• বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬  |   ২৭ °সে
  • বেটা ভার্সন
sonargao

পরকীয়ার জেরে প্রবাসী খুন, দেড় মাস পর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার

  টাঙ্গাইল প্রতিনিধি

১৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ২১:২১
নিহত
নিহত যুবক মোশারফ মিয়া (ছবি : দৈনিক অধিকার)

পরকীয়া ও পাওনা টাকা চাওয়ার জেরে টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলায় ভাই-বোন মিলে খুন করেছেন মোশারফ মিয়া (২৫) নামে সৌদি প্রবাসী এক যুবককে।

নিহত মোশারফ মিয়া ঘাটাইল উপজেলার দিগড় ইউনিয়নের মাইদারচালা নয়াবাড়ি গ্রামের সেকান্দর আলীর ছেলে। 

খুনের ঘটনার দেড় মাস পর বুধবার (১৮ সেপ্টেম্বর) বিকালে উপজেলার গজারিয়া বিল থেকে তার গলিত বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশ ও নিহতের পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, গত ৪ আগস্ট বিকালে কদমতলী গরুর হাট থেকে ফেরার পর রাত ৯টার দিকে নিখোঁজ হন মোশারফ মিয়া। পরদিন ঘাটাইল থানায় নিখোঁজের একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। জিডি ও মুঠোফোনের কল লিস্টের সূত্র ধরে প্রতিবেশী নাছিমাকে (৩৫) গত ১৬ আগস্ট রাতে আটক করে পুলিশ। 

জিজ্ঞাসাবাদে মোশারফের সঙ্গে পরকীয়ার কথা স্বীকার করেন নাছিমা। এরপর ১৭ আগস্ট আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেওয়ার সময় নাছিমা জানান, গত ৪ আগস্ট রাতে মোশারফকে ডেকে নিয়ে নাছিমা ও তার ভাই আকতার মিলে তাকে খুন করে। এ ঘটনায় নাছিমার ভাই আকতারের স্ত্রীকেও আটক করে পুলিশ। পরে তাকেও দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত। 

মামলার বাদী নিহত মোশারফের ছোট ভাই কলেজছাত্র সজিব মিয়া জানায়, ‘২০১২ সাল থেকে আমার ভাই সৌদিতে ছিলেন। তিনি তার কষ্টার্জিত অধিকাংশ টাকা-পয়সা নাছিমাকে পাঠিয়েছেন। এ বছর রমজান মাসে দেশে ফিরে টাকা ফেরত চাইলে নাছিমা ও তার ভাই মিলে আমার ভাইকে নির্মমভাবে খুন করে। আমরা এর উপযুক্ত বিচার চাই।’

উদ্ধারকৃত বস্তাবন্দি লাশ (ছবি : দৈনিক অধিকার)

এ ব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও কালিহাতী থানার উপপরিদর্শক নাসির উদ্দিন জানান, পরকীয়া ও পাওনা টাকা চাওয়া থেকেই এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। অভিযুক্ত নাছিমা ইতোমধ্যেই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। বর্তমানে তিনি জেল হাজতে রয়েছেন। এছাড়া নাছিমার ভাবি সোনিয়াকে দুই দিনের রিমান্ডে নেওয়া হলে তার স্বামী আকতার হোসেন ঘটনার সঙ্গে সম্পৃক্ত বলে জানিয়েছেন। 

বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধারের সত্যতা স্বীকার করে কালিহাতী থানার ওসি হাসান আল মামুন জানান, মোশারফ মিয়াকে হত্যা করে লাশটি বস্তায় ভরে ইট দিয়ে বিলের মধ্যে ডুবিয়ে গুম করা হয়। খুনের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে দিগড় ইউনিয়নের মাইদারচালা নয়াবাড়ি গ্রামের সৌদি প্রবাসী ইসমাঈল হোসেনের স্ত্রী নাছিমা ও তার ভাবি সোনিয়াকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এছাড়া মামলার অন্যতম আসামি নাছিমার ভাই কালিহাতী উপজেলার বীরবাসিন্দা গ্রামের মৃত মেছের আলী মণ্ডলের ছেলে ও ভিয়াইল মাদ্রাসার শিক্ষক আকতার হোসেন এখনো পলাতক রয়েছেন। 

ওডি/আইএইচএন

আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক অধিকারকে জানাতে ই-মেইল করুন- [email protected] আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।
  • সর্বশেষ
  • সর্বাধিক পঠিত

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক: মো: তাজবীর হুসাইন

১৪৭/ডি, গ্রীন রোড, ঢাকা-১২১৫।

ফোন: ০২-৯১১০৫৮৪

ই-মেইল: [email protected]

এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, অডিও, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।

Developed by : অধিকার মিডিয়া লিমিটেড