• রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বছর ব্যবধানে তিন দফায় বেড়েছে ডাইনিং ফি, বাড়ে না খাবারের মান

  চুয়েট প্রতিনিধি

১৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১৩:০৯
চুয়েট

গত দশ মাসে চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (চুয়েট) আবাসিক হলগুলোর ডাইনিং ফি তিন দফা বেড়েছে। ১৫০০ টাকা থেকে ফি বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৪০০ টাকায়। আবাসিক হলগুলোর খাবারের খরচের পরিমাণ বাড়লেও বাড়েনা খাবারের গুনগত মান।

গত সোমবার (১২ সেপ্টেম্বর) চুয়েটের শেখ রাসেল হলের নতুন মাসের ডাইনিং ফির একটি নতুন নোটিশ প্রকাশিত হবার পর বিশ্ববিদ্যালয় জুড়ে ব্যাপক আলোড়ন সৃষ্টি হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রকল্যাণ দপ্তরের নির্দেশে প্রকাশিত নোটিশটিতে নতুন মাসের ডাইনিং ফি ২১০০ টাকা থেকে ২৪০০ টাকা করার বিষয়টি উল্লেখ করা হয়। হুটকরে ডাইনিং ফি বাড়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তৎক্ষণাৎ প্রতিক্রিয়া জানায়। কোনো রকম পূর্বাভাস ছাড়া এ ফি বৃদ্ধি সাধারণ শিক্ষার্থীদের মনে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি করে।

করোনা মহামারীর কারণে বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধের আগে অনেক বছর যাবৎ হলগুলোর ডাইনিং ফির পরিমাণ ১৫০০ টাকা ছিল। বন্ধের পর দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি কারণ দেখিয়ে গত জানুয়ারি মাসে ডাইনিং ফির পরিমাণ বাড়িয়ে ১৮০০ টাকা করা হয়। এক মাস না পার হতেই আবারও এ ফি বাড়িয়ে ২১০০ টাকা করা হয়। যেখানে প্রতি বেলা খাবার খরচ ২৫ টাকা থেকে ৩০, এরপর ৩৫ এবং পরিশেষে ৪০ টাকায় উন্নিত করে। এভাবে দফায় দফায় খাবারের খরচ বাড়ালেও মানসম্মত খাবার পরিবেশনের দিকে উদাসীন প্রশাসন। আর এখানেই ক্ষুব্ধ সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

সাধারণ শিক্ষার্থীদের সাথে যোগাযোগ করে জানা যায়, খাবারের দাম বাড়লেও মানের উন্নতি না হলেও বিপরীতে অবনতি হয়েছে এবং হল কর্তৃপক্ষ এসব বিষয়ে উদাসীন,নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অনেক শিক্ষার্থী এমন অভিযোগ জানান। তবে ড.কুদরতে খুদা হলের সহকারী প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. আরাফাত রহমান বলেন,হলের খাবারের মান ঠিক আছে কি না তা নিয়মিত তদারকি করা হয়।

শেখ রাসেল হলে চলমান মাসের ডাইনিং ম্যানেজারদের সাথে যোগাযোগ করে জানা যায়, সারাদেশে যে হারে দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়ে, চুয়েট সংলগ্ন পাহাড়তলী বাজারে তার চেয়ে বেশি বাড়ে। স্থানীয় সিন্ডিকেটের কারণে অপেক্ষাকৃত বেশি দামে খাবার কিনা লাগে। তাই বারবার ফি বাড়িয়েও দামের সাথে সামঞ্জস্য করা যাচ্ছে না।

এ বিষয়ে চুয়েটের ছাত্র কল্যাণ দপ্তরের পরিচালক অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান,বাজারে নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যের দাম বেড়েই চলেছে। তাই আগের খরচে ডাইনিং পরিচালনা সম্ভব হচ্ছিল না। সেজন্য খরচের নিমিত্তে ডাইনিং ফি বাড়ানো হয়েছে। খাবারের মানের বিষয়টিও আমরা নজর দিয়েছি, গুনগত মান বাড়ানো হবে।

প্রসঙ্গত, দেশে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলগুলোতে খাবারের উপর ভর্তুকি দিয়ে দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি সাথে সামঞ্জস্য বজায় রাখা হয়। কিন্তু চুয়েটে হলগুলোর ডাইনিংএ এমন কোনো ভর্তুকি দেওয়া হয় না। উল্লেখ্য চুয়েটে ছাত্রদের জন্য ৫ টি এবং ছাত্রীদের জন্য ২ টি আবাসিক হলে প্রায় সাড়ে তিন হাজারের বেশি শিক্ষার্থী অবস্থান করেন।

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড