• বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১, ৬ কার্তিক ১৪২৮  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

‘কানাডায় আবেদনের যোগ্যতা হারিয়েছে ৩৩ বিশ্ববিদ্যালয়’ সংবাদটি নিয়ে প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে 

  শিক্ষা ডেস্ক

১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৯:৫৯
গ্র্যাজুয়েশন ক্যাপ
গ্র্যাজুয়েশন ক্যাপ (ছবি : সংগৃহীত)

উচ্চশিক্ষার জন্য তরুণ তরুণীদের অন্যতম পছন্দের দেশ কানাডা। কানাডার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিগ্রি যুক্তরাষ্ট্র এবং উন্নত দেশগুলোর সমতুল্য এবং সারা বিশ্বে কানাডার শিক্ষা প্রতিষ্ঠান থেকে নেয়া ডিগ্রিকে স্বীকৃতি দেয়া হয়।

কানাডার শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর ডিগ্রি বিশ্বের প্রথম সারির দেশগুলোর সাথে তুলনীয় হলেও অধিকাংশ ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের টিউশন ফি এবং থাকার খরচ যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রিটেনের তুলনায় কম। তাই উচ্চশিক্ষার জন্য বাংলাদেশের তরুণদেরও অন্যতম পছন্দের দেশ কানাডা।

কিন্তু দেশের ৩৩ বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্টিফিকেটধারীরা কানাডার জন্য মূল্যায়নের যোগ্যতা হারিয়েছেন বলে সম্প্রতি দেশের একটি গণমাধ্যম খবর প্রকাশ করে। তালিকায় নাম প্রকাশ করা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এবং শিক্ষাবিদগণ জানান সংবাদটি একেবারেই সত্য নয়।

প্রশ্নবিদ্ধ সংবাদ থেকে জানা যায়, ইন্টারন্যাশনাল ক্রেডেনশিয়াল ইভালুয়েশন সার্ভিস (আইসিইএস)- এর ওয়েবসাইটে এ সংক্রান্ত একটি তালিকা দেওয়া হয়েছে।

ওয়েবসাইটটিতে বলা হয়েছে, আইসিইএস সব দেশ থেকে প্রশংসাপত্র মূল্যায়ন করে থাকে। যদিও কিছু দেশে নির্দিষ্ট কিছু আলাদা চাহিদা থাকে। তালিকায় থাকা কিছু প্রতিষ্ঠানের নির্দিষ্ট কোর্সের জন্য মূল্যায়ন দিতে অক্ষম। তবে এর অর্থ এই না যে, সব স্তরের শিক্ষার মূল্যায়ন প্রয়োজন। আবেদনকারীদের অবশ্যই সিদ্ধান্ত নিতে হবে কোনটি এবং কতটি প্রমাণপত্র মূল্যায়ন করতে হবে। কোনো দেশ নির্দিষ্ট প্রয়োজনীয়তা বা বিধিনিষেধ দেখতে দেশভিত্তিক তালিকা দেওয়া হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, আপনার দেশ যদি এ তালিকায় না থাকে, তার মানে এই না যে, আপনার দেশের মূল্যায়ন আমরা করিনি। যদি আপনার দেশ এই তালিকায় না থাকে, তবে নিয়মিত প্রয়োজনীয়তাগুলো অনুসরণ করুন। যেগুলো সাধারণ আবেদনকারীর প্রয়োজনীয়তা বা ইসিএ আবেদনকারীর প্রয়োজনীয়তার (অভিবাসনের জন্য) অধীনে তালিকাভুক্ত। এ তালিকাতেই দেখা গেছে, বাংলাদেশের বেশ কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা উচ্চশিক্ষার জন্য আবেদন করতে পারবেন না কানাডায়।

আইসিইএস দ্বারা বাংলাদেশের ৩৩টি বিশ্ববিদ্যালয়কে মূল্যায়ন করা যায়নি বলে জানানো হয়েছে সংবাদটিতে।

কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা যায় ICAS ছাড়াও অন্যান্য মূল্যায়ন সংস্থা আছে যেমন IQAS, WES ইত্যাদি। যেগুলো দ্বারা কানাডার প্রথম সারির বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে উচ্চ শিক্ষা নেওয়া যায়। সংবাদটিও ভুল এবং অসম্পূর্ণ হওয়ায় অনলাইনে সংবাদের নিচেই পাঠক তাদের সংবাদটির প্রতি নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

একজন পাঠক প্রতিক্রিয়া জানাতে গিয়ে লিখেছেন, ICES আমাদের দেশের উল্লিখিত বিশ্ববিদ্যালয়গুলো কে গ্রহণ করবে না, এটা তাদের পলিসি। তার মানে এই নয়, অন্য কেউ করে না। WES, CES, IQAS আছে তাদের দিয়ে করিয়ে নিন। আর স্টাডি পারমিট এ যাওয়ার জন্য ECA করার প্রয়োজন নেই, অতএব ICES কাকে গ্রহণ করলো, কাকে গ্রহণ করলো না, এটা নিয়ে চিন্তা করা সম্পূর্ণ অবান্তর।

আরেকজন লিখেছেন, আপনাদের সংবাদটি খুব ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। ECA করতে বেশিরভাগ মানুষ IQAS বা WES বেছে নেয়। অন্য আরেকজন পাঠক ইংরেজিতে তার মনের ভাব প্রকাশ করেছেন এভাবে, That’s not correct. Only ICES will not evaluate any degrees awarded by these universities which doesn’t mean grads passing out from these universities are not eligible for applying PR, Jobs here in Canada. They can get their evaluations done from IQAS, CES etc. Thanks.

নিউজের নিচে এমন অসংখ্য পাঠক প্রতিক্রিয়াকে ইঙ্গিত করে শিক্ষা সংশ্লিষ্টগণ নির্দিষ্ট কয়েকটি বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম উল্লেখ করে এ ধরনের সংবাদ প্রকাশ উক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর সুনাম ও ভাবমূর্তি নষ্ট করার অভিপ্রায় বলে তারা মত দেন।

ওডি/এসএস

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড