• রবিবার, ২৫ আগস্ট ২০১৯, ১০ ভাদ্র ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

তিন দিবসকে ঘিরে ফুল বিক্রির টার্গেট ২০০ কোটি টাকা

ফুল
বেড়েছে ফুলের বিকিকিনি (ছবি:সংগৃহীত)

আগামীকাল পহেলা ফাল্গুন, ঋতুরাজ বসন্তের প্রথম দিন। বসন্তবরণে তরুণ-তরুণীসহ নানা বয়সের মানুষ আনন্দে মেতে উঠবে। তরুণীরা বাসন্তী রঙের শাড়ির সঙ্গে বাহারি রঙের ফুল দিয়ে নিজেদের অলংকৃত করবে। তারা হাতে,কানে, গলায়, খোঁপায় নানা ফুল দিয়ে নিজেদের সুসজ্জিত করবে। 

ভালোবাসার বার্তা নিয়ে পরদিনই ১৪ ফেব্রুয়ারি পালিত হবে ভ্যালেন্টাইনস ডে বা বিশ্ব ভালোবাসা দিবস। এক সপ্তাহ বাদে আসছে ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস। 

এ তিন দিবসে বাঙালির জীবনে প্রতিবছর ফুল অন্যতম অনুষঙ্গ হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই সারা বছরের তুলনায় এ সময় ফুলের চাহিদা সবচেয়ে বেশি থাকে। দিবসগুলো ঘিরে ফুলের বাণিজ্য এ সময় রমরমা হয়ে ওঠে। 

ব্যবসায়ীরা এ সময় ফুলের ব্যবসার সবচেয়ে বড় সুযোগ বলে মনে করেন। মাঠপর্যায়ে চাষী থেকে শুরু করে পাইকারি ও খুচরা ফুলের বাজার সর্বত্র এখন পুরোদমে প্রস্তুত।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির সভাপতি আবদুর রহিম বলেন, আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় এ বছর দেশে ফুলের উৎপাদন ভালো হয়েছে। আশা করা হচ্ছে বসন্তবরণ, ভালোবাসা দিবস ও একুশে ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে কৃষক, পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে দেশে মোট ২০০ কোটি টাকা বা তারও বেশি ফুল বাণিজ্য হবে।

তিনি আরও বলেন, মাঠপর্যায়ে যশোরের গদখালি ও সাভারের সাদুল্লাহপুর ইউনিয়নসহ বিভিন্ন ইউনিয়নে এ দিবসগুলোকে কেন্দ্র করে প্রায় ৬০-৭০ কোটি টাকার ফুল বাণিজ্য হবে। রাজধানীর শাহবাগ ফুলের বাজারসহ দেশের অন্যান্য স্থান বাকিটা পূরণ করবে।

রাজধানীর শাহবাগ, ফার্মগেট ও আগারগাঁওয়ে অবস্থিত ফুলের পাইকারি মার্কেট থেকে পুরো রাজধানীর খুচরা বিক্রেতারা ফুল কিনে থাকেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এখানে অন্য দিনের চেয়ে শুক্রবার ও শনিবার বিক্রি অনেক বেশি হয়। শুধু রাজধানীর পাইকারি বাজারে প্রতিদিন প্রায় ৫০ লাখ টাকার ফুল কেনাবেচা হয়। বিশেষ দিবস যেমন পহেলা ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবসে ২০ থেকে ৩০ কোটি টাকার ফুল বিক্রি হয়। 

এবারের ভালোবাসা দিবসে রাজধানী ঢাকায় যে কয়েক কোটি টাকার ফুল বিক্রি হবে তার সিংহভাগই হবে শাহবাগে হবে বলে জানা গেছে। 

শাহবাগের অনন্যা পুষ্প বিতানের মালিক ও বাংলাদেশ ফ্লাওয়ার সোসাইটির ভাইস প্রেসিডেন্ট লোকমান হোসেন বলেন, রাজধানীর শাহবাগসহ অন্যান্য বাজারে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে ট্রাকভর্তি ফুল আসতে শুরু করেছে। তিন দিবসকে ঘিরে ফুল বেচাকেনাও জমে উঠেছে। আগেভাগেই এ বছর খুচরা ও মৌসুমি বিক্রেতারা ফুল কিনতে এসেছেন। ফলে ফুলের ব্যবসা ভালো যাচ্ছে।  

সরেজমিনে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, পাইকারি বাজারে মান ভেদে একটি গোলাপ ৫ থেকে ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। রজনীগন্ধা ৬-৮ টাকা, জারবেরা ১৫-২০ টাকা  ও গ্লাডিওলাস ১০-১৮ টাকা দরে বেচাকেনা হচ্ছে। আর হাজার প্রতি গাঁদাফুল ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা দামে বিক্রি হচ্ছে। 

কিন্তু একই ফুল খুচরা বাজারে প্রায় দ্বিগুণ দামে বিক্রি হচ্ছে। খুচরা ফুল ব্যবসায়ীরা জানান, মানভেদে গোলাপ ২৫-৮০ টাকা, রজনীগন্ধা প্রতি স্টিক ১০-১৫ টাকা, জারবেরা ৩০ থেকে ৫০ টাকা  ও গ্লাডিওলাস ২০ থেকে ৩৫ টাকা দরে বেচাকেনা হচ্ছে। আর গাঁদা ফুলের মালা ৫০ থেকে ৮০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

অন্যদিকে, বিভিন্ন ধরনের ফুল দিয়ে সাজানো তোড়া ৩০০ থেকে দুই হাজার টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড