• সোমবার, ১৪ অক্টোবর ২০১৯, ২৯ আশ্বিন ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রযুক্তি ও দক্ষতার সমন্বিত উৎকর্ষ প্রয়োজন

শত শত নদী বুকে পৃথিবীর মানচিত্রে দাঁড়িয়ে আছে প্রাকৃতিক রূপবৈচিত্র্যের এক মহাকালিক উপাখ্যান পৃথিবীর বৃহত্তম বদ্বীপ বাংলাদেশ। এ দেশের প্রতি ইঞ্চিতে যেন সোনা ছড়ানো। না, এটি কোনো কবির কল্পনাপ্রসূত বাক্যবিলাস নয়; এটি বাস্তব৷ সোনাফলা ধুলিধুসরিত উর্বর মাটি এবং প্রাকৃতিক সম্পদের আধার নদীমাতৃক এ দেশের ভূমিরূপ, ভৌগোলিক অবস্থান ও ভূপ্রতিবেশ অনন্যসাধারণ স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্যে সমুজ্জ্বল৷ তাই তো খাদ্যনিরাপত্তা। ঝুঁকি, দূষণ, মাত্রাতিরিক্ত জনসংখ্যার চাপ এবং প্রতি বছর বন্যা, ঝড়, খরা, নদীভাঙন ইত্যাদি নানান প্রাকৃতিক দুর্যোগ সত্ত্বেও সকল প্রতিবন্ধকতাকে প্রতিহত করে বাংলাদেশ ও এর অর্থনীতি এগিয়ে চলেছে দারুণ গতিতে।

এ দেশে প্রাপ্ত প্রাকৃতিক সম্পদগুলোর মধ্যে প্রাকৃতিক গ্যাস, খনিজ তেল, চুনাপাথর, বনাঞ্চল, চাষোপযোগী জমি, ও অন্যান্য খনিজ সম্পদ অন্যতম। প্রাকৃতিকভাবে প্রাপ্ত এ সম্পদগুলো দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতিতে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে। কিন্তু এটাও খেয়াল রাখতে হবে যে প্রাকৃতিক এসব সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিত করাও অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ব্যাপার৷ আর এটি নিশ্চিত করা গেলে দেশের সার্বিক উন্নয়ন-অগ্রগতি ত্বরান্বিত করার ক্ষেত্রে আমাদের গুণগত উৎকর্ষ সাধিত হবে৷ কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক বাস্তবতা হচ্ছে, নানাবিধ বহুমুখী প্রতিবন্ধকতার দরুণ প্রাকৃতিক সম্পদের সুষ্ঠু ব্যবহার নিশ্চিতে আমাদের অর্জন প্রায় শূন্য এবং এ অবস্থাটি দেশের চলমান উন্নয়ন-কর্মকাণ্ডের সুফল প্রাপ্তির ক্ষেত্রে অন্যতম প্রধান অন্তরায় হিসেবে প্রতীয়মান হচ্ছে।

দেশের প্রাকৃতিক সম্পদগুলোর মধ্যে প্রধানতম হচ্ছে প্রাকৃতিক গ্যাস। এ মুহূর্তে দেশে ২৯টি গ্যাসক্ষেত্র রয়েছে যা দেশের অভ্যন্তরে মোট জ্বালানি চাহিদার প্রায় ৫৬ শতাংশ একাই পূরণ করছে। বাসাবাড়ি থেকে শুরু করে পরিবহণ ও কলকারখানা পর্যন্ত সর্বত্র গ্যাসের ব্যবহার রয়েছে। প্রযুক্তিগত উন্নয়ন ও দক্ষতা বৃদ্ধির মাধ্যমে গ্যাসক্ষেত্রগুলোর সক্ষমতা বৃদ্ধি ও বণ্টনপ্রক্রিয়া সুসংহত করা গেলে জাতীয় অর্থনীতিতে এটি আরও বড় ভূমিকা রাখতে পারবে৷ কেবল গ্যাসই নয়, তেল উত্তোলন, সুষম বনায়ন-কার্যক্রম এবং চাষোপযোগী জমির যথোপযুক্ত ও পূর্ণাংশে ব্যবহার নিশ্চিতেও আমাদের ব্যর্থতা রয়েছে৷ বিশেষত তেল অনুসন্ধান, উত্তোলন ও পরিশোধন প্রক্রিয়ার ক্ষেত্রে প্রযুক্তি ও দক্ষ জনবলের অভাবের দরুণ অতিমাত্রায় বিদেশ-নির্ভরশীলতা একটি অত্যন্ত সম্ভাবনাময় প্রাকৃতিক সম্পদের আশীর্বাদ থেকে আমাদের বঞ্চিত করছে।

দেশে প্রতি বছর প্রায় ২০ লাখ নতুন মুখের আগমন ঘটছে৷ জনসংখ্যার এ ক্রমাধিক্যের সাথে জলবায়ু পরিবর্তনের ক্ষতিকর প্রভাব যুক্ত হয়ে অদূর ভবিষ্যতে দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের ক্ষেত্রে ভয়াবহ সংকট তৈরি করবে৷ তাই মানুষের জীবনমান উন্নতকরণে প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবস্থাপনা ও এর সুষম বণ্টন এবং সুশাসন নিশ্চিত করাই প্রধানতম শর্ত। দেশের সামগ্রিক চাহিদা যথার্থরূপে পূরণ করতে প্রয়োজন সমন্বিত ও বৃহত্তর দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা৷ প্রাকৃতিকভাবেই, ভৌগোলিক অবস্থানের কারণে বাংলাদেশ পৃথিবীর অন্যতম দুর্যোগপ্রবণ একটি দেশ। আগামী বছরগুলোতে বৈশ্বিক উষ্ণতা ও সমুদ্রপৃষ্ঠের উচ্চতাসহ জলবায়ুর নানাবিধ পরিবর্তনের কারণে বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগের ঝুঁকি আরও বৃদ্ধি পাবার সম্ভাবনা রয়েছে৷ এসব কঠিন বাধাকে প্রতিহত করে উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে কিছু বিষয়ে কার্যকর ও দীর্ঘকালীন পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। বিশেষ করে প্রযুক্তির ব্যবহারে উৎকর্ষ সাধনে মনোযোগী হতে হবে৷ এর মাধ্যমে নতুন নতুন প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি ও কৌশল আবিষ্কার এবং কম খরচে অবকাঠামো নির্মাণ সম্ভব করা যাবে৷ সেই সাথে, কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধিতেও এটি সহায়ক ভূমিকা রাখতে পারবে। কেবল তাই নয়, প্রাকৃতিক সকল সম্পদের কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিতেও প্রযুক্তির ব্যবহার আমাদের নতুন পথের দিশা দেবে সন্দেহ নেই৷ প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক পরিকল্পনাকে স্থানিক পরিকল্পনা হিসেবে গ্রহণ করতে হবে৷ এতে করে টেকসই উন্নয়ন ত্বরান্বিত করা আরও সহজ হবে।

পৃথিবীর আর সকল দেশের মতো আমাদের অর্থনীতিরও মূল চালিকাশক্তি হচ্ছে দেশের প্রাকৃতিক সম্পদগুলো। এর সঠিক ও যথোপযুক্ত ব্যবহারে দেশের অর্থনীতি নানাভাবে উপকৃত হবার সুযোগ রয়েছে। তাই এ বিষয়টিকে জাতীয় স্বার্থের জন্য গুরুত্বপূর্ণ বলে বিবেচনা করে সময়োপযোগী তৎপরতা গ্রহণ করতে হবে৷ প্রয়োজনে অর্থ বিনিয়োগের মাধ্যমে এটি সমাধা করতে পারলে অদূর ভবিষ্যতেই এর দারুণ সুফল পাওয়া যাবে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড