• শনিবার, ১৮ জানুয়ারি ২০২০, ৫ মাঘ ১৪২৭  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পুঁজিবাজারের ভয়াবহ দরপতন, রাস্তায় বিনিয়োগকারীরা 

  নিজস্ব প্রতিবেদক

১৪ জানুয়ারি ২০২০, ১৫:৫২
দরপতন
দরপতনের প্রতিবাদে বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ (ছবি : সংগৃহীত)

পুঁজিবাজারের ভয়াবহ দরপতনের প্রতিবাদে রাজধানীর মতিঝিলে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) আগের কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করেছেন বিনিয়োগকারীরা। মামলার ভয়কে দূরে ঠেলে রাস্তায় নামেন তারা।

মঙ্গলবার (১৪ জানুয়ারি) দুপুরে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের ব্যানারে এই বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

বরাবরের মতো এ বিক্ষোভ থেকে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান খায়রুল হোসেনের পদত্যাগসহ কমিশন পুনর্গঠনের দাবি জানানো হয়।

বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজান উর রশিদ চৌধুরী বলেন, বিএসইসির বর্তমান চেয়ারম্যানকে দায়িত্বে রেখে শেয়ারবাজার ভালো করা যাবে না। বিনিয়োগকারীদের পক্ষে আমরা এই চেয়ারম্যানের পদত্যাগ চাই। একই সঙ্গে কমিশন পুনর্গঠনের দাবি জানাচ্ছি।

এর আগে, দরপতনের প্রতিবাদে প্রধান শেয়ারবাজার ডিএসইর সামনে বিনিয়োগকারীরা বিক্ষোভ করায় গত ২৭ আগস্ট ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের পক্ষ থেকে মতিঝিল থানায় জিডি করা হয়।

জিডিতে বলা হয়, ২৭ আগস্ট আনুমানিক দুপুর ২টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত বাংলাদেশ পুঁজিবাজার ক্ষুদ্র বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের ব্যানারে ৯ থেকে ১০ জন ডিএসইর সামনে ব্যানার ও মাইকসহ বিক্ষোভ মিছিল করে। এতে ডিএসইর সদস্য, কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চলাফেরা এবং অফিসের স্বাভাবিক কার্যক্রম সম্পাদন করায় বিঘ্ন ঘটে।

এতে উল্লেখ করা হয়েছে, ডিএসইর সামনে তারা বেশ কিছুদিন ধরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে আসছে এবং শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রণকারী সংস্থা ও পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সম্পর্কে অসম্মানজনক ও মানহানিকর মন্তব্য করছে।

এ ধরনের কর্মকাণ্ড দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত গ্রহণে নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে এবং বহির্বিশ্বে বাংলাদেশ পুঁজিবাজারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করছে বলে মনে করে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ কর্তৃপক্ষ। জিডিতে উল্লেখ করা হয়েছে, এতে করে বাংলাদেশের পুঁজিবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ নিরুৎসাহিত হচ্ছে।

সেখানে আরও বলা হয়েছে, দেশের প্রাচীন বৃহৎ শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ। জাতীয় ও জনস্বার্থমূলক প্রতিষ্ঠান হিসেবে পুঁজিবাজার সংশ্লিষ্ট কার্যক্রমে অংশগ্রহণের উদ্দেশ্যে প্রতিদিন এখানে হাজার হাজার মানুষ আসেন। সুতরাং, বিষয়টি বিবেচনা করে শেয়ারবাজারের স্বাভাবিক কার্যক্রম অব্যাহত রাখার লক্ষ্যে মহোদয় সমীপে আরজ এ ব্যাপারে আপনার থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি নথিভুক্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে বাধিত করবেন।

ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের পক্ষ থেকে এই জিডি করা হলে বন্ধ হয়ে যায় বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের বিক্ষোভ। তবে পুঁজিবাজারে চলতে থাকে দরপতন। সম্প্রতি দরপতন আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করেছে।

আরও পড়ুন : সাড়ে ৪ বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন সূচক ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে

পুঁজিবাজারে মাত্র এক কার্যদিবসে কিছুটা উন্নতি ঘটলেও সোমবার (১৩ জানুয়ারি) আবারও বড় পতন হয়েছে। এক দিনের ব্যবধানে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) প্রধান সূচক প্রায় ৮৯ পয়েন্ট কমে গেছে। লেনদেনকৃত ৩৫৪টি কোম্পানির মধ্যে ৩১৩টিরই দর কমেছে। এর ফলে প্রায় সাড়ে ৪ বছরের মধ্যে ডিএসইতে সর্বনিম্ন সূচক লক্ষ করা যাচ্ছে। 

সপ্তাহজুড়েই শেয়ারবাজারে এমন দরপতন দেখা গেছে। গত সপ্তাহে ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচকের ২৬১ পয়েন্ট পতন হয়। তবে এ সপ্তাহের প্রথম কার্যদিবসে সূচকের সামান্য উত্থান দেখা যায়। কিন্তু পরদিনই তার পতন হয়। এই সাত দিনে ডিএসইর প্রধান সূচক কমেছে ৪০০ পয়েন্টের ওপর। সূচকের এই বড় পতনের প্রতিবাদে লেনদেন শেষ হওয়ার আগেই রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ শুরু করেন বিনিয়োগকারীরা। প্রায় আধঘণ্টা ধরে এ বিক্ষোভ চলে।

ওডি/টিএএফ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড