• সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯, ৩ আষাঢ় ১৪২৬  |   ৩৪ °সে
  • বেটা ভার্সন

আফ্রিদির চড় খেয়ে অপরাধ স্বীকার করেছিলেন আমির!

  ক্রীড়া ডেস্ক ১৩ জুন ২০১৯, ০০:৫২

শহীদ আফ্রিদি ও মোহাম্মদ আমির
শহীদ আফ্রিদি ও মোহাম্মদ আমির (ছবি : সংগৃহীত)

স্পট ফিক্সিয়ের দায়ে পাঁচ বছর নিষিদ্ধ থাকার পর আবারও জাতীয় দলে ফিরেছেন পাকিস্তানি গতি তারকা মোহাম্মদ আমির। অতীত ভুলে নতুনভাবে ক্যারিয়ার শুরু করা আমির রয়েছেন দুর্দান্ত ফর্মে। অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ উইকেট শিকার করে এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারি তিনি। তবে অতীত ভুলতে চাইলেও আর পারছেন কই! এবার আমির, আসিফ ও বাটের স্পট ফিক্সিং নিয়ে বোমা ফাটালেন পাকিস্তানি সাবেক অলরাউন্ডার আব্দুল রাজ্জাক।

পাকিস্তানি নিউজ চ্যানেল জিএনএনকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে রাজ্জাক জানিয়েছেন আফ্রিদির চড় খেয়েই স্পট ফিক্সিংয়ের কথা স্বীকার করেছিলেন আমির। তিনি বলেন,'একদিন আফ্রিদি আমাকে হঠাৎ হোটেলের কক্ষ থেকে বের হয়ে যাওয়ার জন্য বলল। বের হওয়ার কিছুক্ষণ পরেই আমি চড় মারার আওয়াজ পেলাম। আফ্রিদির ওই চড় খেয়েই আমির সব সত্য স্বীকার করে নিয়েছিল।'

এছাড়া স্পট ফিক্সিংয়ের সাথে সালমান বাটের সম্পৃক্ততা তিনি আগেই আঁচ করতে পেরেছিলেন বলে জানিয়েছেন। তবে আফ্রিদিকে সেটা জানালে আফ্রিদি তা আমলে নেন নি। রাজ্জাক বলেন,'আমি আফ্রিদিকে অনেক আগেই বলেছিলাম (ফিক্সিংয়ের সঙ্গে বাটের যুক্ত থাকার কথা)। কিন্তু সে আমাকে বলেছিল, সবকিছু ঠিকঠাক আছে, এটা আমার ভুল ধারণা। কিন্তু ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের এক ম্যাচে সালমানের সঙ্গে ব্যাটিংয়ের একপর্যায়ে আমার মনে হয়েছিল, সে ইচ্ছা করে দলকে বিপদে ফেলছে।'

সালমান বাটকে রাজ্জাকের কেন সন্দেহ হয়েছিল তার ব্যাখ্যাও তিনি দিয়েছেন। তিনি জানান,'আমি ওকে সিঙ্গেল নিয়ে আমাকে স্ট্রাইক দিতে বলেছিলাম। কিন্তু আমাকে অবাক করে দিয়ে সে আমার কথা প্রত্যাখ্যান করল। যখন আমি বুঝতে পারলাম কোনো একটা গন্ডগোল আছে, আমি কঠোরভাবে বলেছিলাম আমাকে স্ট্রাইক দিতে। কিন্তু এরপরেও সে ইচ্ছাকৃতভাবে দুটি-তিনটি করে ডট বলে দিয়ে আমাকে স্ট্রাইক দিচ্ছিল। ওর এমন আচরণে আমি খুবই হতাশ হয়েছিলাম। ওর তৈরি করা চাপের কারণেই আউট হতে হয়েছিল আমাকে।'

ওডি/এমএমএ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড