• শনিবার, ২৩ মার্চ ২০১৯, ৯ চৈত্র ১৪২৫  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন

সমতল ভূমির চা বাগানে নতুন কুঁড়ির অপেক্ষায়

  এম মোবারক হোসাইন, পঞ্চগড় ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৩:৫৯

চা বাগান
পঞ্চগড়ের চা বাগান (ছবি : দৈনিক অধিকার)

প্রকৃতিতে চলছে এখন ঋতুরাজ বসন্ত। এই মৌসুমে চা বাগানে চলে প্রুনিং (ছাঁটাই বা কলম) কার্যক্রম মৌসুম চলছে। 

সমতল ভূমির এ চা বাগানের সেকশনকে তালিকাভুক্ত করে এর চা গাছগুলোর মাথায় প্রুনিং করা হয়। কিছুদিন পর বৃষ্টি গায়ে মেখে সেই কাটা ডালগুলোতে নতুনভাবে উঁকি দেয় দুটি পাতা একটি কুঁড়ি।

চা গাছের সুস্বাস্থ্য এবং চা গাছের অধিক উৎপাদনের লক্ষ্যে প্রতি বছর বাগানে বাগানে প্রুনিং পালিত হয়। বছরের শেষ দুই মাস ও বছরের শুরুর দুই মাস প্রুনিং কার্যক্রম চলায় সেসময় চা কারখানা বন্ধ থাকে।

ইতোমধ্যে চা বাগানে প্রুনিং শেষ হয়ে গেছে। এখন চলছে গাছের গোড়া পরিষ্কার, মাটি নিংড়ানো, জংলি লতাগুল্ম পরিষ্কারের কাজ।
 
অভিজ্ঞ টি-প্ল্যান্টার এবং চা বাগানের ম্যানেজার কবীর আকন্দ দৈনিক অধিকারকে বলেন,আমাদের চা গাছগুলোতে প্রুনিং করা শেষ। এখন চলছে নতুন কুঁড়ির জন্য অপেক্ষা। প্রুনিংয়ের পর চা বাগানগুলোতে চা গাছের গোড়া পরিষ্কার করানো, চা গাছের মাঝে বেড়ে ওঠা লতাগুলোকে উপড়ে ফেলে দেয়া প্রভৃতি কাজ চলে।
 
চা গাছে প্রুনিং করার পর গাছের গোড়ার মধ্যে উলু পোকার (উঁই পোকা) বাসা থাকে। চা গাছের জন্য উলু পোকা অত্যন্ত ক্ষতিকর। এই উলু চা গাছের গোড়া বা শরীরের অংশ খেয়ে ফেলে। তখন চা গাছগুলো মরে যায়। তাই প্রুনিং এর পর আমরা সমতল জায়গায় তা পরিষ্কার করে থাকি বলে জানান পঞ্চগড়ের তেতুলিয়ার মাঝিপাড়ার চা চাষি আব্দুল খালেক।
 
তিনি দৈনিক অধিকারকে আরও বলেন, আগাছা পরিষ্কারের পাশাপাশি চা গাছে কিছু পরগাছা উদ্ভিদ জন্ম নেয়। তখন ওগুলোকে আমরা পরিষ্কার করি। তারপর শুষ্ক মৌসুমে যাতে করে আগুন না লাগে তার জন্য আমরা পরিষ্কার করে রাখি। এগুলো আমরা করি সব ম্যাচিউরড টি-তে (প্রাপ্তবয়স্ক চা গাছে)।
 
পঞ্চগড় তেতুলিয়ার চা চাষি নুরে আলম সিদ্দিকী দৈনিক অধিকারকে বলেন, ইয়াং-টিতে (বাচ্চা চারা) এই সময় মাটি আচ্ছাদন করে কচুরিপানা দিয়ে মাটি ঢেকে দেয়া হয় যাতে করে মাটির পানি বাষ্প না হয়ে যায়। এটাকে চায়ের ভাষায় বলে ‘মার্চিং’। এ ছাড়া চা বাগানের ক্লোন নার্সারিতে চলে মাটি দিয়ে প্লাস্টিক ব্যাগ ভরার কাজ।  
 
প্রুণিং-এর পর চা বাগানে বৃষ্টিপাত অনেকটা আশীর্বাদ হয়ে আসে। বৃষ্টির পরশ পেলেই সেই কাটা অংশ থেকে নতুন চারা গজাতে শুরু করে বলে জানান অভিজ্ঞ কাজী এন্ড কাজী চা বাগানের সিনিয়র ম্যানেজার কবীর আকন্দ।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড