• রবিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬  |   ২৮ °সে
  • বেটা ভার্সন

সর্বশেষ :

জিয়ার পরিচয় তিনি বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী : রেলমন্ত্রী||কলকাতায় চিকিৎসা করাতে যাওয়া ২ বাংলাদেশিকে পিষে মারল জাগুয়ার||ছাত্রদলের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক পদের ফরম বিক্রি শুরু ||ইহুদিবাদী ইসরায়েলের প্রস্তাব নাকচ করে দিল মার্কিন সাংসদ||ভারতকে অবিলম্বে কাশ্মীরের কারফিউ তুলতে বলেছে ওআইসি||‘তদন্ত করতে হবে কেন এসব অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটছে’||ইউক্রেনের হোটেলে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ৮ জনের প্রাণহানি||‘অগ্নিকাণ্ডে কেউ চাপা পড়েছে কিনা তল্লাশি চলছে’ ||মুক্তিপ্রাপ্ত ইরানের সুপার ট্যাঙ্কারটি আটকে এবার যুক্তরাষ্ট্রের ওয়ারেন্ট জারি||অবৈধ অভিবাসন ইস্যুতে ঢাকায় আসছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী  
eid

শিশু হত্যাকাণ্ড : ৪ বছরে চূড়ান্ত রায়

  কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

০৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১৭:১৮
আদালত
ছবি : সংগৃহীত

কুষ্টিয়ার কুমারখালী থানায় শিশু হত্যা মামলায় ১ জনের মৃত্যুদণ্ড ও ১ লাখ টাকা জরিমানা ছাড়াও আরও ১১ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে সাজা দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টায় কুষ্টিয়া নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের বিচারক মুন্সি মো. মশিয়ার রহমান জনাকীর্ণ আদালতে এই রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- কুমারখালী উপজেলার কোমরকান্দি গ্রামের বাসিন্দা ওমেদ আলীর ছেলে খাইরুল ইসলাম (৩৬) এর মৃত্যুদণ্ড ও ১ লাখ টাকা জরিমানা। অপর আসামিরা হলেন- খাইরুলের চাচাত ভাই সামাদ প্রামানিকের ছেলে মো. জিকু (৩২) এর ১ বছর কারাদণ্ড। 

এছাড়া বাকি ১০ জনকে ৩ মাস করে সাজা প্রদান করেছেন আদালত। তারা হলেন- খাইরুলের ভাই ফারুক হোসেন (৩২) এবং পিতা ওমেদ প্রামানিক (৬০), চাচা আছান প্রামানিক (৫৮), আবুল কাশেম (৪৮), ওছেল প্রামানিক (৫০) সর্ব পিতা মৃত ময়েন উদ্দিন, মৃত সৈয়দ আলীর ছেলে আতিয়ার রহমান (৪০), সদর উদ্দিনের ছেলে রবিউল ইসলাম (২৫) জুমারত আলীর ছেলে জাহাঙ্গীর হোসেন (৪২)।

আদালত সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালের ৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় নিহত বাবুল হোসেন (১৪) এর পিতা এজাহারকারী পলাশ উদ্দিনের বাড়িতে পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আসামিরা সংঘবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে পূর্ব পরিকল্পিত উপায়ে হামলা চালিয়ে এজাহারকারীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেন। এ সময় নিহত বাবুল ঠেকাতে গেলে তাকেও আসামিরা এলোপাতাড়িভাবে ধারালো অস্ত্রের আঘাত করে জখম করে। গুরুতর আহত বাবুলকে উদ্ধার করে কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের জরুরি বিভাগের নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ ঘটনায় কুমারখালী থানায় বিভিন্ন ধারায় ১০ জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন বাদী।

নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালতের সরকারি কৌসুলী আকরাম হোসেন দুলাল জানান, মামলাটি তদন্ত শেষে ২০১৫ সালের ১৫ মে আদালতে চার্জশিট দাখিল করেন কুমারখালী থানা পুলিশ। আদালতে দীর্ঘ সাক্ষ্য শুনানি শেষে এই মামলায় অভিযুক্ত আসামিদের জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় বিজ্ঞ আদালত এই রায় প্রদান করেছেন। রায় ঘোষণাকালে আসামিরা সবাই উপস্থিত ছিলেন।

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মোঃ তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৮-২০১৯

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড