• বুধবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৩ ফাল্গুন ১৪২৬  |   ২৬ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

ফিটনেসখেলাপি কোনো গাড়ি চলতে পারবে না

  আদালত প্রতিবেদক

১২ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১৪:১২
সুপ্রিম কোর্ট
ফাইল ছবি

সারাদেশে ফিটনেস নবায়ন না করা (ফিটনেস খেলাপি) কোনো গাড়ি রাস্তায় চলতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন উচ্চ আদালত।

বিষয়টি নিয়ে বুধবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের হাইকোর্ট বেঞ্চে একটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষ (বিআরটিএ)।

আদালতে প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পর বিআরটিএর পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী রাফিউল ইসলাম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল হেলেনা বেগম চায়না।

শুনানি শেষে আইনজীবী রাফিউল ইসলাম বলেন, আদালত বলেছেন- ফিটনেস নবায়ন না করা কোনো গাড়ি সড়কে চলতে পারবে না। আদালত এ বিষয়ে আদেশের জন্য রবিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) দিন নির্ধারণ করেছেন।

বিআরটিএর এই আইনজীবী বলেন, ২০১৯ সালে ২৩ অক্টোবর পর্যন্ত প্রায় ৫ লাখ গাড়ি ফিটনেস খেলাপি ছিল। ওইদিন আদালত আদেশ দিয়েছেন- ফিটনেস খেলাপি গাড়িকে পেট্রোল পাম্প থেকে জ্বালানি না দিতে। এ আদেশ অনুসারে বিআরটিএ ব্যবস্থা নিয়েছে। প্রত্যেক পেট্রোল পাম্পকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। তারা এ বিষয়ে ব্যানার লাগিয়েছে এবং ফিটনেস খেলাপি গাড়িকে জ্বালানি দিচ্ছে না। এসবের সচিত্র প্রতিবেদন আদালতে দেখিয়েছি।

প্রতিবেদনে গত বছরের অক্টোবরের ২৩ তারিখ থেকে ডিসেম্বরের ৩০ তারিখ পর্যন্ত প্রায় ৫ লাখ গাড়ির মধ্যে দেশব্যাপী এক লাখ ৬৫ হাজার ৭৬৪ গাড়ি তাদের ফিটনেস নবায়ন করেছে বলে জানানো হয়েছে।  

এর আগে জুলাইয়ের ২৩ তারিখে এক আদেশে রাজধানীসহ সারাদেশে লাইসেন্স নিয়ে ফিটনেস নবায়ন না করা গাড়িগুলো ৬০ দিনের মধ্যে ফিটনেস নবায়ন করতে নির্দেশ দেন হাইকোর্ট। গত ১ আগস্ট থেকে ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে এটি সম্পন্ন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল।

২০১৯ সালের ২৪ জুন আদালত রাজধানীসহ সারাদেশে ফিটনেসবিহীন তথ্য জানতে চেয়েছিলেন। সে মোতাবেক, হাইকোর্টে এ প্রতিবেদন দেয় বিআরটিএ। 

একটি ইংরেজি জাতীয় দৈনিকের প্রকাশিত প্রতিবেদন আমলে নিয়ে উচ্চ আদালতের বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কে এম হাফিজুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ সুয়োমুটো (স্বপ্রণোদিত) হয়ে বিআরটিএর পরিচালক এই তলব করেছিলেন।

এ ছাড়া ওইদিন ফিটনেস ও রেজিস্ট্রেশনবিহীন গাড়ি ও ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালানোর বিষয়ে বিবাদীদের নিষ্ক্রিয়তা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করে আদালত।

এছাড়া পাশাপাশি আরও একটি রুল জারি করে আদালত। রুলে সংবিধানের ৩২ নম্বর অনুচ্ছেদের আলোকে বেঁচে থাকার অধিকার বাস্তবায়নে কেন মোটর ভেহিকল অধ্যাদেশ ১৯৮৩ এর বিধানগুলো সঠিকভাবে পালনের জন্য নির্দেশনা দেওয়া হবে না, তা জানতে চাওয়া হয়।

আরও পড়ুন : মৈত্রী এক্সপ্রেসের নতুন শিডিউলে যাত্রা শুরু

হাইকোর্টের দেওয়া রুলের বিবাদীরা হচ্ছেন- সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সচিব, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব, পুলিশের আইজি, চেয়ারম্যান বিআরটিএ, ঢাকার ডিসি ট্রাফিক (উত্তর ও দক্ষিণ), বিআরটিএ ডিরেক্টর (রোড নিরাপত্তা) ও দুদক চেয়ারম্যান।

ওডি/এএস

  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

সম্পাদক: মো: তাজবীর হোসাইন  

 

সম্পাদকীয় কার্যালয় 

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: 02-9110584, +8801907484800

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড