• বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০১৯, ৬ আষাঢ় ১৪২৬  |   ৩২ °সে
  • বেটা ভার্সন

মোবাইলের দামে আলু-পটল!

  নিজস্ব প্রতিবেদক

২৩ মে ২০১৯, ১৯:২০
আলু-পটল
আলু-পটল (ফাইল ফটো)

খুব সহজে ঘরে বসেই দেশ-বিদেশের নামি অনলাইন শপিং মল থেকে অর্ডার করে কেনা যায় মোবাইল ফোনসহ পছন্দ মতো নানা পণ্য। এ কারণে অনলাইন শপিংয়ে ঝুঁকেছে দেশের তরুণরা। বর্তমানে তরুণদের কেনা-কাটার বড় অংশ দখলে নিয়েছে অনলাইন। এ সুযোগে ফাঁদ পেতেছে সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্র, প্রতারিত হচ্ছে অনেকে। নামি-দামি মোবাইল ফোন অর্ডার করে মিলছে আলু, পটল, পেঁয়াজ, আদা, রসুন!

বুধবার (২২ মে) দিনগত রাতে রাজধানীর দারুস সালামে অভিযান চালিয়ে চক্রটির সাত সদস্যকে আটক করে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)। র‌্যাব জানায়, সাত বছর ধরে চক্রটি প্রতারণা করে আসছে। এরা সাধারণ মানুষ থেকে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-৪ এর সিও অতিরিক্ত ডিআইজি চৌধুরী মঞ্জুরুল কবির বলেন, এ চক্রের সদস্যরা প্রথমে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে বিভিন্ন নামে পেজ খুলে দৃষ্টিনন্দন পোশাক, গহনা, মুঠোফোন বিক্রির আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দেয়। আকৃষ্ট ক্রেতারা কম মূল্যে কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে পণ্য পাওয়ার আশ্বাস পেয়ে আগেই চার্জ পরিশোধ করতেন। কেউ আংশিক আবার কেউ পুরো চার্জ পরিশোধ করতেন। কিন্তু পণ্য হাতে পেয়ে হতবাক হন ক্রেতারা। অর্ডার করা পণ্যের বদলে প্যাকেটে পাওয়া যায় আলু, পটোল, পেঁয়াজ, রসুন কখনোবা সাবান। কখনও কোনও কিছুই আসতো না। এ ব্যাপারে অভিযোগ করা হলে ক্রেতাদের চট্টগ্রামের অফিসে গিয়ে যোগাযোগ করতে বলা হতো। কেউ কেউ এসব ব্যাপারে ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করেই শান্ত থাকেন। কেউ কেউ প্রতারিত হয়েও কোথাও কোনও অভিযোগ করতেন না। প্রতিজনের কাছ থেকে খুব বেশি টাকা নিতে না পারলেও, এমন করে বিপুলসংখ্যক মানুষের থেকে অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছিল সংঘবদ্ধ এ প্রতারক চক্র।

আটকরা হলেন- নুর ইসলাম (১৯), সুজন মোল্লা (২৬), পারভেজ মোল্লা (১৯), জারদিস হোসেন (২০), মেহেদী হাসান (২৩), আবু তাহের (১৯), হাসিবুল হাসান ওরফে চঞ্চল (৩২)।

অভিযানের সময় আটকদের থেকে একটি করে ল্যাপটপ, ডেস্কটপ কম্পিউটার, প্রিন্টার, রাউটার এবং ২৩টি মোবাইল ফোন, মানি রিসিট, ২৫০টি পাঞ্জাবি ও ১০টি পায়জামা জব্দ করা হয়।

মঞ্জুরুল কবির বলেন, চক্রটি বিভিন্নভাবে ক্রেতাদের সঙ্গে প্রতারণা করে আসছিল। তারা বিভিন্ন নামিদামি ব্র্যান্ডের অনলাইনে দেয়া পণ্য সামগ্রীর ছবি ডাউনলোড করে নিজেদের পণ্য হিসেবে চালিয়ে ফেসবুক পেজে আপ করত। কিন্তু সেসব পণ্যের নির্ধারিত দামের চেয়ে কম দাম দেখে কেউ আকৃষ্ট হয়ে যোগাযোগ করলে চক্রটি প্রথমে সার্ভিস চার্জ গ্রহণ করত। এরপর হোম ডেলিভারির মাধ্যমে নিম্নমানের পণ্য পাঠিয়ে দিত।

প্রতারকরা ব্যবহৃত করত এমন ১৭টি ফেসবুক পেজ জব্দ করা হয়েছে বলে জানান র‌্যাব-৪ সিও।

র‌্যাব-৪ এর সিও বলেন, ২০১৩ সাল থেকে চক্রটি এ ধরনের কার্যক্রম চালাচ্ছে। তারা প্রতি গ্রাহকের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের অর্থ না নিলেও বিপুলসংখ্যক গ্রাহকের কাছ থেকে অল্প অল্প করে প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিত। ১৭টি পেজের বাইরে আরও আছে কি না সেটি যাচাই করা হবে।

ওডি/এমআর

অপরাধের সূত্রপাত কিংবা ভোগান্তির কথা জানাতে সরাসরি দৈনিক অধিকারকে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড