• শনিবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৯, ২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬  |   ২২ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

‘দৈনিক অধিকারে’ সংবাদ প্রকাশের পর গুচ্ছগ্রামের অনিয়মের তদন্ত শুরু

  ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি

১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১১:৪৮
গুচ্ছগ্রাম
গুচ্ছগ্রামে বরাদ্দকৃত ঘর (ছবি : দৈনিক অধিকার)

ঠাকুরগাঁওয়ের বালিয়াডাঙ্গী উপজেলার ভানোর ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের হলদিবাড়ী গ্রামে সরকারিভাবে গড়ে উঠা গুচ্ছগ্রামের ঘর বরাদ্দ প্রদানে অনিয়মের সংবাদ প্রকাশের পর টনক নড়েছে প্রশাসনের। ইতোমধ্যেই দ্বিতীয়বারের মতো ঘর বরাদ্দে অনিয়মের তদন্ত শুরু করেছেন উপজেলা নির্বাহী অফিসার খায়রুল আল সুমন। যদিও এর আগে আরও একবার অনিয়মের বিষয়টি নিয়ে তদন্ত হয়েছিল বলে তার কাছ থেকে জানা গেছে।  

গত ১২ অক্টোবর ‘দৈনিক অধিকারে’ অনলাইন ভার্সন ও ১৩ অক্টোবর প্রিন্ট সংস্কারে ‘ঠাকুরগাঁওয়ে ঘর বরাদ্দে অনিয়মের অভিযোগ’ শিরোনামে একটি সংবাদ প্রকাশ করা হয়। 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার খায়রুল আলম সুমন দৈনিক অধিকারকে বলেন, প্রকাশিত সংবাদটি আমার নজরে এসেছে। সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মহসিন আলী ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল ওহাব সরকার কয়েকজনের নামের তালিকা অত্র দপ্তরে প্রদান করেছেন। তাদের সঙ্গে কথা বলে বিষয়টি আরেকবার তদন্ত করা হচ্ছে। আশা করছি প্রকৃত সুবিধাবঞ্চিতরাই গুচ্ছগ্রামের ঘর বরাদ্দের সুবিধা পাবে। 

এর আগে সুবিধাবঞ্চিতরা অভিযোগ করেন, যারা এলাকায় ভিক্ষা করে জীবন যাপন করেন, অসহায়, দুস্থ, দুমুঠো খেয়ে রাত্রিযাপনের জায়গা নেই। এমন অসহায় দুস্থদের গুচ্ছগ্রামে ঠাঁই হবার কথা। কিন্তু গুচ্ছগ্রামে এমন কিছু পরিবারকে আশ্রয় দেয়া হয়েছে যাদের নিজস্ব পাকা বাড়ি রয়েছে তারা আর্থিকভাবে স্বাবলম্বী ও অনেকের জায়গা জমিও রয়েছে। 

ইউপি সদস্য মহসিন আলী জানান, সংবাদটি প্রকাশের পর উপজেলা নির্বাহী অফিসার আমি ও ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানকে ডেকে পাঠিয়েছিলেন। তিনি সুষ্ঠু তদন্ত করার আশ্বাস প্রদান করেছেন। শুনেছি ইতোমধ্যে তিনি তদন্ত শুরু করেছেন। খোঁজ নিয়েছেন গুচ্ছগ্রামের বাসিন্দাদের কাছ থেকে। 

এর আগে অভিযোগ পেয়ে গত ১২ অক্টোবর সরেজমিনে গিয়ে অভিযোগের তালিকায় থাকা বেশ কয়েকজনকে গুচ্ছগ্রামে পাওয়া যায়নি। অন্যান্য সুবিধাভোগীদের জানতে চাইলে তারা জানান, দ্বিতীয় ধাপে বরাদ্দ পাওয়া গুচ্ছগ্রামের ঘর তালা লাগিয়েই দখল করেছে কয়েকজন ব্যক্তি। ঘর বরাদ্দ পেলেও কোনোদিন পরিবার নিয়ে উঠেনি গুচ্ছগ্রামে। আবার কয়েকজন শুধু রাতে ঘরে থাকেন, শুধু ঘর দখলে রাখার জন্য। সকাল হলেও বাড়িতে গিয়ে কাজ করেন। 

এলাকাবাসীর দাবি, দুস্থ, অসহায় এবং বাসস্থান নেই এমন পরিবারকে গুচ্ছগ্রামের ঘর বরাদ্দ প্রদান করলে এমন অভিযোগ আর উঠবে না। তাছাড়া যাদের ঘর-বাড়ি নেই তারা একটি নিরাপদ আশ্রয় পেলে শান্তিতে বসবাস করতে পারবেন। 

উল্লেখ, গত বছরের ২৯ মার্চ মাসে ঠাকুরগাঁও সফরে এসে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অভিযোগ উঠা গুচ্ছগ্রামের ৫০টি ঘরসহ ৩৩টি প্রকল্পের উদ্বোধন এবং ৩৩টি প্রকল্পের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন। 

ওডি/এসজেএ

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড