• শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১২ অগ্রহায়ণ ১৪২৭  |   ২৩ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

৪২-এ পা রাখছে স্বাধীনতাত্তোর দেশের প্রথম বিশ্ববিদ্যালয়

  মুরতুজা হাসান

২১ নভেম্বর ২০২০, ১৬:৪৬
ইবি
ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) (ছবি : দৈনিক অধিকার)

নানা ঘাত-প্রতিঘাত পেরিয়ে দেশের দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের সর্ববৃহৎ বিদ্যাপীঠ ও সবুজ শ্যামল আর অপরূপ সৌন্দর্যে ঘেরা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় রবিবার (২২ নভেম্বর) ৪১ পেরিয়ে ৪২-এ পা রাখছে। স্বাধীনতাত্তোর দেশের প্রথম পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় এটি। এই দীর্ঘ পথ চলায় জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে বিশ্ববিদ্যালয়টির রয়েছে নানা গৌরব অর্জনের ভূমিকা।

দিবস উপলক্ষে সীমিত পরিসরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বিভিন্ন কর্মসূচির আয়োজন করেছে। যার মধ্যে রয়েছে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, প্রশাসন ভবন চত্বরে শান্তি ও আনন্দের প্রতীক পায়রা ও বেলুন উড়িয়ে বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের কর্মসূচির উদ্বোধন, ৪২টি ফলজ ও বনজ গাছের চারা রোপণ, কেক কাটা, বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নতি, শান্তি ও সমৃদ্ধি কামনা করে দোয়া ও মোনাজাত।

এছাড়া সন্ধ্যায় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম এর সভাপতিত্বে এবং বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. কাজী শহীদুল্লাহ এর উপস্থিতিতে অনলাইন আলোচনা সভার (ওয়েবিনার) আয়োজন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়টির যাত্রা শুরু হয় ১৯৭৯ সালের ২২ নভেম্বর কুষ্টিয়া-ঝিনাইদহের শান্তিডাঙ্গা-দুলালপুরে। এরপর ১৯৮৩ সালের ১৮ জুলাইয়ের এক আদেশে বিশ্ববিদ্যালয়টিকে গাজীপুর বোর্ড বাজারে এবং ১৯৯০ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি অপর এক আদেশে কুষ্টিয়ায় স্থানান্তর করা হয়। ১৯৮৫-৮৬ শিক্ষাবর্ষে দুটি অনুষদের চারটি বিভাগে ৩শ’ ছাত্রের ভর্তির মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়টির অ্যাকাডেমিক যাত্রা শুরু হয়।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টির ৮টি অনুষদের ৩৪টি বিভাগে ১৫ হাজার ৩৮৪ শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত। যাদের মধ্যে ছাত্রের সংখ্যা ১০ হাজার ২৯১ এবং ছাত্রী ৫ হাজার ৯৩ জন। বর্তমানে ৩৯৭ জন শিক্ষক শিক্ষাদানে নিয়োজিত রয়েছেন। এছাড়া ৪৫৯ জন কর্মকর্তা, ১৭৭ জন সহায়ক কর্মচারী এবং ১৭৭ জন সাধারণ কর্মচারী বিশ্ববিদ্যালয়ের অগ্রযাত্রায় ভূমিকা রেখে চলেছেন।

বর্তমানে বিশ্ববিদ্যালয়টির পরিবহন পুলে ৪৩টি গাড়ি রয়েছে। এর মধ্যে বাস-মিনিবাস ১৬টি, এসি কোস্টার গাড়ি ৬টি, এ্যাম্বুলেন্স ২টি।

শিক্ষার্থীদের আবাসন সঙ্কট দূরীকরণে হলসংখ্যা ৮টিতে উন্নীত করা হয়েছে, যার মধ্যে পাঁচটি ছাত্রহল এবং তিনটি ছাত্রীহল। এ দিকে ৫ শত ৩৭ কোটি ৭ লাখ টাকার মেগা প্রকল্পের আওতায় ক্যাম্পাসে ৯টি দশতলা ভবন ও ১টি কেন্দ্রীয় বিজ্ঞান গবেষণাগার নির্মাণ, ১২টি ভবনের ঊর্ধ্বমুখী সম্প্রসারণ, গভীর নলকূপ স্থাপন, ২টি ৫০০ কেভি বৈদ্যুতিক সাবস্টেশন, সোলার প্যানেল স্থাপনসহ বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ চলমান।

বিশ্ববিদ্যালয়ের সৌন্দর্যবর্ধনে তৈরি করা হয়েছে ইবি লেক, ফুল বাগান। রোপণ করা হয়েছে বিভিন্ন প্রজাতির ফলজ ও বনজ গাছের চারা। এছাড়া জীববৈচিত্র্যের অনিন্দ্য সুন্দর অনেক স্থাপনা রয়েছে এখানে। এর মধ্যে স্মৃতিসৌধ, শহীদ মিনার, মুক্ত বাংলা অন্যতম। আর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রবেশমুখেই স্থাপন করা হয়েছে দৃষ্টিনন্দন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর প্রতিকৃতি ‘মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব’ মুর‌্যাল। মুজিবীয় চেতনায় স্বদেশ প্রেমে উদ্বুদ্ধ করার লক্ষ্যে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলের ফটকের সামনে এই ম্যুরাল স্থাপন করা হয়েছে। এরই ধারাবাহিকতায় জাতির পিতার আদর্শ বুকে ধারণ করে শিক্ষা, সংস্কৃতির পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের সেচ্ছাসেবী সংগঠনগুলো সারাদেশে মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে সহযোগিতা করে যাচ্ছে। ফলে এই ক্যাম্পাসে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের ও প্রগতিশীল ছাত্র রাজনীতি চর্চা দিনদিন বেগবান হচ্ছে। পাশাপাশি মুক্ত চিন্তার বিকাশে ঘটাতে ছাত্রদের পাশাপাশি ছাত্রীদেরও সাংবাদিকতার সুযোগ করে দিয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও প্রগতিশীলতায় বিশ্বাসী সাংবাদিক সংগঠন ‘ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার্স ইউনিটি।’

বিশ্ববিদ্যালয়টিতে রয়েছে বৃহদাকার জিমনেশিয়াম ও খেলাধুলার জন্য উপযোগী মাঠ। এরই মধ্যে আন্তঃবিশ্ববিদ্যালয় বাস্কেটবল, হ্যান্ডবলে বারবার চ্যাম্পিয়ন হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। পড়ালেখার পাশাপাশি খেলাধুলা, বিতর্ক ও সাংস্কৃতিক অঙ্গনে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের রয়েছে ঈর্ষণীয় সাফল্য।

আরও পড়ুন : ডিসেম্বরের মধ্যেই এইচএসসির ফল, যেভাবে হবে মূল্যায়ন

সর্বোপরি শিক্ষা ও গবেষণাকে আরও মানসম্পন্ন ও বেগবান করা, একুশ শতকের উপযোগী করে শিক্ষার্থীদের দক্ষ মানবসম্পদ রূপে গড়ে তোলা এবং স্বচ্ছতার সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের কর্মকাণ্ড পরিচালনার জন্য ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, কর্মকর্তা, কর্মচারীসহ সকলের সম্মিলিত উদ্যোগী ভূমিকা ও সহযোগিতা প্রত্যাশা করেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম।

লেখক: শিক্ষার্থী ও সাংবাদিক, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: +8801703790747, +8801721978664, 02-9110584 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড