• মঙ্গলবার, ০৫ জুলাই ২০২২, ২১ আষাঢ় ১৪২৯  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

প্রতারণার অভিযোগ সুখ ডটকমের বিরুদ্ধে, প্রতিষ্ঠান বলছে টেকনিক্যাল সমস্যা 

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২৩ এপ্রিল ২০২২, ১৯:৩৬
সুখ ডট কম
সুখ ডট কম (ছবি : সংগৃহীত)

গ্রাহকের হাজার হাজার কোটি টাকা আত্মসাত করে আলোচনায় আসা ই-কমার্স ইভ্যালির কাণ্ডের পর অনেকটা মুখ থুবরে পরেছে ই-কমার্স ব্যবসা। এই আলোচনা শেষ হতে না হতে ফের ৫০-৬০ শতাংশ পর্যন্ত মুল্যছাড়ের মতো চটকদার বিজ্ঞাপন দিয়ে গিফট কার্ড, ইলেকট্রনিক্স অ্যাপ্লায়েন্স সহ বিভিন্ন ধরনের পণ্য বিক্রি করছে সুখ ডট কম নামের নতুন একটি ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান।

তবে ইতোমধ্যে, কাঙ্ক্ষিত সেবা ও পণ্য দিতে না পেরে গ্রাহকদের অসুখের কারণ হয়েছে সুখ ডট কম। প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগ এনে জাতীয় ভোক্তা অধিকারে মামলাও করেছেন গ্রাহকরা।

সুখ ডট কমের নিজস্ব ফেসবুক পেইজ এবং গ্রুপে দেওয়া বিভিন্ন বার্তা থেকে দেখা যায়, বিগত ১৫ এপ্রিল রাত ১০ টায় লাইভ হয় এই ক্যাম্পেইন। তবে অতিরিক্ত গ্রাহকের চাপে সার্ভার সমস্যা হওয়ায়, একই দিন দিবাগত রাত ৩টা থেকে ভোর ৫টা পর্যন্ত আবারও ক্যাম্পেইন লাইভ করে সুখ ডট কম। পর্যাপ্ত পরিমাণ গিফট কার্ড আছে দাবি করে, গ্রাহকদের দ্বিতীয় দফায় গিফট কার্ড ক্রয়ে প্ররোচনা করে কর্তৃপক্ষ।

তবে “স্টক নেই” জানিয়ে এখন অনেক গ্রাহককেই গিফট কার্ড দিতে অস্বীকৃতি জানাচ্ছে সুখ ডট কম।

সুখ এর ভোগান্তিতে পড়া গ্রাহক রাসেল আহমেদ বলেন, ৭২ ঘন্টার ভিতরে গিফট কার্ড এক্টিভ করা হবে। কিন্তু ৫ দিনের মাথায় তারা জানায় তারা গিফট কার্ড অ্যাক্টিভেশন করতে পারবে না। আমি গিফট কার্ড অর্ডার করি ঈদের শপিং করার জন্য কিন্তা তারা বলছে তারা এখন আর গিফট কার্ড দিবে না । কবে দিতে পারবে তাও বলতে পারে না । টাকা রিফান্ড কবে হবে এই বিষয় জানতে চাইলে পরে জানানো হবে বলে জানিয়েছে ।

সম্প্রতি “বৈশাখী ঝড় অফার” নামে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত ছাড়ে বিভিন্ন লাইফস্টাইল ব্র্যান্ডের গিফট কার্ড বিক্রি শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। পহেলা বৈশাখ এবং আগামী মে মাসের শুরুতেই ঈদ উল ফিতর কে লক্ষ্য রেখে গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে এমন অফার দেয় সুখ। এর জন্য গ্রাহকদের থেকে গিফট কার্ড এর মূল্য অগ্রিম নিয়ে নেওয়া হয়। শর্ত ছিল, গিফট কার্ড ক্রয়ের ৭২ ঘণ্টা পর সেগুলো কার্যকর করে দেওয়া হবে। কিন্তু অনেক গ্রাহকই অভিযোগ করছেন যে, ক্রয়ের পর ৫ দিন পেরিয়ে গেলেও গিফট কার্ড “একটিভ” হচ্ছে না তাদের। ফেরত পাওয়া যাচ্ছে না, গিফট কার্ডের মূল্য বাবদ পরিশোধ করা অর্থ। এতে করে, ঈদের কেনাকাটা নিয়ে বিপাকে পড়েছেন নব্য ইভ্যালি থেকে কেনাকাটা করতে যাওয়া গ্রাহকেরা।

পরিচয় গোপন রাখার শর্তে সুখের এক সাবেক কর্মকর্তা দৈনিক অধিকারকে বলেন, আমরা যখন চাকরিতে যোগ দেই তখন আমাদের বলা হয়েছিল যে, তারা কখনোই বাইক এর মতো পণ্য বিক্রি করবে না, কারণ এধরনের পণ্যের মাধ্যমে গ্রাহকের কাছ থেকে অল্প সময়ে দ্রুত উচ্চ অংকের টাকা সংগ্রহ করা যায়। কিন্তু রোজার শুরুতেই তারা মোটর বাইক বিক্রি করতে শুরু করে। চাকরির শুরুর দিকে সুখ এর ম্যানেজমেন্ট নিজেদের উদ্দেশ্য সৎ দেখানোর জন্য আমাদের বলেছিল যে, সুখে কখনো ৫০%, ৬০%এর মতো উল্টাপাল্টা অফার দেওয়া হবে না। কিন্তু তারা সেগুলোও দেওয়া শুরু করে। এসব বিষয়ে দ্বিমত দেখা দেওয়ায় এবং প্রতিবাদ করায় ঈদের আগে রোজার মধ্যেই সুখ আমাকে অস্থায়ীভাবে চাকরিচ্যুত করে।

“নেগেটিভ মার্কেটিং” কে পুঁজি করে আরো গ্রাহকদের আকৃষ্ট করতে চায় উল্লেখ করে সুখের সাবেক এই কর্মকর্তা আরো বলেন, সুখের যিনি সার্বিক দায়িত্বে আছেন, তিনি নিজেই চান দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে সুখ কে নিয়ে নেগেটিভ নিউজ হোক।

তিনি মনে করেন, এর মধ্যে দিয়ে যে ব্র্যান্ডিং হবে সেটিকে কাজে লাগিয়ে আরো গ্রাহক আকৃষ্ট হবে। সেখানে আমার সাবেক কিছু কর্মকর্তার সাথে কথা বলে জেনেছি যে, ইচ্ছে করেই গিফট কার্ডের এই সংকট তৈরি করা হয়েছে। অতিরিক্ত অর্ডার নিয়ে গ্রাহকদের থেকে টাকা হাতিয়ে নেওয়া হয়েছে। এতে করে আলোচনা তৈরি হবে তবে এর মধ্যে দিয়ে গ্রাহক ভোগান্তি হলেও তাদের কিছু যায় আসে না।

এদিকে সুখ ডট কম এর চিফ ইনফরমেশন অফিসার ও ইনচার্য জাহাঙ্গীর আলম দৈনিক অধিকারকে জানান, প্রতারণার উদ্দেশে নয় সার্ভার ও টেকনিক্যাল সমস্যার কারণেনেই ভোগান্তির শিকার হয়েছেন গ্রাহকরা।

তিনি বলেন, টেকনিক্যাল সমস্যার কারণে তারা গ্রাহকের অর্ডার না পেলেও বিকাশ থেকে ঠিকই টাকা কেটে নেওয়া হয়েছে। এর ফলে তাদেরও কাছেও গ্রাহকদের সঠিক তালিকা নেই ফলে টাকা রিফান্ড করতে সময় লেগেছে। তবে বিকাশের সাথে কথা বলে তারা গ্রাহকদের তালিকা তৈরি করে রিফান্ড কার্যক্রম শিগ্রই শুরু হবে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

জাহাঙ্গীর আলম আরও বলেন, সার্ভার ডাউন হওয়ার কারণে আমরা নিজেরাও কাঙ্ক্ষিত অর্ডার পাইনি। অল্প কিছু গ্রাহকের টাকা আটকে আছে দাবি করে তিনি জানান, ইতোমধ্যে সকল গ্রাহকদের তালিকার কাজও শেষ ২ দিনের মধ্যেই সমস্ত গ্রাহকের কাছে টাকা রিফান্ড করা হবে। এই সমস্যার জন্য তিনি গ্রাহদের কাছে ক্ষমাও চেয়েছেন।

ওডি/এসএস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

সহযোগী সম্পাদক: গোলাম যাকারিয়া

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

যোগাযোগ: 02-48118241, +8801907484702 

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড