• মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পেঁয়াজ চাষে স্বাবলম্বী সোলাইমান

  গাইবান্ধা প্রতিনিধি

২২ নভেম্বর ২০১৯, ১৫:৩৯
পেঁয়াজ
পেঁয়াজ চাষ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

সারা দেশে যখন চলছে পেঁয়াজকাণ্ড তখন দেশীয় পেঁয়াজ নিয়ে সুসংবাদ দিলেন গাইবান্ধার কৃষক সোলাইমান মিয়া। পেঁয়াজ চাষে অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী হয়েছেন তিনি। আগাম ৭০ শতক জমিতে পেঁয়াজ চাষ করে প্রতিদিন বিক্রি করেছেন ৪ থেকে ৫ হাজার টাকা দরে।

সরেজমিনে দেখা যায়, সোলাইমান মিয়ার বিস্তৃত কয়েকটি পেঁয়াজেরর ক্ষেত। ক্ষেতের পাশে ছোট একটি কুঁড়েঘর উঠিয়ে রাতদিন পাহারা দেন পেঁয়াজ।

সাদুল্লাপুর উপজেলার বড় দাউদপুর গ্রামের সোলাইমান মিয়া বলেন, কুষ্টিয়া জেলা থেকে আগাম পেঁয়াজের বীজ সংগ্রহ করে জমিতে আবাদ করেছি। প্রথমে অল্প করে চাষ করেছি। পরে দুই বিঘার বেশি জমিতে পেঁয়াজ চাষ করি। প্রতি বছরের মতো এবারো পেঁয়াজ চাষ করেছি। তবে জাব পোকা ও ল্যাদা পোকার আক্রমণ হওয়ার আগেই আবাদ উঠিয়ে নিয়েছি।

তিনি আরও বলেন, পাঁচ বছর ধরে শুধু পেঁয়াজের চাষ করে আসছি। প্রতি বিঘা জমিতে বিষ, ছত্রাক নাশক, দিনমজুর, সার, সেচসহ ৩৫ হাজার টাকা খরচ হয়। আর রোপণের সময় বিঘাপ্রতি পরিমাণ মত জৈব সার, দস্তা ২ কেজি, পটাশ ২৫ কেজি, ইউরিয়া সার ১৫ কেজি প্রয়োগ করে সেড আকারে উন্নতমানের বীজ রোপণ করলে ভালো ফলন পাওয়া যায়। সপ্তাহে একবার সেচ দিতে হয়। রোপণের ৪৫ দিন পর পেঁয়াজ উঠানো শুরু হয়। বিগত বছরের থেকেও এবার তিনি বেশি লাভবান হবে বলে জানান।

রসুলপুর ইউনিয়নের ব্লক সুপারভাইজার মোস্তাফিজুর রহমান জানান, পেঁয়াজ একটি লাভজনক ফসল। ব্লকে এবার ৫ হেক্টর জমিতে পেঁয়াজ চাষ করেছে এলাকার কৃষিকরা। প্রতিনিয়ত তাদের সঠিক সময়ে সার, কীটনাশক প্রয়োগ করাসহ বিভিন্ন পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। এলাকার অন্য কৃষকদের পেঁয়াজ চাষ করতে উদ্বুদ্ধ করনো করা হচ্ছে। আগামী মৌসুমে কৃষকরা পেঁয়াজ চাষ করে পেঁয়াজের চাহিদা পূরণ কতে পারবে আশা করা যাচ্ছে।

ওডি/এসেজেএ

jachai
nite
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
jachai

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড