• মঙ্গলবার, ১২ নভেম্বর ২০১৯, ২৮ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

র‍্যাগিং বন্ধ ও আবরারের পরিবারকে ক্ষতিপূরণে আদালতে রিট 

  আদালত প্রতিবেদক

১৩ অক্টোবর ২০১৯, ১৭:৪৩
বিশ্ববিদ্যালয়ে র‍্যাগিং বন্ধ ও আবরার হত্যাকাণ্ড
হাইকোর্ট (ছবি : ফাইল ফটো)

দেশের সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ে র‍্যাগিং বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে আদালতে রিট আবেদন করেছেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ। একই সঙ্গে রিটে বুয়েটের শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় পরিবারকে পর্যাপ্ত পরিমাণ ক্ষতিপূরণ দেওয়ার নির্দেশনাও চাওয়া হয়েছে।  

রবিবার (১৩ অক্টোবর) হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই রিট আবেদন করা হয়। রিটে আওয়ামী লীগের সভাপতি, বিএনপির সভাপতি, মন্ত্রিপরিষদ সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিব, আইন সচিব, অর্থ সচিব, বুয়েটের উপাচার্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যসহ মোট ১৩ জনকে বিবাদী করা হয়েছে।

রিট আবেদনকারী আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ বলেন, বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের হাইকোর্ট বেঞ্চে আজ রিট আবেদনটি শুনানির জন্য উপস্থাপন করা হবে। আদালত তারিখ দিলে শুনানি হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মূল কাজ পড়ালেখা করা এবং করানো। কিন্তু তার পরিবর্তে ছাত্ররা রাজনীতির নামে সন্ত্রাসী কার্যক্রম করছে। শিক্ষকরাও পাঠদানের চেয়ে দলাদলি নিয়ে বেশি ব্যস্ত। এতে করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পড়ালেখা ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে, যা সংবিধানের ২৭ ও ২৮ অনুচ্ছেদের পরিপন্থি। এছাড়া র‍্যাগিংয়ের নামে ছাত্রছাত্রীদের ওপর নির্যাতন করা হচ্ছে। তাই এসব বন্ধের নির্দেশনা চেয়ে রিট দায়ের করেছি।

গত ৬ অক্টোবর বাংলাদেশ প্রকৌশলী বিশ্ববিদ্যালয়ের শেরে বাংলা হলের কক্ষে আবরার ফাহাদকে ডেকে নিয়ে অমানবিক নির্যাতন চালায় শাখা ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী। নির্যাতনের মুখে নিহত হন আবরার ফাহাদ। এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ৯ অক্টোবর র‌্যাগিং বন্ধ ও এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে স্বরাষ্ট্র সচিব, শিক্ষা সচিব ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশনের (ইউজিসি) চেয়ারম্যানকে লিগ্যাল নোটিশ পাঠান সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী অ্যাডভোকেট ইশরাত হাসান।

সেই নোটিশে প্রত্যেক বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের সার্বক্ষণিক সহায়তার জন্য অ্যান্টি র‍্যাগিং কমিটি গঠন এবং মনিটরিংয়ের জন্য অ্যান্টি র‍্যাগিং স্কোয়াড গঠনে সাত দিনের মধ্যে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা বলা হয়েছে। অন্যথায় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে নোটিশে উল্লেখ করা হয়।

আইনজীবী ইশরাত হাসান বলেন, অনেক স্বপ্ন আর আশা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে আসা তরুণদের স্বপ্ন সিনিয়রদের র‍্যাগিংয়ের কারণে শেষ হয়ে যায়। র‍্যাগিংয়ের নামে সিনিয়ররা নতুনদের কান ধরে ওঠবস করানো, রড দিয়ে পেটানো, পানিতে চুবানো, উঁচু ভবন থেকে লাফ দেয়া, সিগারেটের আগুনে ছ্যাঁকা দেয়া, গাছে ওঠানো, ভবনের কার্নিশ দিয়ে হাঁটানো, এমনকি দিগম্বর পর্যন্ত করা হয়ে থাকে।

এছাড়া গালিগালাজ করা, কুৎসা রটানো, নজরদারি করা এবং নিয়মিত খবরদারির মতো নানা ধরনের মানসিক নির্যাতন করা হয়। র‌্যাগিংয়ের সর্বশেষ শিকার বুয়েটের মেধাবী শিক্ষার্থী আববার ফাহাদ।

ওডি/এআর 

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড