• বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ১৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

বছরের শুরুতেই লাগাম ছাড়া নিত্যপণ্যের বাজার

নিত্যপণ্যের বাজার
নিত্যপণ্যের বাজার লাগামছাড়া (ছবি :সংগৃহীত)

চলতি বছরের শুরুতেই অস্থির হয়ে উঠেছে নিত্যপণ্যের বাজার। ডাল, চিনি, ভোজ্যতেল, মসলাসহ বিভিন্ন জিনিসের দাম বৃদ্ধি পেয়েছে। দেশের সবচেয়ে বড় পাইকারি বাজার চট্টগ্রামের খাতুনগঞ্জে খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে গত সপ্তাহের শেষ সময় থেকে বাড়তে শুরু করে এসব পণ্যের দাম।  

ব্যবসায়ীদের দাবি, নির্বাচন-পরবর্তী সময়ে পণ্যের চাহিদা বাড়লেও ডলারের মূল্যবৃদ্ধির  কারণে আমদানি কমে গেছে এবং বাজারে এ অস্থিরতা দেখা দিয়েছে।  

খাতুনগঞ্জের পাইকারি দোকান ও আড়তগুলো পরিদর্শন করে জানা গেছে, পাইকারি পর্যায়ে গত কয়েক দিনে বেশির ভাগ ভোগ্যপণ্যের দাম বেড়েছে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ভোজ্যতেল, চিনি, ডাল ও মসলাজাতীয় পণ্য।

বাজারে পাম অয়েলের দাম বেড়েছে মণপ্রতি প্রায় ১২০ টাকা। বাজারে প্রতি মণ পাম অয়েল বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ১০ থেকে ২ হাজার ৩০ টাকায়, নির্বাচনের আগে যা ছিল ১ হাজার ৯০০ টাকা। অন্যদিকে সুপার পাম অয়েলের দামও মণপ্রতি ১০০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে। নির্বাচনের আগে প্রতি মণ সুপার পাম ২ হাজার টাকায় বিক্রি হলেও এখন সেটা বিক্রি হচ্ছে ২ হাজার ১০০ টাকায়। 
 
বেড়েছে চিনির দামও। গত সপ্তাহের শুরুতে মণ প্রতি চিনি ১ হাজার ৬০০ টাকায় বিক্রি হতো। বর্তমানে সেটি বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৬৮০ টাকায়। তাহলে সে হিসাবে মণে প্রায় ৮০ টাকা বেড়েছে।   

এছাড়া বাজারে ডাল জাতীয় কয়েকটি পণ্যের দামও অতিরিক্ত বেড়ে গেছে। সবচেয়ে বেশি বেড়েছে মুগ ডালের দাম। গত কয়েক দিনে পণ্যটির দাম বেড়েছে মণ প্রতি ৬৭০ টাকা বেড়েছে। নির্বাচনের আগে প্রতি মণ মুগ ডালের দাম ৩ হাজার ২৫০ টাকার নিচে কিন্তু  বর্তমানে একই মানের মুগ ডাল বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ৯২০ টাকায়। 

আর মসুরের দামও বেড়েছে। বাজারে প্রতি মণ দেশি মসুর বিক্রি হয়েছে ৩  হাজার ৬০ থেকে ৩ হাজার ৯০ টাকায়, যেখানে এক সপ্তাহ আগে এর দাম ছিল প্রতি মণ ২ হাজার ৬০০ টাকা।

এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতি মণ নেপালি মসুর বিক্রি হচ্ছে ৩ হাজার ৯০ টাকা যেখানে গত সপ্তাহে এর দাম ছিল ২ হাজার ৭৯০ টাকা।  

এ দিকে পাইকারিতে প্রতি মণ খেসারি বিক্রি হয়েছে ১ হাজার ৩৭৫ টাকা। আর মটর ডালের দামও মণে প্রায় ১১০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে।

অস্ট্রেলিয়া থেকে আমদানিকৃত ছোলা নির্বাচনের আগে বিক্রি হয়েছে প্রতি মণ ২ হাজার ৪৫০ টাকায়। এখন সেটি প্রায় ২০০ টাকা বেড়ে ২ হাজার ৬৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
 
মসলাজাতীয় পণ্যের দামও বেড়েছে। এর মধ্যে এলাচের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছে। বাজারে বর্তমানে প্রতি কেজি এলাচ বিক্রি হচ্ছে ১ হাজার ৭৫০ টাকায়, নির্বাচনের আগে যা বিক্রি হতো ১ হাজার ৬৭০ টাকায় ।

জিরার দাম বেড়েছে মণে ৩৭০ টাকা। মিষ্টি জিরার দাম বেড়েছে মণে প্রায় ১ হাজার ৫০ টাকা। প্রতি কেজি জিরা ৩২০ ও মিষ্টি জিরা ১৩৫ টাকায় বিক্রি হয়েছে। গত সপ্তাহে প্রতি কেজি জিরা ৩১০ ও মিষ্টি জিরা ১০৭ টাকায় বিক্রি হতো।

জয়ত্রির দামও বেড়েছে। পাইকারিতে প্রতি কেজি জয়ত্রি বর্তমানে ১ হাজার ৫২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে, গত সপ্তাহে যা ছিল ১ হাজার ৪৭০ টাকা। 

এছাড়া বেড়েছে বাদাম, হলুদ ও ধনিয়ার দামও। প্রতি মণ বাদামে ৯৩০ টাকা, হলুদে ১৫০ ও ধনিয়ায় ৩৭০ টাকা পর্যন্ত দাম বেড়েছে বলে জানা গেছে।
 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন সজীব 

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড