• বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

করোনাতেও থেমে নেই শেকৃবি ছাত্রলীগের চাঁদাবাজি

  আকাশ বাসফোর, শেকৃবি

০৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১০:৩৬
শেকৃবি
শেকৃবি

রাজধানীর শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) শাখা ছাত্রলীগের ৩ নেতা বিরুদ্ধে ক্যাম্পাস পাশের দোকান থেকে চাঁদা দাবির অভিযোগ উঠেছে। অভিযুক্ত ৩ নেতারা হলেন বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক এ কে এম তমাল আব্দুল্লাহ, বিশ্ববিদ্যালয়টির কবি কাজী নজরুল ইসলাম হলের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী আরিফুর রহমান এবং দপ্তর বিষয়ক উপ-সম্পাদক গোলাম রাব্বী খানের (জেনিথ)।

এদের মধ্যে তমাল ও আরিফ নামের দুই ছাত্রলীগ নেতাকর্মী বিশ্ববিদ্যালয়ের ২য় গেইট সংলগ্ন মোটরসাইকেল মেরামতের দোকান মালিক মিজানুর রহমানের কাছে ১০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করেছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী মিজানুর রহমান শেকৃবির সাংবাদিকদের জানান, গত ৪ সেপ্টেম্বর দুপুর ১২টার দিকে তমাল ও আরিফ নামের দুই ছাত্রলীগ নেতা নিজেদেরকে রাসেল গ্রুপের পরিচয় দিয়ে চাঁদা দাবি করে। চাঁদা না দিলে উক্ত দোকানটি উচ্ছেদের হুমকি দেয় এবং বলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১ম গেইটের দোকানগুলো থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মিঠুর অনুসারীরা এবং ২য় গেইটের দোকানগুলো থেকে সাধারণ সম্পাদক মিজানের অনুসারীরা চাঁদা তুলে। তাই এখানে দোকান চালাতে হলে আমাদের চাঁদা দিতে হবে।

তখন তিনি দুজনকে বলেন, ভাই আমার এ ছোট দোকান দিয়ে সংসার চালানো খুব কষ্ট হয়ে যায়। করোনায় ইনকাম হচ্ছেনা । দুইমাস ধরে বাসার ভাড়া দিতে পারিনি। তাই আমাকে কিছুদিন সময় দেন।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের শাখা ছাত্রলীগের উপ-মানব সম্পদ উন্নয়ন বিষয়ক উপ-সম্পাদক হৃদয় হাসান রাসেল বলেন, আমি বিষয়টি জানতামনা। ৭ সেপ্টেম্বর ক্যাম্পাসে আসার পর হঠাৎ জানতে পারি আমার নাম বলে ২ জন ছাত্র ওই দোকান মালিকের কাছে চাঁদা দাবি করে। বিষয়টি জানার পর আমি সাথে সাথে দোকান মালিকসহ শেকৃবি শাখা ছাত্রলীগের মিজানুর রহমানের কাছে যাই এবং নিজেকে নির্দোষ প্রমাণ করি। রাসেল আরও বলেন, ছাত্রলীগের কেউ যেন এরকম ষড়যন্ত্রের শিকার না হয় তাই আমি জড়িতদের উপযুক্ত বিচার চাই। অভিযুক্ত আরিফুর রহমান আরিফ এ বিষয়ে বলেন, আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে সেটা শুনার জন্য আমি মোটেও প্রস্তুত ছিলাম না। আমি মনে করি আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। আমি ক্যাম্পাসে কোনো ধরনের চাঁদাবাজির সাথে জড়িত না এবং ওই দোকান মালিক মিজানুর রহমানকে আমি চিনি না।

কিন্তু অভিযুক্ত অপর ছাত্রলীগ নেতা তমাল বলেন দোকানদারের (মিজানুর রহমান) সাথে আরিফভাইসহ আমাদের কথা হয়েছে। আমরা টাকা চাইতে কখনও সেখানে যাই নি। এগুলো সব সাজানো নাটক। আমরা তো টাকা নেই নি। তাহলে এটা এখানেই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা।

এছাড়াও শাখা ছাত্রলীগের দপ্তর বিষয়ক উপ-সম্পাদক গোলাম রাব্বী খানের (জেনিথ) বিরুদ্ধে নতুন দোকান বসানোর নামে ১০০০টাকা চাঁদাবাজির অভিযোগ পাওয়া যায়।

দোকান মালিক ইয়ার উদ্দিন আনোয়ার নামে দোকানদারের কাছ থেকে অন্য এক দোকানদারের মাধ্যমে এ চাঁদা দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এ বিষয়ে আনোয়ার হোসেন জানান, আমি ক্যাম্পাসের ২য় গেইটের সামনে দোকান বসানোর জন্য ইয়ার উদ্দিনের কাছ থেকে নিয়ে ১০০০ টাকা এই ছাত্রলীগ নেতাকে দেই। পরবর্তীতে তারা দোকান বসানোর অনুমতি দেয়। তবে দোকান মালিক ইয়ার উদ্দিন তা অস্বীকার করে বলেন, আমি কোন চাঁদা দেই নি।

অভিযুক্ত গোলাম রাব্বী খান বলেন, এটি সম্পূর্ণ মিথ্যে, বানোয়াট ও ভিত্তিহীন। আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র চলছে। আমি নির্দোষ এটা আমি এখনও প্রমাণ করতে পারি।

আরও পড়ুন : ছাত্রীকে রেজিস্টারের কু প্রস্তাব, ফোনালাপ ফাঁস

ক্যাম্পাসের গেটের আশেপাশে চাঁদাবাজির অভিযোগের ব্যাপারে জানতে চাইলে শেকৃবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান বলেন , এরকম অভিযোগ আমাদের কাছে এসেছে। তদন্ত সাপেক্ষে জড়িতদের বিরুদ্ধে আমরা সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিব।

আপনার ক্যাম্পাসের নানা ঘটনা, আয়োজন/ অসন্তোষ সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
সব খবর
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড