এনরোলমেন্ট সহযোগিতা নোটিশে বলে দেওয়া হতো কোন ব্যাচ পাবে কোন ব্যাচ পাবে না তাহলে ভালো হতো। এটা একধরনের হয়রানি করা হয়েছে ছুটির সময়ে ক্যাম্পাসে এসে নথি পত্র সংগ্রহ করে বিভাগীয় চেয়ারম্যানের স্বাক্ষর নিয়ে জমা দিতে হয়েছে।

চলতি বছরের গত ১৩ এপ্রিল বোর্ড অব ট্রাস্টি হতে জানুয়ারি-জুন ২০২২ সময়কালের এনরোলমেন্টে অর্থ সহযোগিতা পেতে অসচ্ছল শিক্ষার্থীদের নিকট থেকে আবেদন আহ্বান করে বিজ্ঞপ্তি দেয় হাবিপ্রবির ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগ (ছাপনিবি)। যে সকল স্নাতক শিক্ষার্থীর পূর্ববর্তী সেমিস্টারের সব বিষয়ে কৃতকার্যসহ কমপক্ষে জিপিএ ৩.০ থাকবে এবং যাদের অভিভাবকের বাৎসরিক আয় সর্বোচ্চ ২,০০,০০০ (দুই লক্ষ) টাকা কেবল তারাই আবেদন করতে পারবে।

১২ মে পর্যন্ত শিক্ষার্থীদের থেকে আবেদন গ্রহণ করে ছাপনিবি কর্তৃপক্ষ এবং ২৫ জুলাই থেকে আবেদনের ভিত্তিতে ৪৩১ জনের ভাইভা নেওয়া হয়। ১৫ জুনের ভিতর আর্থিক সহায়তা প্রদানের কথা থাকলেও তা বিলম্ব হয়ে ২৮ সেপ্টেম্বর মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনে ১৯৪ জন শিক্ষার্থীকে ২,০০০ (দুই হাজার) টাকা করে এনরোলমেন্ট এ অর্থ সহযোগিতা প্রদান করা হয়। নির্বাচিত ১৯৪ জন শিক্ষার্থী ই ২০১৮ ও ২০১৯ শিক্ষাবর্ষের। ২০১৭ ও ২০২০ শিক্ষাবর্ষের কোনো শিক্ষার্থী অর্থ সহযোগিতা না পাওয়ায় শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন কেন দুই ব্যাচের কাউকেই এই অর্থ সহযোগিতা দেওয়া হলো না।

এ বিষয়ে ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের (ছাপনিবি) সহকারী পরিচালক মো. আব্দুল মোমিন শেখ বলেন, আমার জানামতে ১৭ ব্যাচের শিক্ষার্থীদের স্নাতক শেষ পর্যায়ে আর ২০ ব্যাচ নতুন হওয়ায় তাদেরকে সহায়তা না দেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। আমরা সকল ব্যাচের আবেদনকারী শিক্ষার্থীদের ভাইভা নিয়েছিলাম সেখান থেকে শর্ট লিস্টও করা হয়েছিলো। পরে ট্রাস্টি বোর্ড কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোন কোন ব্যাচকে অর্থ সহযোগিতা দেওয়া হবে আর কতজনকে দেওয়া হবে।

১৭ তম ও ২০ তম ব্যাচের শিক্ষার্থীদের বঞ্চিত হওয়ার ব্যাপারে জানতে চাইলে হাবিপ্রবির ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগের (ছাপনিবি) পরিচালক অধ্যাপক ড. ইমরান পারভেজ বলেন, ১৭ ব্যাচের অধিকাংশ অনুষদের স্নাতক শেষ হওয়ায় এবং ২০ ব্যাচের অধিকাংশ অনুষদের ১ম সেমিস্টারের রেজাল্ট প্রকাশ না হওয়ায় তাদের এনরোলমেন্টে অর্থ সহযোগিতা না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ট্রাস্টি বোর্ড। অর্থ সহায়তায় বিলম্ব যে সকল শিক্ষার্থী বঞ্চিত হয়েছে তাদের জন্য আমাদের পক্ষ থেকে সমবেদনা।

এ দিকে গত নভেম্বরের ১৭ তারিখ জুলাই থেকে ডিসেম্বর ২০২২ সময়কালের জন্য এনরোলমেন্টে অর্থ সহযোগিতা সংক্রান্ত আরেকটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে ছাত্র পরামর্শ ও নির্দেশনা বিভাগ এবং সেখানেও কোনো ব্যাচের কথা উল্লেখ না থাকায় শিক্ষার্থীদের মাঝে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে ছাপনিবি পরিচালক বলেন, এবার চলমান সকল ব্যাচ যাদের পূর্ববর্তী সেমিস্টার এর ফলাফল প্রকাশ হয়েছে এবং শর্ত পূরণ সাপেক্ষে সকলেই অর্থ সহযোগিতা পাবে। আগামী জানুয়ারি মাসের মধ্যেই জুলাই থেকে ডিসেম্বরের এনরোলমেন্ট এর অর্থ সহযোগিতা প্রদান করা হবে।

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড