• বুধবার, ৩০ নভেম্বর ২০২২, ১৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

  রাজশাহী প্রতিনিধি

২২ নভেম্বর ২০২২, ১৫:৪৮
বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ে র‍্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

বিশ্ব এন্টি মাইক্রোবিয়াল সচেতনতা সপ্তাহ উপলক্ষে রাজশাহী বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয় ফার্মেসি বিভাগের উদ্যোগে গতকাল সোমবার সকাল ১০টায় একটি বর্ণাঢ্য র‍্যালি বের করে। র‍্যালিটি রাজশাহী মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব ক্যাম্পাসে আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের কো অর্ডিনেটর প্রফেসর ডক্টর তারান্নুম নাজের সভাপতিত্বে এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর মোহাম্মদ ওসমান গনি তালুকদার, প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের ডীন প্রফেসর ডক্টর শীতেশ চন্দ্র বসার ও রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক প্রফেসর ড. আজিজুল হক আজাদ, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর আশিক মোসাদ্দেকসহ অনেকে।

আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ডক্টর ওসমান গনি তালুকদার বলেন, যতই দিন যাচ্ছে ততই আমাদের সচেতনতার অভাবে এন্টিবায়োটিক ঔষধ মানব শরীরে কাজ করতে অক্ষম হয়ে পড়ছে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশের আনাচে-কানাচে ফার্মেসিতে ফার্মাসিস্ট না থাকায় এবং ঔষুধ সম্পর্কে আমাদের সচেতনতার অভাবে সর্দি-কাশির মতো উপসর্গেও আমরা হায়ার অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করে থাকি, এটা অত্যন্ত বিপদজনক। আবার গবাদি পশু পাখির মাধ্যমেও হায়ার এন্টিবায়োটিক আমাদের শরীরে প্রবেশ করছে এ দিক থেকেও আমাদের সচেতন হতে হবে।

ডক্টর ওসমান গনি তালুকদার বলেন, আবার অনেকে ফার্মেসি থেকে এন্টিবায়োটিক কিনে পুরো কোর্স কমপ্লিট না করেই খাওয়া শেষ করছে যেটি সবচেয়ে বড় বিপদজনক। এর ফল আমাদেরকে ভবিষ্যতে ভোগ করতে হবে। এখনো যদি সচেতন না হয় তাহলে সাধারণ জ্বর সর্দি কাশিতেও আমাদেরকে মৃত্যুমুখে পতিত হতে হবে। তাই সাধারণ মানুষের মাঝে এন্টি মাইক্রোবিয়াল সচেতনতা বৃদ্ধি করা ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প নাই।

প্রধান আলোচক ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের ডীন প্রফেসর ডক্টর শীতেশ চন্দ্র বসার বলেন, সাধারণ মানুষের মাঝে অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল সচেতনতা সৃষ্টি করাই হবে আমাদের মূল লক্ষ্য। প্রান্তিক পর্যায়ের জনগণ যদি এন্টি মাইক্রোবিয়াল সম্পর্কে সচেতন হয়, দেশের আনাচে-কানাচে অবস্থিত ফার্মেসি গুলোতে যদি প্রশিক্ষিত ফার্মাসিস্ট এর উপস্থিতি নিশ্চিত করা যায়, তবে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এন্টি মাইক্রোব্যাল সম্পর্কে যে সতর্ক বাণী দিয়েছেন, সেটির ভয়াবহতা অনেকটাই প্রতিহত করা যাবে।

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ উপাচার্য প্রফেসর ড. আশিক মোসাদ্দেক বলেন, অ্যান্টিবায়োটিকের ভয়াবহতা সম্পর্কে দেশের অধিকাংশ মানুষই সচেতন নয়, এটি একটি সবচেয়ে ভয়ের কারণ। আপনি যদি সচেতন হন তাহলে আপনি নিজে সুরক্ষিত থাকতে পারবেন, পাশাপাশি আপনার পরিবারকে সুরক্ষিত রাখতে পারবেন। এবং আপনার সচেতনতাই তাই পারে সমাজকে ভয়াবহ দুর্ভোগ থেকে বাঁচাতে।

তার মতে, এক্ষেত্রে ফার্মাসিস্টদের ভূমিকা সবচেয়ে অগ্রগণ্য। তোমরা তোমাদের মেধা মনন ও কাজের প্রতি ভালোবাসা দিয়ে দেশের মানুষকে সচেতন করতে প্রাণপণ চেষ্টা করে যাবে এটাই আমরা প্রত্যাশা করি।

বরেন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়ের ফার্মেসি বিভাগের কো অর্ডিনেটর তারান্নুম নাজ সভাপতির বক্তব্য বলেন, আমি অস্ট্রেলিয়াতে তিন বছর ছিলাম সেখানকার মানুষ স্বাস্থ্য সম্পর্কে যে সচেতন তা অবাক করার মতোই, সেখানকার ডাক্তারেরাও রোগীদের সাথে এমন বন্ধুত্ব সুলভ আচরণ করে এবং রোগীর পূর্ণ জীবন বৃত্তান্ত শুনে এবং ডায়াগনস্টিক রিপোর্ট দেখার পরেই খুবই অল্প পরিমাণে ঔষধ ব্যবহার করে। মূলত তারা এন্টিবায়োটিক ছাড়াই রোগটি নিরাময় করা যায় কিনা সে সম্পর্কে বেশ তৎপর থাকে।

তিনি আরও বলেন, আমাদের দেশের সাধারণ মানুষকেও অ্যান্টিবায়োটিক সম্পর্কে সচেতন হতে হবে এবং ডাক্তারদেরকেও আরও বেশি আন্তরিক হয়ে রোগীদের অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহারের ভয়াবহতা সম্পর্কে সচেতন করতে হবে, তবেই আমরা আগামী দিনগুলোতে এন্টিবায়োটিক রেজিস্ট্যান্স থেকে মুক্ত থাকতে পারবো।

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড