• শনিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১১ আশ্বিন ১৪২৭  |   ২৯ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

জুয়ার ক্লাব এখন মাদকের আখড়া

  অধিকার ডেস্ক

২৬ জুন ২০২০, ১৪:০২
দিলকুশা স্পোর্টিং ক্লাব
দিলকুশা স্পোর্টিং ক্লাব (ছবি : সংগৃহীত)

রাজধানীর মতিঝিলের তালা মেরে সিলগালা করে দেওয়া ক্লাবগুলো ঘিরে এখন মাদকসেবীদের আখড়া গড়ে উঠেছে। পুলিশও করোনা প্রতিরোধে তাদের মানবিক ডিউটি পালন করছে। এ কারণে বন্ধ থাকা ক্লাবগুলোতে সেভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারছে না। এই সুযোগে স্থানীয় মাদকসেবীরা ক্লাবগুলোর ছাদ ও আশপাশের দেওয়ালসংলগ্ন এলাকা দখলে নিয়েছে।

গত বছরের ১৮ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানে বদলে যাওয়া ক্লাবপাড়ার পুরো দৃশ্যপট এখনো স্বাভাবিক হয়নি। সরেজমিনে দেখা গেছে, সামনে সাইনবোর্ড থাকলেও প্রতিটি ক্লাবের দরজা সিলগালা করা। ঝুলছে পুলিশের লাগানো তালা। ক্লাবঘর আর চত্বর এখনো নীরব-নিস্তব্ধ। নেই খেলোয়াড়দেরও তেমন উপস্থিতি।

ঐতিহ্যবাহী মোহামেডান স্পোর্টিং ক্লাব লিমিটেড, ফকিরেরপুল ইয়ংমেনস ক্লাব, ভিক্টোরিয়া ক্লাব, আরামবাগ ক্রীড়া সংঘ, আজাদ স্পোর্টিং ক্লাব, সোনালী অতীত ক্রীড়াচক্র, দিলকুশা স্পোর্টিং ক্লাব, ঢাকা ওয়ান্ডারার্স ক্লাব, মুক্তিযোদ্ধা ক্রীড়াচক্র এখন গভীর নীরবতায় ডুবে আছে। একমাত্র ওয়ারী ক্লাব ছাড়া আর সব ক্লাবের ফটকে পুলিশের লাগানো তালা ঝুলছে।

জানা গেল, গত শুক্রবার সকালে পুলিশ মতিঝিলের আরামবাগ ক্লাবের ছাদ থেকে সাইফুল ইসলাম নামে এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে। এলাকাবাসী জানায়, মৃত সাইফুল ক্লাবপাড়ায় ইয়াবাসেবী ছিলেন। লাশ উদ্ধারের আগের দিন দুপুর থেকে সাইফুলসহ আরো চার-পাঁচ জন ছাদের ওপর বসে ইয়াবা সেবন করেছেন। আশপাশের বাড়ির জানালা দিয়ে বাসিন্দারা এ দৃশ্য সব সময়ই দেখেন।

স্থানীয় এক বাসিন্দা বললেন, ক্লাবের ভেতরে যখন মাদক সেবন হয় তখন পুলিশের কোনো খোঁজ থাকে না। পুলিশের এক সোর্স এখন ক্লাবপাড়ায় ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকের বড়ো ডিলার। তার সহযোগীরা খুচরা ইয়াবা, গাঁজা ও ফেনসিডিলসহ বিভিন্ন ধরনের মাদক এলাকায় বিক্রি করে।

মতিঝিলের ক্লাবপাড়ার আজহার উদ্দিন নামের এক বাসিন্দা বলেন, করোনার কারণে সন্ধ্যার পর ক্লাবপাড়া অনেকটা জনমানবশূন্য হয়ে পড়ে। সন্ধ্যায় ভূতুড়ে পরিবেশ সৃষ্টি হয়। সব দোকানপাট বন্ধ হয়ে যায়। এই সুযোগে মাদকসেবীরা ক্লাবগুলোর দেওয়াল প্রাচীর টপকে ভেতরে আড্ডা দেয়। ইয়াবা সেবন করে।

ক্লাবগুলোর দায়িত্বপ্রাপ্তদের সঙ্গে কথা বলেও একই ধরনের তথ্য পাওয়া গেছে। তারা বলছেন, ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের পর ক্লাবগুলোতে এখনো পুলিশের তালা ঝুলছে। এর মধ্যে দেশে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের কারণে পরিস্থিতি আরো খারাপ হয়েছে। এই সুযোগে ক্লাবগুলোতে চুরিও হচ্ছে। তিন মাস আগে মতিঝিলের আরামবাগ ক্লাবে পুলিশের তালা মারা দরজা ভেঙে চোর শীতাতপ নিয়ন্ত্রণের তিনটি যন্ত্রসহ বেশ কিছু মালামাল চুরি করে নিয়ে গেছে। ক্লাবগুলোতে এখন মাদক সেবনের জমজমাট আসর বসছে।

জানতে চাইলে আরামবাগ ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ইয়াকুব আলী বলেন, সামনে ক্রীড়াঙ্গনের কী পরিস্থিতি হবে—সেটা নিয়ে নীতিনির্ধারকদের আগেই চিন্তা করতে হবে। সামনে ফুটবলে দলবদল হবে। যতদিন পুলিশ ক্লাবের তালা খুলে কর্তৃপক্ষকে বুঝিয়ে না দেবে ততদিন এর নিরাপত্তার দায়-দায়িত্ব পুলিশের।

এ ব্যাপারে মতিঝিল থানার ওসি ইয়াসির আরাফাত খান বলেন, আদালতের নির্দেশে ক্লাবগুলোতে তালা মেরে সিলগালা করে দেওয়া হয়েছে। ক্লাবের নিরাপত্তার জন্য পুলিশ টহল ডিউটি দেয়। ক্লাবগুলোর কর্মকর্তারা তথ্য দিয়ে পুলিশের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখছেন। তবে ক্লাবগুলোর আশপাশে মাদকসেবীদের আড্ডা দেওয়ার বিষয়ে কোনো অভিযোগ মেলেনি।

ওডি

অপরাধের সূত্রপাত কিংবা ভোগান্তির কথা জানাতে সরাসরি দৈনিক অধিকারকে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
jachai
niet
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত
niet

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড