সেই গণধর্ষণের ঘটনায় আটক ৩, আদালতে ধর্ষিতার জবানবন্দি

প্রকাশ : ০৮ নভেম্বর ২০১৮, ১৬:৪১

  ধনবাড়ী প্রতিনিধি, টাঙ্গাইল

টাঙ্গাইলের ধনবাড়ীতে এসএসসি পরীক্ষার্থী এক স্কুলছাত্রীকে গণধর্ষণের ঘটনায় ৩ মাতব্বরকে আটক করেছে ধনবাড়ী থানা পুলিশ। আটককৃতদের বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়েছে। বিজ্ঞ আদালত রিমান্ড না মুঞ্জুর করে ৩ মাতব্বরকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে। 

এ দিকে ওই স্কুলছাত্রী বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) আদালতে ২২ ধারায় জাবানবন্দি প্রদান করেছে বলে পুলিশ জানিয়েছে। 

ধনবাড়ী থানার পুলিশ জানান, বুধবার (৭ নভেম্বর) রাতে অভিযান চালিয়ে ১১ জন কর্তৃক গণধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টাকারী ৩ মাতব্বরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

আরও পড়ুন : সাজেশন নয়, ওরা ১১ জন ধর্ষণ করেছে

গ্রেফতারকৃত মাতব্বরা হলেন, ধনাবড়ী পৌর শহরের চালাষ চৌরাস্তা এলাকার মৃত বেলায়েত হোসেনের ছেলে আব্দুর রহমান (৫৮), ধনবাড়ী বাজার এলাকার মোজাম্মেল হকের ছেলে মাজহারুল হক (২৫) ও বন্দ টাকুরিয়া গ্রামের মৃত সোহরাব আলীর ছেলে মো. জালু মিয়া ওরফে জালু ড্রাইবার (৪৫)। গ্রেফতার এই ৩ মাতব্বরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে বৃহস্পতিবার টাঙ্গাইল নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে হাজির করলে বিজ্ঞ আদালত রিমান্ড না মঞ্জুর করে তাদেরকে জেল হাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন। 

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৭ অক্টোবর (শনিবার) ওই শিক্ষার্থীকে পরীক্ষার সাজেশন দেওয়ার কথা বলে মুঠোফোনে ডেকে নিয়ে ধনবাড়ী বাগান বাড়ি লিচু বাগান ছাত্রাবাসে নিয়ে ১১ জন বখাটে রাতভর পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরদিন সকালে অসুস্থ মেয়েটিকে রক্তাক্ত অবস্থায় গণধর্ষণের এ ঘটনা কাউকে না বলার হুমকি দিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়। রক্তাক্ত মেয়েটি বাসায় গিয়ে তার বাবা-মায়ের কাছে পুরো ঘটনাটি খুলে বলে। 

এ দিকে বিষয়টি জানাজানি হলে প্রভাবশালী কতিপয় মাতব্বর ঘটনাটি মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা করে এবং বাবা-মাকে জিম্মি করে অসুস্থ মেয়েটিকে ময়মনসিংহের একটি হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা প্রদান করে। পরবর্তী সময়ে ধামাচাপা দিতে ব্যর্থ হলে বুধবার (৭ নভেম্বর) পুলিশি পাহারায় ধনবাড়ী থানায় গিয়ে ওই স্কুলছাত্রীর বাবা বাদী হয়ে ১১ ধর্ষকসহ ১৬ জনকে আসামি করে ধর্ষণ মামলা করেন। এ ঘটানায় ৩ মাতব্বরকে গ্রেফতার করা হলেও এখনও মূল ধর্ষণকারী কাউকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়নি পুলিশ।

এ ব্যাপারে ধনবাড়ী থানার ওসি মজিবর রহমান বলেন, গণধর্ষণের ঘটনা ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টাকারী ৩ মাতব্বরকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।