• শনিবার, ১৩ আগস্ট ২০২২, ২৯ শ্রাবণ ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

কুবিতে সহকারী প্রক্টর কর্তৃক সাংবাদিক হেনস্থা

  কুবি প্রতিনিধি:

২১ জুলাই ২০২২, ২১:২৪
কুবি

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) উপাচার্যের সাথে শাখা ছাত্রলীগের বিভিন্ন দাবি-দাওয়া নিয়ে বাকবিতবিতণ্ডার ঘটনা ভিডিও করতে গেলে এক সাংবাদিককে হেনস্থা করে বের করে দেন সহকারী প্রক্টর ও গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহাবুবুল হক ভূইঁয়া।

বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১ টায় উপাচার্যের কার্যালয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশ জার্নালের প্রতিনিধি ও লোক প্রশাসন বিভাগের ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী নাঈমুর রহমান রিজভীর সাথে এ ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ছাত্রকল্যাণ ফান্ড গঠন, ছাত্রীদের কমনরুম, ক্যাফেটেরিয়ার খাবারে ভর্তুকিসহ ১৪ দফা দাবিতে মানবববন্ধন করে শাখা ছাত্রলীগ ও সাধারণ শিক্ষার্থীরা। দেড়ঘণ্টার মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কেউ না আসলে উপাচার্য বরাবর স্মারকলিপি প্রদান করতে যায় তারা। পরে চাকরি, টেন্ডারসহ বিভিন্ন বিষয়ে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন উপাচার্য ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। এসময় মুঠোফোনে ভিডিয়ো করতে গেলে সাংবাদিক নাঈমুর রহমান রিজভীকে ভিডিও করার কারণ জানতে চেয়ে সহকারী প্রক্টর মাহাবুবুল হক ভূইঁয়া বলেন, 'আপনি কি করতেছেন? পারমিশন নিছেন? এটা তো আপনি করতে পারেন না।' তখন সাংবাদিক পরিচয় দিলে তিনি বলেন, 'কোথাকার সাংবাদিক? আপনি কি নিউজের জন্য করতেছেন? আপনি তো এটা করতে পারেন না। আপনি পারমিশন নিছেন? এটা তো মামলা করার মতো কাজ করছেন?' পরে সাংবাদিককে হেনস্থা করে উপাচার্য কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন তিনি।

ভুক্তভোগী সাংবাদিক নাইমুর রহমান রিভজী বলেন, উপাচার্যের সাথে ছাত্রলীগের উচ্চবাচ্য হলে আমার পেশাদারিত্বের জায়গা থেকে ভিডিয়ো করি। এসময় ভিডিও করায় একজন সহকারী প্রক্টর আমাকে মামলার হুমকিসহ হেনস্থা করেন। এসময় আমাকে উপাচার্যের কক্ষ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন।

তবে সাংবাদিককে বের করে দেওয়ার বিষয় অস্বীকার করে সহকারী প্রক্টর ও গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মাহাবুবুল হক ভূইঁয়া বলেন, বের হয়ে যাওয়ার কথা আমি বলি নাই। ভাইস চ্যান্সেলর বলছে, পরে আমরা বলেছি। সে সাংবাদিক পরিচয় দেয়নি। সাংবাদিক পরিচয় দেওয়ার পরও মামলার কথা বলার কারণ জানতে চাইলে তিনি বলেন, মামলা করার বিষয় যখন বলেছি তখন জানতাম না সে সাংবাদিক। মামলার বিষয়ে কেন বলছেন জানতে চাইলে তিনি মন্তব্য করতে রাজি নন বলে জানান।

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর ড. কাজী ওমর সিদ্দিকী বলেন, এখানে প্রায় ৫০ জনের মতো লোক ছিল। সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ার পর আমি চেষ্টা করেছি বিষয়টি থামাতে। মামলার বিষয়ে তিনি বলেন, আমি আরেক সাইডে ছিলাম। এ বিষয়ে আমি মন্তব্য করতে চাচ্ছি না।

এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. এ. এফ. এম. আবদুল মঈন বলেন, এ বিষয়ে ঐ শিক্ষকের কাছে জানতে চাইলে ভালো হবে। আমি এ বিষয়ে মন্তব্য করতে চাই না।

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো. তাজবীর হোসাইন  

নির্বাহী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118243, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড