• রোববার, ০২ অক্টোবর ২০২২, ১৮ আশ্বিন ১৪২৯  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

মেধাতালিকা ও জ্যেষ্ঠতার ভিত্তিতে হাবিপ্রবি'র ছাত্রী হলের আসন বরাদ্দ

  হাবিপ্রবি প্রতিনিধি:

০৯ আগস্ট ২০২২, ১৩:১৪
হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে

হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের নবনির্মিত আবাসিক ছাত্রী হলের আসন বরাদ্দের ক্ষেত্রে প্রাধান্য দেয়া হবে জ্যেষ্ঠ (সিনিয়র) শিক্ষার্থীদের ও একই ব্যাচের ক্ষেত্রে মেধাতালিকা (সিজিপিএ) বিবেচনা করা হবে, এক্ষেত্রে কোন ধরনের লবিং বা সুপারিশের সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন উদ্বোধন এর অপেক্ষায় থাকা চতুর্থ ছাত্রী হলের হল সুপার অধ্যাপক ড.আফরোজা খাতুন।

গত ৫ এপ্রিল শিক্ষার্থীদের কাছে হলের সিট বরাদ্দের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৬-১৭ ও ২০১৭-১৮ সেশনের শিক্ষার্থীদের কাছে আবেদন চেয়ে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে হল প্রশাসন। সে সময় আবেদন জমা দেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৭০০ জন শিক্ষার্থী।

নবনির্মিত এই হলে আসন সংখ্যা ৬৪৮ টি । এর মধ্যে আইভি রহমান হলের উন্নয়ন কার্যক্রমের জন্য সেই হলের প্রায় ২৫০ শিক্ষার্থীকে নতুন হলে স্থানান্তর করা হবে। আবেদন জমা দেয়া শিক্ষার্থীদের মধ্যে ২২০ জন চতুর্থ ও ৫০০ শিক্ষার্থী ৩য় বর্ষের। চতুর্থ বর্ষের আবেদন জমা দেয়া প্রত্যেক শিক্ষার্থীই সিট বরাদ্দ পাবেন। তবে ৩য় বর্ষের শিক্ষার্থীদের অনুষদ অনুযায়ী ভাগ করে নির্দিষ্ট সংখ্যক শিক্ষার্থীকে আসন বরাদ্দ দেয়া হবে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীদের রেজাল্ট কে প্রাধান্য দেয়া হবে বলে জানান হল সুপার।

নতুন ছাত্রী হলের হল সুপার অধ্যাপক ড.আফরোজা খাতুন আরও বলেন, আমাদের কাছে আসা আবেদনগুলো যাচাই-বাছাই প্রক্রিয়া শেষ। হলের সব কাজ শেষ হলেই সিট বরাদ্দ পাওয়া শিক্ষার্থীদের তালিকা আমরা প্রকাশ করবো। ইতিমধ্যে আমরা বিল্ডিং বুঝে নিয়েছি এবং ৫০০ রুমের আসবাবপত্রের সরবরাহ দুই-তিনের মধ্যে হয়ে যাবে। বাকি রুমের আসবাবপত্র তৈরির কাজ চলতেছে। আশা করছি খুব দ্রুতই আমরা শিক্ষার্থীদের হলে তুলতে পারবো।

নতুন হল নিয়ে অনুভূতি প্রকাশ করে সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানান, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ের সবথেকে দৃষ্টিনন্দন হলে ওঠার জন্য আমরা মুখিয়ে আছি, আবাসন সংকটের কারণে আমাদের অতিরিক্ত খরচ বহন করে বিভিন্ন মেসে থাকতে হচ্ছে। এ হল চালু হলে অনেক শিক্ষার্থী আবাসিক সুবিধা পাবেন। এজন্য তারা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনকে সাধুবাদ জানান পাশাপাশি সিট বরাদ্দের ক্ষেত্রে যেনো কোন অনিয়ম না হয়, মেধাবী ও নিম্নবিত্ত পরিবারের শিক্ষার্থীরা যেনো সিট বরাদ্দ থেকে বঞ্চিত না হয় এবং আবাসন সংকট নিরসনের ধারা হাবিপ্রবি প্রশাসন অব্যাহত রাখবে, এ প্রত্যাশা ব্যক্ত করেন। উল্লেখ্য যে, নবনির্মিত হলের কোনো নাম এখন পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কর্তৃক চূড়ান্ত করা হয়নি।

প্রসঙ্গত, বিশ্ববিদ্যালয়ে বিদেশি শিক্ষার্থীদের একটি হলসহ ছাত্রদের জন্য পাঁচটি আবাসিক হল রয়েছে। অন্যদিকে মেয়ে শিক্ষার্থীদের জন্য মাত্র তিনটি আবাসিক হল রয়েছে। এ হলটি নির্মিত হলে মেয়ে শিক্ষার্থীদের আবাসন সংকট অনেকাংশেই দূর হবে বলে মনে করছেন কর্তৃপক্ষ।

নবনির্মিত এই ছাত্রী হল অন্যান্য হলের তুলনায় বেশ আধুনিক হবে। এতে থাকবে না কোনো গণরুম। মূল ভবনের সাথে নির্মাণ করা হয়েছে একটি তিন তলা ভবন। এতে থাকবে ডাইনিং, জিমনেশিয়াম ও রিডিং রুমের ব্যবস্থা।

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড