• মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৫ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

রাজীবের ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর

  অধিকার ডেস্ক

২১ অক্টোবর ২০১৯, ০১:১৮
রাজীব
কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীব (ছবি : সংগৃহীত)

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীবের ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। অস্ত্র ও মাদক আইনের পৃথক দুই মামলায় তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য এই ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করা হয়েছে।

রাজীবকে রবিবার (২০ অক্টোবর) মধ্যরাতে আদালতে হাজির করা হয়। রিমান্ড আবেদ‌নের উপর শুনা‌নি শেষে দুই মামলায় ৭ দিন করে মোট ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদেশ দিয়েছেন ঢাকা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ইয়াসমিন আরার বিশেষ আদালত।

রবিবার রাতেই রাজীবকে রাজধানীর ভাটারা থানায় পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। তার বিরুদ্ধে অস্ত্র ও মাদক আইনে ২টি মামলা করে র‌্যাব। দুই মামলায় ১০ দিন করে ২০ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হয়। এরপর মধ্যরাতে রিমান্ড আবেদনের উপর শুনানি শেষে মোট ১৪ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এর আগে, শনিবার (১৯ অক্টোবর) রাত সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর বারিধারা এলাকার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীবকে আটক করা হয়। 

ওই সময় র‌্যাবের র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফটেন্যান্ট কর্নেল সারোয়ার বিন কাশেম এক তাৎক্ষণিক প্রেস ব্রিফিংয়ে জমি দখল, সন্ত্রাসবাদ, চাঁদাবাজি ও দখলদারিত্বের সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে রাজীবকে গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানান।

সারোয়ার বিন কাশেম জানান, সি ব্লকের আফতাব উদ্দিন রোডের ৯ তলা ভবনটির সপ্তম তলা থেকে রাজীবকে আটক করা হয়। এটি তার বন্ধু মিশু হাসানের ভাড়া নেওয়া বাসা। ওই বাসার ভেতরে রাজিবকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদসহ বাসাটিতে তল্লাশি চালানো হয়। ওই বাসা থেকে বিদেশি মদের সাতটি বোতল, নগদ ৩৩ হাজার টাকা, একটি পাসপোর্ট, একটি অবৈধ পিস্তল, একটি ম্যাগজিন ও তিন রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয় বলে জানান তিনি।

ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের মধ্যেই সিটি করপোরেশন এলাকার কাউন্সিলরদের বিরুদ্ধে অবৈধভাবে দখল, চাঁদাবাজি করে শত শত কোটি টাকা হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ ওঠে। কাউন্সিলরদের কেউ কেউ সরাসরি ক্যাসিনো কারবারের সঙ্গেও জড়িত ছিলেন। অভিযানের পরপরই অনেকেই পালিয়ে দেশ ছেড়ে গেছেন। মোহাম্মদপুরের কাউন্সিলর তারেকুজ্জামান রাজীবও গত দুই সপ্তাহ ধরে আত্মগোপনে ছিলেন। র‌্যাব সদর দপ্তর ও র‌্যাব-২-এর একটি যৌথ দল তাকে নজরদারি করে।

২০১৫ সালে কাউন্সিলর নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ছিলেন তিনি। দলীয় প্রার্থী ও মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের সিনিয়র সহ সভাপতি শেখ বজলুর রহমানকে হারিয়ে নির্বাচিত হন তারেকুজ্জামান রাজিব।

রাজধানীর মোহাম্মদপুর এলাকায় যুবলীগের রাজনীতি দিয়েই রাজীবের রাজনৈতিক ক্যারিয়ার শুরু। অল্প কিছু দিনের মধ্যেই নেতাদের সান্নিধ্যে মোহাম্মদপুর থানা যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক পদ পেয়ে যান তিনি। এরপর অভিযোগ আছে, কেন্দ্রীয় যুবলীগের এক নেতাকে এক কোটি ২০ লাখ টাকা দিয়ে ঢাকা মহানগর উত্তর যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হন রাজীব।

যুবলীগের আর কাউন্সিলরের পদটি ব্যবহার করে এলাকায় সশস্ত্র সন্ত্রাসী বাহিনীর মাধ্যমে চাঁদাবাজি, দখলবাজি, টেন্ডারবাজি, মাদক ব্যবসা, ডিশ ব্যবসা নিয়ন্ত্রণ করতেন রাজীব। বিগত চার বছরে আট থেকে ১০টির বেশি নামিদামি ব্র্যান্ডের গাড়ি কিনেছেন। গুলশান ও মোহাম্মদপুরে আটটি ফ্ল্যাট রয়েছে তার। মোহাম্মদীয়া হাউসিং সোসাইটির ১ নম্বর রোড এলাকায় পানির পাম্পের জন্য নির্ধারিত জায়গায় বাড়ি বানিয়েছেন। বাড়ির জায়গাটির দামই প্রায় সাড়ে তিন কোটি টাকা।

ডিএনসিসির ৩৩ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর হওয়ার পরপরই তিনি বাহিনী দিয়ে প্রচারণায় বনে যান স্বঘোষিত ‘জনতার কমিশনার’। তবে কথিত এই ‘জনতার কমিশনার’-এর বিরুদ্ধে জনতার কাছ থেকেই মাসে কোটি টাকা চাঁদা তোলার অভিযোগ রয়েছে। 

ওডি/টিএএফ

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড